ভাইস চেয়ারম্যান গরীব রুহানী মাসুমকে বয়কট!

71

চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলা পরিষদের মাসিক সভা অনুষ্ঠিত : পাঁচ ইউপি চেয়ারম্যানের যৌথ সিদ্ধান্তে

কুরুচিপূর্ণ ও আক্রমণাত্মক কথাবার্তা বলায় সবাই তাঁর ওপর ক্ষুব্ধ -উপজেলা চেয়ারম্যান
নিজস্ব প্রতিবেদক:
অসদাচরণ, অশালীন মন্তব্য ও আক্রমণাত্মক বক্তব্য দেওয়াকে কেন্দ্র করে চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলা পরিষদের মাসিক সভায় ভাইস চেয়ারম্যান মাসুদুর রহমানের (গরীব রুহানী মাসুম) বক্তব্য বয়কট করেছেন পাঁচ ইউপি চেয়ারম্যানসহ উপজেলার বিভিন্ন কর্মকর্তারা। গতকাল বৃহস্পতিবার সকাল ১০টায় উপজেলা পরিষদের মাসিক সভায় এ ঘটনা ঘটে। বয়কট করা পাঁচ ইউপি চেয়ারম্যান হলেন পদ্মবিলা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আবু তাহের বিশ্বাস, বেগমপুর ইউপি চেয়ারম্যান আলী হোসেন, কুতুবপুর ইউপি চেয়ারম্যান আলী আহম্মেদ হাসানুজ্জামান, আলুকদিয়া ইউপি চেয়ারম্যান ইসলাম উদ্দিন বিশ্বাস ও শংকরচন্দ্র ইউপি চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুর রহমান।
ইউপি চেয়ারম্যানরা বলেন, ‘সদর উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান গরীব রুহানী মাসুম প্রায়ই সবার সঙ্গে অশালীন মন্তব্য ও অসদাচরণ করেন। এতে আমরা রীতিমতো অপমানিতবোধ করি। কয়েক দিন আগে নবাগত জেলা প্রশাসকের সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে ভাইস চেয়ারম্যান গরীব রুহানী মাসুম অশালীন মন্তব্য করেন। ওই অনুষ্ঠানে তিনি বলেন, আমাদের সবার গায়ে দাদ, মলম লাগাবেন কোথায়? এ ছাড়াও তিনি বিভিন্ন সময় কুরুচিপূর্ণ কথাবার্তা বলেন। তাই আমরা উপজেলার মাসিক সভায় তাঁর বক্তব্য বয়কট করেছি।’
এ বিষয়ে উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান শাহজাদী মিলি বলেন, ‘মাসিক সভায় ভাইস চেয়ারম্যান গরীব রুহানী মাসুম বক্তব্য দেওয়ার সময় উপস্থিত ইউপি চেয়ারম্যানরা তাঁর বক্তব্য বয়কট করেন। তাঁরা চলে গেলে উপজেলার সব কর্মকর্তারাও সভা ছেড়ে বাইরে চলে যান। শুধুমাত্র উপজেলা চেয়ারম্যান আসাদুল হক বিশ্বাস, নির্বাহী কর্মকর্তা ওয়াশীমুল বারী ও আমি সভায় উপস্থিত ছিলাম। পরে বক্তব্য শেষ হলে তাঁরা আবার সভায় ফিরে আসেন।’
শাহজাদী মিলি আরও জানান, ভাইস চেয়ারম্যান গরীব রুহানী মাসুম প্রায় সবার সঙ্গে অসংলগ্ন কথাবার্তা বলেন ঠিকই, কিন্তু দুর্নীতির বিরুদ্ধে তিনি প্রতিবাদ করেন, এ কথাও সত্য।
চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আসাদুল হক বিশ্বাস বলেন, ভাইস চেয়ারম্যান গরীব রুহানী মাসুম সবার সঙ্গে অসদাচরণ, কুরুচিপূর্ণ ও আক্রমণাত্মক কথাবার্তা বলেন, যার জন্য সবাই তাঁর ওপর ক্ষুব্ধ।
এ বিষয়ে জানতে চাইলে সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) ওয়াশীমুল বারী মাসিক সভায় ভাইস চেয়ারম্যানের বক্তব্য বয়কট করার ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, ‘চেয়ারম্যানদের কাছ থেকে শুনেছি, ভাইস চেয়ারম্যান অশালীন মন্তব্য ও আন-অফিসিয়াল কথাবার্তা বলেন। উপজেলার মাসিক সভায় ভাইস চেয়ারম্যান বক্তব্য দেওয়ার সময় উপস্থিত ইউপি চেয়ারম্যানরা বক্তব্য বয়কট করেছেন। পরিষদের ভোটিং পাওয়ার চেয়ারম্যানদের হওয়ায় আমাদের অফিসাররাও সভা ছেড়ে চলে যান। পরে ভাইস চেয়ারম্যানের বক্তব্য শেষ হলে ফিরে আসেন।’
এ বিষয়ে ভাইস চেয়ারম্যান মাসুদুর রহমান বলেন, ‘সর্বদা সত্যের পথে চলি। সত্যের পথে চললে বাধা আসবেই।’