মেহেরপুরে রেল সংযোগ স্থাপনে অধিকতর গুরত্ব দেওয়া হয়েছে : প্রতিমন্ত্রী

81

মেহেরপুর অফিস:
প্রধানমন্ত্রীর প্রতিশ্রতি অনুয়ায়ী মেহেরপুরে রেল সংযোগ স্থাপনে অধিকতর গুরত্ব দেওয়া হয়েছে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ২০১১ সালে স্বাধীনতার সূতিকাগার ঐতিহাসিক মজিবনগরে ১৭ এপ্রিলের জনসভায় ঘোষণা দিয়েছিলেন মেহেরপুর জেলাতে রেল লাইন সংযোগ দেওয়া হবে। জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ও মেহেরপুর-১ আসনের সংসদ সদস্য অধ্যাপক ফরহাদ হেসেন ‘দর্শনা হতে দামুড়হুদা এবং মুজিবনগর হয়ে মেহেরপুর পর্যন্ত নতুন ব্রডগেজ রেল লাইন নির্মাণের জন্য সম্ভাব্যতা যাচাই ও বিশদ ডিজাইন’ শীর্ষক প্রকল্প অবহিতকরণ সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন। গতকাল শুক্রবার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে মেহেরপুর জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে এ অবহিতকরণ সভা অনুষ্ঠিত হয়।
প্রতিমন্ত্রী বলেন, দর্শনা থেকে মুজিবনগর হয়ে মেহেরপুর পর্যন্ত রেল সংযোগের আওতায় আনা হচ্ছে। পরবর্তীতে মেহেরপুর থেকে কুষ্টিয়ার ভেড়ামারা অথবা মিরপুর পর্যন্ত বিস্তৃত করা হবে। তিনি বলেন, মানুষকে ভোগান্তির মধ্যে না ফেলে কম জমি নষ্ট করে কত সহজে রেল সংযোগ করা যায়, সে বিবেচনায় ফিজিবিলিটি টেস্ট করে দুইটা ডিজাইন করা হয়েছে। আমরা সেটিকে আরও সহজতর করার লক্ষে কাজ করছি। যা মেহেরপুর জেলার জন্য এটি একটি মাইলফলক হিসেবে কাজ করবে।
জেলা প্রশাসক ড. মোহাম্মদ মুনসুর আলম খানের সভাপতিত্বে রেল সংযোগের ডিজাইন নিয়ে আলোচনা করেন প্রকল্প পরিচালক ও রাজশাহী রেলওয়ের অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী আসাদুল হক। অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক তৌফিকুর রহমানের সঞ্চালনায় অন্যদের মধ্যে বক্তব্য দেন মেহেরপুর-২ আসনের সংসদ সদস্য সাহিদুজ্জামান খোকন, সাবেক সংসদ সদস্য মকবুল হোসেন, মেহেরপুরের পুলিশ সুপার এস এম মুরাদ আলী, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এম এ খালেক, পাবলিক প্রসিকিউটর পল্লব ভট্টাচার্য, জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক অ্যাড. ইব্রাহিম শাহীন, বাগোয়ান ইউপি চেয়ারম্যান আয়ুব হোসেন, মেহেরপুর প্রেসক্লাবের সভাপতি ফজলুল হক মণ্টু, সাধারণ সম্পাদক আলামিন হোসেন প্রমুখ। এছাড়াও জুম ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে মেহেরপুরের বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষ অবহিতকরণ সভায় অংশগ্রহণ করেন।