মানসম্মত না হলে পুনরায় কাজ করাবেন মেয়র!

119

চুয়াডাঙ্গায় পানি শোধনাগারের ফাংশনাল বিল্ডিং নির্মাণ কাজের উদ্বোধন
বিশেষ প্রতিবেদক:
চুয়াডাঙ্গা পৌর এলাকার পানি শোধনাগার চত্বরে ফাংশনাল বিল্ডিং নির্মাণ কাজের উদ্বোধন করা হয়েছে। গতকাল রোববার বেলা সাড়ে ১১টায় এ কাজের উদ্বোধন করেন চুয়াডাঙ্গা পৌর মেয়র ওবায়দুর রহমান চৌধুরী জিপু। এ সময় উপস্থিত ছিলেন চুয়াডাঙ্গা জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তরের নির্বাহী প্রকৌশলী মোস্তাফিজুর রহমান, পৌরসভার সহকারী প্রকৌশলী হাফিজুর রহমান কাওছার, সহকারী প্রকৌশলী (পানি) এ এইচ,এম সাহীদুর রশীদ, জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তরের উপ-সহকারী প্রকৌশলী হাসিবুজ্জামান, ব্যয় নির্ধারক (এস্টিমেটর) মাহমুদা সুলতানা, পৌর কাউন্সিলর শাহিনা আক্তার রুবি, সিরাজুল ইসলাম মনি, নাজরিন পারভীন মলি, সংশ্লিষ্ট কাজের ঠিকাদার প্রতিষ্ঠান মেসার্স সৈকত এন্টারপ্রাইজ ও মেসার্স ইমি মটরস্ এর প্রোপাইটর মো. হান্নান ও মো. ইলিয়াছ হোসেন, সেচ্ছাসেবকলীগ নেতা মাফিজুর রহমান মাফি, জেলা স্বেচ্ছাসেবকলীগের যুগ্ম আহবায়ক মতিয়ার রহমান মতি, আলমডাঙ্গা পৌরসভার সাবেক কাউন্সিলর হাসিবুল হকসহ এলাকার অন্যান্য ব্যক্তি এবং স্থানীয় কৃষকসহ বিভিন্ন শ্রেণী-পেশার মানুষ। এ সময় প্রকল্পের সমৃদ্ধি ও উন্নতি কামনা করে বিশেষ মোনাজাত করেন মোনাজাত পরিচালনা করেন পৌরসভার পাইপ লাইন মেকানিক্স জামিল শেখ। পানি শোধনাগারের সার্বিক কার্যক্রম পরিচালনার জন্য ৩৭ জেলা শহরে পানি সরবরাহ প্রকল্পের আওতাধীন ফাংশনাল বিল্ডিং নির্মাণ কাজের অর্থায়ন করছে জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তর। এ কাজে ৮৪ লাখ ২৭ হাজার ৪৫৯ টাকা ব্যয় ধরা হয়েছে।
এদিকে, ভবন নির্মাণ কাজের উদ্বোধন পরবর্তী পানি শোধানাগারের অন্যান্য কাজ তদারকি করেন মেয়র ওবায়দুর রহমান চৌধুরী জিপু। এ সময় কিছু কাজে নি¤œ মানের সামগ্রি ব্যবহার করায় সংশ্লিষ্ট ঠিকাদার প্রতিষ্ঠানকে সেগুলো সরিয়ে সিডিউল অনুযায়ী উন্নত মালামাল নিয়ে এসে কাজ করার নির্দেশ দেন তিনি। সেই সঙ্গে তিনি বলেন, ‘চলমান এসব নির্মাণ কাজ শিডিউল অনুযায়ী উন্নত মালামাল দিয়ে করতে হবে। আর যদি নির্মাণ কাজ মানসম্মত ও টেকসই না হয় তবে পুনরায় তা ভেঙে নতুন করে কাজ করে দিতে হবে। এতে ঠিকাদারকেই লোকশান গুনতে হবে। আমরা চাই মানসম্মত ও টেকসই উন্নয়ন। নামমাত্র দৃশ্যমান কাজ করলে কাউকে ছাড় দেওয়া হবে না।’