মহেশপুরে বিএসএফের গুলিতে বাংলাদেশি নিহত

14

ঝিনাইদহ অফিস:
চার দিনের ব্যবধানে ঝিনাইদহের মহেশপুর সীমান্তে ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনী বিএসএফের গুলিতে আরও এক বাংলাদেশি নিহত হয়েছেন। নিহত সুমন (২৫) মহেশপুর উপজেলার শ্যামকুড় গ্রামের আব্দুল মান্নানের ছেলে। গতকাল শুক্রবার ভোরে ভারতের নদীয়া জেলার হাসখালী থানার শিলগেইট নামক স্থানে সুমন বিএসএফের গুলিতে নিহত হন। শুক্রবার দুপুরে ঝিনাইদহের খালিশপুর-৫৮ বিজিবির অতিরিক্ত পরিচালক কামরুল হাসান গণমাধ্যমে প্রেরিত এক ই-মেইল বার্তায় এ খবর নিশ্চিত করেন।
ই-মেইল বার্তায় নিহত সুমনকে গরু চোর হিসেবে আখ্যা দিয়ে বিজিবির প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে উল্লেখ করা হয়, খালিশপুর ব্যাটালিয়নের (৫৮ বিজিবি) অধীনস্ত লড়াইঘাট বিওপির বিপরীতে প্রতিপক্ষ ৮ ব্যাটালিয়ন বিএসএফের পাখিউড়া ক্যাম্পের দায়িত্বপূর্ণ এলাকায় মেইন পিলার ৬০/১৩৩-১৩৪-আর পিলার থেকে আনুমানিক ৩০০ গজ ভারতের অভ্যন্তরে শিলগেইট নামক স্থানে বিএসএফ কর্তৃক ১ রাউন্ড ফায়ার করে। স্থানীয় এলাকাবাসীর ভারতীয় আত্মীয় সূত্রে জানায়, গুলিতে একজন বাংলাদেশি গরু চোরাকারবারি নিহত হন। তাঁর নাম সুমন। নিহত বাংলাদেশি নাগরিকের লাশ পাখিউড়া বিএসএফ ক্যাম্প এবং হাসখালী থানা পুলিশের হেফাজতে রয়েছে বলে বিজিবি জানায়।
উল্লেখ্য, ৩ নভেম্বর মহেশপুর সীমান্তের পলিয়ানপুরের বিপরীতে বিএসএফের গুলিতে আব্দুর রহিম (৫০) নামের এক গরুর রাখাল নিহত হন। তিনি মহেশপুর উপজেলার সেজিয়া ইউনিয়নের বাউলিয়া গ্রামের আবুল কাসেমের ছেলে। ঘটনার দিন ভারতের হাবাশপুর এলাকার ৬০ নম্বর মেইন পিলারের পাশে তাঁকে গুলি করে হত্যা করে বিএসএফ। ঘটনার চার দিনের মাথায় আবারো বিএসএফ সুমন নামের এক বাংলাদেশিকে হত্যা করল।