মানবিকতায় নেই রাজনৈতিক গণঐক্য

18

সমীকরণ প্রতিবেদন:
নির্বাচন ঘনিয়ে এলে রাজনৈতিক জোটবসন্ত শুরু হয় বাংলাদেশে। কিন্তু মানবিক-মানবতায় জনগণের বৃহৎ স্বার্থ ও অধিকার নিশ্চিতে নেই রাজনৈতিক গণঐক্য। বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যায়ের (বুয়েট) ছাত্র আবরার ফাহাদকে রাতভর পিটিয়ে হত্যার পর রাজনৈতিক দলসমূহ নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে। ভোটের স্বার্থে, দলের স্বার্থে ক্ষমতার চেয়ারের লোভে এ দেশে সবসময় জোটবসন্ত অব্যাহত থাকে। জনগণ ও মানবিকতার ইস্যুতে রাজনৈতিক দলগুলো শুধু গণমাধ্যমে প্রচারণা পেতে আলাদা ঘরোয়া প্রতিক্রিয়া ও প্রেস রিলিজ পাঠিয়ে দায় সারছে। তাই সচেতন মহল থেকে দাবি উঠেছে— বিপর্যস্ত রাজনৈতিক ইস্যুতে কেন নেই গণঐক্য? এ নিয়ে বাংলাদেশের রাজনৈতিক দলগুলোর নেতাদের সঙ্গে কথা বললে বৃহৎ রাজনৈতিক গণঐক্য প্রসঙ্গে ভিন্নমত পোষণ করেন তারা। আবরারকে হত্যার পর সরকারবিরোধী রাজনৈতিক দল বিএনপির কাছে জানতে চাইলে দলটির ভাষ্য— আবরার ইস্যুতে প্রতিবাদে আলাদা প্ল্যাটফর্মের প্রয়োজন নেই, সবাই আলাদা আলাদা প্রতিক্রিয়া জানাচ্ছেন, সবার ভাষাই এক। যদিও এর আগে আবরার হত্যার পর তাৎক্ষণিক দলটির যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী শয়নকক্ষ (দলীয় কার্যালয়) থেকে গণমাধ্যমে প্রতিক্রিয়া জানিয়ে ফেনী নদীকে আবরার নদী নামকরণের দাবি জানান!
তবে এ নিয়ে ভিন্নমত পোষণ করেছে বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামী। দলটি মনে করে, রাজনৈতিক হত্যাকা-ের এমন বৃহৎ ইস্যুতে পৃথক জোটে প্রতিবাদ না করে সবাই একসঙ্গে দাবি তুলে মানবিকতার জয় সুনিশ্চিত করা প্রয়োজন। যদিও এ দলটিকেও এখনো আবরার ইস্যুতে কোনো প্রতিক্রিয়া জানাতে দেখা যায়নি। অন্যদিকে রাজনৈতিক ইস্যু, রাজনৈতিক ঐক্যতে প্রতিক্রিয়া দরকার বলে মনে করে নাগরিকঐক্য। রাজনৈতিক দলের কাছে যখন মানবতা পদদলিত হয়, তখন মানবিক ইস্যুতে রাজনৈতিক ঐক্যবদ্ধতার মাধ্যমে এর সমাধান আসবে বলে দাবি তাদের। একই সূরে কথা বলেছেন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদের (ডাকসু) সহ-সভাপতি (ভিপি) নূরুল হকও। কোটা আন্দোলন, নিরাপদ সড়ক আন্দোলনে শিক্ষার্থীরা যেভাবে ঐক্যবদ্ধ ছিলো, ঠিক সেভাবে আবরার হত্যাকারীদের বিচার নিশ্চিত হওয়া পর্যন্ত সকল ছাত্রসংগঠনকে ঐক্যবদ্ধভাবে রাজপথে থেকে বৃহৎ ছাত্রঐক্য গড়ে তোলার আহ্বান জানান তিনি। এদিকে আবরার হত্যার ছয়দিন পর এ হত্যাকা-ের সঙ্গে জড়িতদের বিচারের দাবি জানিয়েছে আওয়ামী লীগের নেতৃত্বাধীন ১৪ দলীয় জোট।
