মেহেরপুরের আমঝুপি হাই স্কুল মাঠে পহেলা জানুয়ারী থেকে শুরু হয়েছে পৌষ মেলা উচ্চস্বরে মাইকে মাইকে র‌্যাফেল ড্র-এর টিকিট বিক্রি : প্রশাসন নীরব

218

meherpur pic-1নিজস্ব প্রতিবেদক: মেহেরপুরে চলছে র‌্যাফেল ড্র-এর আড়ালে জমজমাট জুয়া। টিকিট বিক্রির জন্য প্রতিদিনই জেলার বিভিন্ন প্রান্তে বের হচ্ছে ১৮৫ টি গাড়ি। চলছে উচ্চস্বরে মাইকের আওয়াজ। এতে প্রতিনিয়তই হচ্ছে শব্দ দুষন। এর ফলে বিভিন্ন মানসিক রোগে মানুষ আক্রান্ত হতে পারে বলে জানিয়েছেন পরিবেশবিদরা। এভাবে উচ্চ স্বরে মাইকে টিকিট বিক্রি হলেও পদক্ষেপ নেয় প্রশাসনের। ফলে ক্ষোভ বিরাজ করছে সচেতন মহলে। তবে দ্রুত তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে জানিয়েছেন জেলা প্রশাসক পরিমল সিংহ। মেহেরপুর সদর উপজেলার আমঝুপি হাই স্কুল মাঠে পহেলা জানুয়ারী থেকে শুরু হয়েছে পৌষ মেলা। মেলার প্রথম দিন থেকেই শুরু হয় হাউজি বাম্পার ও র‌্যাফেল ড্র। এদিন মেলার চাঁদের কণা নামের র‌্যাফেল ড্র থেকে টিকিট বিক্রির জন্য বের করা হয় মাইকসহ ৬০টি গাড়ি। গেল ১১ দিনে তা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১৮৫ টিতে। প্রতিদিনই জেলার বিভিন্ন পথ ঘাট, পাড়া মহল্লায় চষে বেড়াচ্ছে এসব গাড়ি। এতে ভিড় জমাচ্ছেন শিশু থেকে শুরু করে সব বয়সের মানুষ। পিছিয়ে নেয় নারীরাও। গাড়ি প্রতি দেওয়া হচ্ছে ১২০০ টি করে টিকিট। এক একটি গাড়ি থেকে দৈনিক বিক্রি হচ্ছে ৯০০ থেকে এক হাজার টিকিট। এতে ১৮৫ টি গাড়িতে প্রায় ৩৫ থেকে ৪০ লক্ষ টাকার টিকিট বিক্রি হয়। মেলা থেকে পুরষ্কার দেয়া হয় ১২ থেকে ১৩ লাখ টাকার। বাকি টাকা চলে যাচ্ছে জেলার বাইরে। আবার র‌্যাফেল ড্রর সরসরি সম্প্রচার করা হচ্ছে ক্যাবল নেটওয়ার্কে। এতে মধ্য রাত পর্যন্ত জেগে থাকছেন শিশুসহ সাধারণ মানুষ। আবার উচ্চ স্বরে মাইক বাজানোর ফলে বাড়ছে শব্দ দুষন। অনেক এসএসসি পরিক্ষর্থী লেখাপড়া বাদ দিয়ে টিকিট কেটে মধ্যরাত থেকে বসে থাকছেন টিভি  সেটের সামনে। মাইকের শব্দে পড়া লেখার বিঘœ ঘটছে মেলার আশেপাশের ছাত্র-ছাত্রীদের। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একজন টিকিট বিক্রেতা জানান, প্রতিদিনই তারা ১২শ টিকিট নেন মেরা কৃতপক্ষের কাছ থেকে। বিক্রি হয় ৯শ থেকে ১১ শ টিকিট। আবার কোন কোনদিন টিকিট শেষ হয়ে যায়। টিকিট বিক্রির মাধ্যমে মেলা কতৃপক্ষের কছ থেকে কমিশন পান তারা। তবে মাইক না বাজালে টিকিট বিক্রি কম হয় বলে জানান তিনি। মেহেরপুর গাংনী ডিগ্রী কলেজের অবসরপ্রাপ্ত ভূগোল ও পরিবেশের সহকারি অধ্যাপক এনামুল আযীম জানান, যেভাবে মাইকের মাধ্যমে উচ্চ স্বরে টিকিট বিক্রি করা হচ্ছে তাতে মারাত্মক ক্ষতির শিকার হচ্ছেন সাধারণ মানুষ। এর ফলে মাথা ঝিম ঝিম, বোমি বোমি ভাব, কানে কম শোনা, দম ধরে থাকাসহ বিভিন্ন মানসিক রোগে আক্রান্ত হতে পারে এলাকার মানুষ। জেলা প্রশাসক পরিমল সিংহ জানান, যারা উচ্চ স্বরে মাইক বাজাচ্ছেন তাদের বিরুদ্ধে দ্রুত ব্যবস্থা নেয়া হবে। এছাড়াও র‌্যাফেল ড্র-এর নামে চলা জোয়ার বিষয়টিও ক্ষতিয়ে দেখা হচ্ছে।