র্আথকি লনেদনেে যুক্ত হলো ফন্যিান্সয়িাল ইনক্লুশন সফটওয়্যার

11

প্রযুক্তি ডস্কে
গত ১৬ বছর ধরে ইরা-ইনফোটকে লমিটিডে র্আথকি সবোর সঙ্গে সর্ম্পকতি বভিন্নি ধরণরে সফটওয়্যার সল্যুশন তরৈি করে যাচ্ছ।ে তাদরে তরৈি বভিন্নি ফন্যিান্সয়িাল সফটওয়্যার সল্যুশনরে মধ্যে সাধারণ ও ইসলামকি ব্যাংকংিয়রে জন্য কোর ব্যাংকংি সল্যুশন,অটোমটেডে চকে প্রসসেংি, ইএফট,ি অটোমটেডে রস্কি-বজেড ক্যাপটিাল ক্যালকুলশেন (ব্যাজলে ফ্রমেওর্য়াক), অটোমটেডে লোন প্রসসেংি সস্টিমে (ওকাস্), ইনভনেটরি ম্যানজেমন্টে, ফক্সিড অ্যাসটেস ম্যানজেমন্টে, এইচআর অ্যান্ড পরেোল ম্যানজেমন্টে, ই-রক্রিুটমন্টে, এজন্টে ব্যাংকংি সল্যুশন, মাইক্রোফন্যিান্স ম্যানজেমন্টে সল্যুশন প্রভৃত।ি দুইটি রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংকসহ ১৯টি ব্যাংক ছাড়াও স্থানীয় সরকার ও পল্লী উন্নয়ন এবং সমবায় মন্ত্রণালয়ে ব্যবহূত হয়ে আসছে এসব সফটওয়্যার। সম্প্রতি প্রতষ্ঠিানটি ফন্যিান্সয়িাল ইনক্লুশন সফটওয়্যার ডভেলেপ করছে।ে র্আথকি লনেদনেরে নতুন এই সফটওয়্যার নয়িে কথা হয়ছেে ইরা-ইনফোটকেরে প্রধান নর্বিাহী র্কমর্কতা মুহা. সরিাজুল ইসলামরে সঙ্গ।ে
ইরা-ইনফোটকেরে নতুন ফন্যিান্সয়িাল ইনক্লুশন সফটওয়্যার প্রসঙ্গে সরিাজুল ইসলাম বলনে, ফন্যিান্সয়িাল ইনক্লুশন সফটওয়্যার এর প্রধান কাজ হলো-ব্যাংকংি জনগণরে জন্য ব্যাংকংি সবো সহজলভ্য করা। প্রচলতি ব্যাংকরে যে স্ট্রাকচার তাতে সাধারণ মানুষ এতে কম আস।ে আমাদরে ডভেলেপ করা সফটওয়্যাররে মাধ্যমে র্আথকি সবো বঞ্চতি ব্যাপক জনগোষ্ঠি ব্যাংকরে সবো গ্রহণরে সুযোগ পাব।ে ফন্যিান্সয়িাল ইনক্লুশন সফটওয়্যার থাকাতে প্রত্যন্ত অঞ্চলে একজন এজন্টে একটি ল্যাপটপ ও একটি বায়োমট্রেকি ডভিাইস নয়িে ব্যাংকংি সবো দতিে পারছ।ে এজন্টে ব্যাংকংি খাতে বায়োমট্রেকি এবং এনএফসি পদ্ধতরি ব্যবহার শুরু হয়ছেে ইরা-ইনফোটকেরে হাত ধরইে।