আওয়ামী লীগের সভাপতিম-লীর সদস্য ও ১৪ দলের মুখপাত্র মোহাম্মদ নাসিম বলেছেন, ‘দ্রুতবিচার আইনের আওতায় এনে দ্রুতবিচার ট্রাইব্যুনাল গঠন করে ফাহাদ হত্যার বিচার করতে হবে।’ এছাড়াও আবরার ইস্যুতে ড. কামাল হোসেনের রাজনৈতিক দল গণফোরাম গণমাধ্যমে সংবাদ বিজ্ঞপ্তি পাঠিয়ে দায় সেরেছে। আর বামপন্থি রাজনৈতিক দল সিপিবি সংবাদ সম্মেলন করে বুয়েটে ছাত্র রাজনীতি উন্মুক্ত করার দাবি জানায়। মানবিকতায় সবার প্রতিবাদের ভাষা এক হলে আলাদা কোনো ঐক্যর দরকার নেই বলে দাবি করে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য আমির খসরু মাহমুদ চৌধুরী বলেছেন, যার যার অবস্থান থেকে সবাই প্রতিবাদ করছে। সবার দাবিই এক। তাই কোনো ঐক্যের প্রয়োজন নেই। আলাদা প্ল্যাটফর্ম প্রয়োজন পড়ে না। আবরার ইস্যু বলি কিংবা নুসরাত ইস্যু বলি, সবাই তো সবার মতো প্রতিবাদ করে। মানবিক ইস্যু বলে সবার আবেগ এক হয়ে যায়, তাই সবাই কথা বলে। রাজনৈতিক হত্যাকা-ের প্রতিবাদ রাজনৈতিকভাবে হওয়া উচিৎ কি-না, জানতে চাইলে তিনি বলেন, রাজনৈতিক নেতারা তো কথা বলছেন।
জামায়াতে ইসলামীর কেন্দ্রীয় কর্মপরিষদ সদস্য এবং ইসলামি ছাত্রশিবিরের সাবেক কেন্দ্রীয় সভাপতি মতিউর রহমান আকন্দ এ বিষয়ে বলেছেন, সামগ্রিকভাবে আবরার ইস্যুতে দল-মতের ঊর্ধ্বে প্রতিবাদ প্রয়োজন। এমন ইস্যুতে পৃথক প্রতিবাদ না করে রাজনৈতিক দলের ঐক্যবদ্ধতা প্রয়োজন। দেশে কোনো একটা ঘটনা ঘটলেই এটিকে রাজনৈতিক ইস্যু বানানো হয়। দিন শেষে বিচারের আশা শেষ হয়ে যায়। মানবতা ও মানবিকতার বিপর্যয় ঘটে। তাই আমি বলবো— এমন ইস্যুতে পৃথক জোটে প্রতিবাদ না করে সবাই এক সঙ্গে দাবি তুলে মানবিকতার জয় সুনিশ্চিত করা।
রাজনৈতিক ইস্যুতে রাজনৈতিক ঐক্যের মাধ্যমে প্রতিক্রিয়া দরকার বললেন নাগরিকঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না। এ বিষয়ে গতকাল তিনি বলেন, আবরার ফাহাদ ইস্যুতে রাজনৈতিক ঐক্য হচ্ছে। ঐক্যফ্রন্ট এ নিয়ে যৌথভাবে রাজপথে প্রতিক্রিয়া জানানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে। রাজনৈতিক দলের কাছে যখন মানবতা পদদলিত হয়, তখন মানবিক ইস্যুতে রাজনৈতিক ঐক্যবদ্ধতা প্রয়োজন। রাজনৈতিকভাবে প্রতিক্রিয়া দরকার।
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদের (ডাকসু) সহসভাপতি (ভিপি) নূরুল হক বলেছেন, আবরার হত্যার বিচার নিশ্চিত হওয়া পর্যন্ত বৃহৎ ছাত্রঐক্য প্রয়োজন। আমরা অতীতে দেখেছি, আবরার হত্যার মতো এমন অনেক ঘটনাই একটা ছাত্র সংগঠনের হাতে জন্ম নিতে। এমন ঘটনার পর উপরের মহল থেকে একটা আশ্বাস আসে, কিন্তু এরপর তার কোনো ফলাফল আসে না। এর আগে কোটা আন্দোলন, নিরাপদ সড়ক আন্দোলনে শিক্ষার্থীরা যেভাবে ঐক্যবদ্ধ ছিলো, ঠিক সেভাবে আবরার হত্যাকারীদের বিচার নিশ্চিত হওয়া পর্যন্ত সকল ছাত্রসংগঠনকে ঐক্যবদ্ধভাবে রাজপথে থেকে বৃহৎ ছাত্রঐক্য গড়ে তোলার আহ্বান জানান তিনি।