রাশিয়া না থামলে সামরিক শক্তি ব্যবহার করবে তুরস্ক

39

বিশ্ব প্রতিবেদন
ইদলিবের অবস্থার উন্নতি না হলে সেখানে সামরিক অভিযান চালানোর হুমকি দিয়েছেন তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেফ তাইয়েফ এরদোয়ান। সেখানে বর্তমানে রাশিয়া ও সিরিয়ার যৌথ বাহিনী বিদ্রোহীদের বিরুদ্ধে অভিযান পরিচালনা করছে। বিদ্রোহীদের পক্ষে তুরস্ক গত সপ্তাহে একটি যুদ্ধবিরোতী চুক্তি করেছিলো রুশ সরকারের সঙ্গে। তবে তার তোয়াক্কা না করে হামলা চালিয়ে যাচ্ছে রাশিয়া। ইতিমধ্যে নিয়ন্ত্রণ নিয়ে ফেলেছে ইদলিবের প্রধান শহরগুলোরও। এমন সময়ই সামরিক অভিযান পরিচালনার হুমকি দিলেন এরদোয়ান। রয়টার্স জানিয়েছে, রাশিয়ার সহায়তায় সিরিয়ার প্রেসিডেন্ট বাসার আল-আসাদ ইদলিবের প্রধান শহর মারাত আল-নুমানসহ বেশ কয়েকটি শহর দখল করে নিয়েছেন। ফলে তুরস্কের সঙ্গে রাশিয়ার সম্পর্কে আবারো ফাটল দেখা দিয়েছে। দেশটি এখন মস্কোর বিরুদ্ধে যুদ্ধের হুমকি দিচ্ছে। আঙ্কারায় এক বক্তব্যে এরদোয়ান বলেন, তুরস্কের সীমান্তে আমরা আর কোনো নতুন হুমকি মেনে নেবো না। এর জন্য যদি সামরিক শক্তি ব্যবহার করতে হয় তাহলে তাই করবো। যা যা করা সম্ভব তাই করা হবে। এদিকে রাশিয়া জানিয়েছে, তারা ইদলিবে সাময়িক যুদ্ধবিরোতী মেনে নিয়েছিলো। কিন্তু বিদ্রোহীরা সিরিয়ার সেনাদের ওপর হামলা করলে বন্ধুরাষ্ট্র হিসেবে উচিৎ জবাব দেয়া ছাড়া আর কোনো রাস্তা খোলা নেই তার কাছে। উল্লেখ্য, বিদ্রোহীদের অতর্কিত হামলায় সিরিয়ার ৪০ সেনা নিহত হয় গত সপ্তাহে। এরপরই বিদ্রোহীদের লক্ষ্য করে অনবরত বিমান হামলা চালিয়ে যাচ্ছে রাশিয়া। পরপর দখল করে নিয়েছে গুরুত্বপূর্ন শহরগুলো। এতে উদ্বিগ্ন হয়ে উঠেছে তুরস্ক।