র্আথকি র্অন্তভুক্তকিরণে প্রত্যন্ত অঞ্চলরে জনগণ কী ধরনরে সুফল ভোগ করতে পারবনে ? এমন প্রশ্নরে উত্তরে সরিাজুল ইসলাম বলনে,‘র্আথকি র্অন্তভুক্তি করণরে ফলে আগরে চয়েে অধকি লোকজন ব্যাংকংি সবো গ্রহণ করতে পারব।ে ব্যাংকংি লনেদনে হবে নরিাপদ। সাধারণ মানুষরে মধ্যে ব্যাংকংি সর্ম্পকে ধারণা বাড়বে যাকে আমরা র্আথকি শক্ষিা বলতে পার।ি শুধু তাই নয়, দশেে উদ্যোক্তার পরমিাণও বাড়তে থাকব।ে যারা এজন্টে ব্যাংকংিয়রে এই মডলে ব্যবহার করছে তারা আবার সাব এজন্টে নয়িোগ দতিে পারছ।ে উদাহারণ হসিবেে বলা যায়, শুধুমাত্র ব্যাংক এশয়িারই ৩০০০ এর বশেি এজন্টে রয়ছে।ে তারা কছিু সাব এজন্টে নয়িোগ করছেে যাদরে অধকিাংশই স্থানীয়। এতে পরস্পর পরস্পরকে চনিছে ও জানছে এবং বশ্বিাসযোগ্যতা বৃদ্ধি পাচ্ছ।ে বশিষে করে প্রত্যন্ত অঞ্চলে মহলিারা খুব সহজে ক্ষুদ্র ঋণ গ্রহণ করতে পারছনে। অন্যদকি,ে সঞ্চয় প্রবণতা বাড়ছ,ে র্আথকি প্রবাহ বৃদ্ধ,ি র্আথকি পরকিল্পনা প্রণয়নে সক্ষমতা বাড়ছ,ে যা জাতি গঠনে গুরুত্বর্পূণ ভূমকিা রাখছ।ে এছাড়াও, র্আথকি লনেদনেরে স্বচ্ছতা ও জবাবদহিীতা আগরে চয়েে অনকে বড়েছে।ে’
তনিি আরও বলনে,‘সারাদশেে ‘সামাজকি নরিাপত্তা বলয়রে’ আওতায় প্রতবিন্ধ,ি বধিবা, মুক্তযিোদ্ধা ও বয়স্কভাতা প্রদান করা নরিাপদ দ্রুত ও সহজ হয়ছে।ে র্আথকি লনেদনেরে ১০-১৫% খরচরে অপচয় কমছে।ে এর অন্যতম কারণ হলো-ভূয়া নামরে বা তথ্যরে ভত্তিতিে এখন আর কোনো ভাতা তোলা সম্ভব হচ্ছে না। ডজিটিাল লনেদনেরে মধ্য দয়িে আমরা ডজিটিাল বাংলাদশে বনির্মিাণে ভূমকিা রাখছ।ি’
এজন্টে ব্যাংকংিয়ে নতুন এই মাত্রা যুক্ত করতে কী ধরনরে পদক্ষপে গ্রহণ করা প্রয়োজন বলে মনে করনে? এমন প্রশ্নরে উত্তরে সরিাজুল ইসলাম বলনে,‘ডজিটিাল ডকুমন্টে ব্যবহার পলসিি প্রণয়ন প্রয়োজন। ই-কওেয়াইসি কন্দ্রেীয়ভাবে সংরক্ষণ করা প্রয়োজন। এ কাজে কন্দ্রেীয় ব্যাংক প্রধান ভূমকিা রাখতে পার।ে জাতীয় পরচিয়পত্রকে প্রাধান্য দয়িে বভিন্নি কাজে এর ব্যবহার ও যাচাই পদ্ধতরি সহজকিরণ করতে হব।ে ব্যাংকংি বা নন-ব্যাংকংিয়ে ই-কওেয়াইসি পলসিরি প্রয়োজন। আর একটি বষিয় হলো- অ্যাকাউন্ট ওয়াইজ এক্সাইজ ডউিটি নর্ধিারণ না করে কাস্টমার ওয়াইজ ডউিটি নর্ধিারণ করলে ভালো হয়।’