সুন্নত পালনে মুক্তি

35

ধর্ম প্রতিবেদন
রসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের সুন্নত পালনের মধ্যে রয়েছে আমাদের জন্য মুুক্তি। তিনি যে কাজ যেভাবে করেছেন আমাদেরও সে কাজ সেভাবে করতে হবে। তিনি যেভাবে নামাজ পড়েছেন আমাকে সেভাবে নামাজ পড়তে হবে। তিনি যেভাবে খাওয়া-দাওয়া করেছেন আমাকেও সেভাবে পানাহার করতে হবে। তিনি যেভাবে ঘর-সংসার করেছেন আমাদের সেভাবেই পারিবারিক জীবন পরিচালনা করতে হবে। প্রাত্যহিক জীবনের সব কাজ ও ইবাদত-বন্দেগি নবীর সুন্নত অনুযায়ী হওয়া জরুরি। আল কোরআনের সূরা আলে ইমরানের ৩১ নম্বর আয়াতে আল্লাহ উল্লেøখ করেছেন, ‘হে নবী! আপনি বলে দিন, যদি তোমরা আল্লাহকে ভালোবাসতে চাও তাহলে আমি রসুলের অনুসরণ কর। তাহলে আল্লøাহ তোমাদের ভালোবাসবেন এবং তোমাদের জীবনের সব গুনাহ মাফ করে দেবেন। আল্লøাহ অতিশয় দয়ালু মেহেরবান।’ এ আয়াত দ্বারা বোঝা গেল, আল্লøাহর ভালোবাসার মানদ- হলো রসুলের সুন্নত পালন করা। যার মধ্যে রসুলের সুন্নত যত বেশি থাকবে সে তত বেশি আল্লাহর ভালোবাসা পাবে। সঙ্গে সঙ্গে এও প্রমাণিত হলো, নবীর সুন্নত পালন করলে দুটি পুরস্কার পাওয়া যাবে। প্রথম পুরস্কার হলো আল্লøাহ স্বয়ং তাকে ভালোবাসবেন। দ্বিতীয় পুরস্কার তার জীবনের সব গুনাহ আল্লাহ মাফ করে দেবেন। এ দুটি পুরস্কার এমন যে, এগুলো লাভ করা গেলে আর কোনো পুরস্কারের প্রয়োজন নেই। হাদিসে সুন্নতে রসুলের অনুসরণের প্রতি ব্যাপক তাগিদ দেওয়া হয়েছে। হজরত ইরবাজ ইবনে সারিয়া (রা.) থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন, একবার রসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম আমাদের নিয়ে নামাজ পড়লেন। তারপর আমাদের দিকে মনোনিবেশ করলেন এবং এমন হৃদয়স্পর্শী আলোচনা করলেন যে, এতে আমাদের অশ্রু গড়িয়ে পড়তে লাগল এবং অন্তর ভয়ে কম্পমান হয়ে গেল। এ অবস্থায় এক লোক বলল, ইয়া রসুলুল্লাহ! এটা যেন কোনো বিদায় দানকারীর উপদেশ। তাই আমাদের আরও কিছু অসিয়ত করুন। তিনি তখন বললেন, আমি তোমাদের তাকওয়া অবলম্বন ও আমিরের আনুগত্যের অসিয়ত করছি। এমনকি আমির যদি কোনো হাবশি ক্রীতদাসও হয়। মনে রেখো! আমার পরে যারা বেঁচে থাকবে তারা অনেক মতবিরোধ দেখবে। অতএব, তোমরা আমার এবং আমার পরবর্তী খোলাফায়ে রাশেদিনের (সঠিক পথপ্রাপ্ত চার খলিফার) সুন্নতকে অবলম্বন করে থাকবে, যারা হিদায়েতের ওপর প্রতিষ্ঠিত। তোমরা এ সুন্নত ও আদর্শ আঁকড়ে ধরবে এবং মজবুতভাবে তা পালন করবে। ইসলামে নতুন উদ্ভাবিত যে কোনো মতাদর্শ থেকে দূরে থাকবে। কেননা, প্রতিটি নতুন মতাদর্শই বিদাত। আর প্রতিটি বিদাতই হলো পথভ্রষ্টতার কারণ। মুসনাদে আহমদ, আবু দাউদ। আল্লাহ আমাদের সবাইকে সুন্নতের ওপর আমল করার তাওফিক দান করুন।