যানবাহন চলাচলে ধ্বসে পড়তে পারে ব্রিজ

74

সরিষাডাঙ্গার ঝুঁকিপূর্ণ ব্রিজ দিয়ে ভারি যানবাহন চলাচল
নিজস্ব প্রতিবেদক:
চুয়াডাঙ্গা সদরের সরিষাডাঙ্গা থেকে বলিয়ারপুর সড়ক পথের জিকে খালে থাকা ছোট ব্রিজটির বেহাল দশা। ব্রিজটির মাঝখানে ভেঙে যাওয়া সত্বেও ঝুঁকিপূর্ণ এ ব্রিজটির ওপর দিয়ে চলছে ভারি যানবাহন। যেকোনো সময় বড় ধরনের দুর্ঘটনা ঘটার সম্ভাবনা রয়েছে। বিচ্ছিন্ন হতে পারে সরিষাডাঙ্গা থেকে সড়ক পথে গ্রামের একটি অংশসহ নাগদাহ, আইলহাস ও খাসকররা ইউনিয়নসহ আশপাশ অঞ্চলের কয়েকশ গ্রাম।
জানা গেছে, চুয়াডাঙ্গা মোমিনপুর ইউনিয়নের সরিষাডাঙ্গা গ্রামের ওপর দিয়ে সড়ক পথে যাতায়াত করেন নাগদহ ইউনিয়নের বলিয়ারপুর, নাগদহ, ভোলার পাড়া, জোড়গাছা, টাকপাড়া, বেনাপাড়াসসহ বেশকয়েকটি গ্রামের মানুষ। এ সড়কটিতে জিকে খালের একটি ব্রিজ আছে। প্রায় এক বছর ব্রিজটির মাঝখানের কিছু অংশ ধসে গেছে। পানি উন্নয়ন বোর্ড ঝুঁকিপূর্ণ ব্রিজ ঘোষণা করে একটি সাইবোর্ডও টাঙিয়ে দিয়েছে। কিন্তু মানছেন না কিছু ইটভাটার ট্রাক্টর চালকেরা। ঝুঁকিপূর্ণ ব্রিজ ব্যবহার করে অহরহ চলছেন তাঁরা। এ অবস্থায় যেকোনো সময় দুর্ঘটনা ঘটতে পারে। বড় ধরনের দুর্ঘটনা ঘটার সঙ্গে সঙ্গে মোমিনপুর ইউনিয়নের সঙ্গে ইউনিয়ের একাংশ ও নাগদাহ ইউনিয়নের কয়েকটি গ্রামের সঙ্গে সড়কপথ বিচ্ছিন্ন হবে যোগাযোগ।
সরিষাডাঙ্গা গ্রামের জাহাঙ্গীর আলম সম্রাট বলেন, সরিষাডাঙ্গার জিকে খালের ওপর এ ব্রিজ একটি গুরুত্বপূর্ণ ব্রিজ। ব্রিজটির ওপর দিয়ে কয়েকটি গ্রামের মানুষ যাতায়াত করে। প্রায় এক বছর ব্রিজটি কিছু ভাঙা অবস্থায় আছে। এরপর আবার প্রতিদিন বেশ কয়েকটি ইটভাটার প্রায় ৩০টি গাড়ি শতাধিকবার যাতায়াত করে। পানি উন্নয়ন বোর্ডের ঝুঁকিপূর্ণ সাইনবোর্ড থাকা সত্বেও এই ভারি ট্রাক্টরগুলো চলাচল করে। এ অবস্থায় যেকোনো সময় বড় ধরনের দুর্ঘটনা ঘটতে পারে। ব্রিজটি চলাচলের অযোগ্য হলে সাধারণ মানুষ চরম ভোগান্তিতে পড়বে।
নাগদাহ গ্রামের আমির আলী বলেন, দ্রুত নতুন ব্রিজ নির্মাণ করতে হবে। তা না হলে কয়েকটি গ্রামের মধ্যে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হবে। একই সঙ্গে যতদিন না নতুন ব্রিজ নির্মাণ না হচ্ছে, ততদিন ভারি ট্রাক্টর চলাচল বন্ধ করতে হবে। না হলে ভোগান্তির শেষ থাকবে না।