মায়েরা যত্নবান হলে সন্তানেরা সত্যিকারের মানুষ হবে

30

আলমডাঙ্গার কুমারী ইউনিয়নে আইনশৃঙ্খলাবিষয়ক মতবিনিময় সভায় এসপি জাহিদ
আলমডাঙ্গা অফিস:
আলমডাঙ্গার কুমারী ইউনিয়নে আইনশৃঙ্খলাবিষয়ক মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল সোমবার বিকেলে কুমারী ভেটেরিনারি ট্রেনিং ইনস্টিটিউট অডিটরিয়ামে এ মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়। জেলা পরিষদের সদস্যা কাজল রেখার সভাপতিত্বে মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন চুয়াডাঙ্গা পুলিশ সুপার জাহিদুল ইসলাম।
প্রধান অতিথির বক্তব্যে পুলিশ সুপার জাহিদুল ইসলাম বলেন, ‘আমাদের সমাজে অর্ধেক নারী, অর্ধেক পুরুষ। তাই নারীদের পিছনে ফেলে রেখে সমাজের উন্নয়ন সম্ভব নয়। সামাজিকভাবে পিতাদের চাইতে মায়েদের কর্তব্য অনেক। কারণ, সন্তানকে সত্যিকারের মানুষ করতে হলে, সন্তানদের প্রতি মায়েদের যত্নবান হতে হবে। আপনি যদি আপনার সন্তানকে যোগ্য করে গড়ে তুলতে পারেন, তাহলে সেই সন্তান অপরাধের সঙ্গে জড়াবে না, সেই সন্তান মাদকের সঙ্গে জড়াবে না, সেই সন্তান ইভটিজিংয়ের সঙ্গে জড়াবে না, সেই সন্তান বাল্যবিবাহর শিকার হবে না। তার জন্য আপনাদের সচেতন হতে হবে। আপনি যদি জীবনকে ভালোবাসেন, তাহলে মাদেকর সঙ্গে জড়াবেন না। কারণ, মাদক আপনার সন্তানদানের ক্ষমতা, সন্তান ধারণের ক্ষমতা নষ্ট করে দেয়। তাই মাদক পরিহার করতে হবে।’
পুলিশ সুপার বলেন, বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধে পুলিশের ভূমিকা অবিস্মরণীয়। রাজারবাগ পুলিশ লাইনসে প্রথম পাকিস্তানি হানাদারদের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ করেছিল পুলিশ। পাকিস্তানি সৈন্যের বিরুদ্ধে প্রথম প্রতিরোধ গড়ে তোলে পুলিশ বাহিনী। শুধু তাই নয়, পাকিস্তানি সেনারা রাজারবাগ পুলিশ লাইনসে হামলা চালিয়ে নিরস্ত্র পুলিশদের হত্যা করে। সেদিন অসংখ্য পুলিশ সদস্য শহীদ হন। কিন্তু পুলিশের স্বাধীনতা পদক পেতে ২০১১ সাল পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হয়েছিল। ২০১১ সালে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী বাংলাদেশ পুলিশকে স্বাধীনতা পদকে ভূষিত করেন। এত দেরি কেন হলো? কারণ, এ দেশে ইতিহাস বিকৃতি করা হয়েছে। ইতিহাস বিকৃতি করে অনেক ব্যবসা-বাণিজ্য হয়েছে। সঠিক ইতিহাস আমাদের জানতে হবে। তিনি বলেন, ‘মুক্তিযোদ্ধাদের গভীর শ্রদ্ধার সঙ্গে স্মরণ করছি। এ দেশ যদি স্বাধীন না হতো, তাহলে এই মাইকে আমি বক্তব্য দিতে পারতাম না।’
বিশেষ অতিথি ছিলেন চুয়াডাঙ্গার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) মো. কলিম উল্লাহ, চুয়াডাঙ্গা সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবু জিহাদ ফকরুল আলম খান, আলমডাঙ্গা থানার ওসি সৈয়দ আশিকুর রহমান, আলমডাঙ্গা উপজেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি মজিবর রহমান, প্রেসক্লাবের সভাপতি খন্দকার শাহ আলম মণ্টু, কুমারী মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আব্দুল হান্নান, কুমারী দক্ষিণপাড়ার সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক বেগম হোসনে জাহান ও কুমারী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক রেহেনা পারভীন। বক্তব্য দেন বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল গনি। অনুষ্ঠানটি পরিচালনা করেন কুমারী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আব্দুর রাজ্জাক প্রমুখ।