বিশ্বজিৎ হত্যার পূর্ণাঙ্গ রায়

226

ছাত্র রাজনীতির ভবিষ্যৎ রূপরেখা নির্মাণে সহায়ক হবে
বহুল আলোচিত বিশ্বজিৎ হত্যা মামলায় হাইকোর্টের দেয়া পূর্ণাঙ্গ রায় প্রকাশিত হয়েছে। দীর্ঘ ৮০ পৃষ্ঠার এ রায়ে ছাত্র রাজনীতি সংশ্লিষ্ট যেসব পর্যবেক্ষণ রয়েছে, তা এককথায় বস্তবসম্মত তো বটেই, ছাত্র রাজনীতির ভবিষ্যৎ রূপরেখা নির্মাণেও সহায়ক হবে। পর্যবেক্ষণগুলো পাঠ করলে দেখা যায়, উচ্চ আদালত সম্পূর্ণ নিরপেক্ষ অবস্থান থেকেই পরিস্থিতির বিশ্লেষণ করেছেন এবং তা থেকে উত্তরণের কার্যনির্দেশ দিয়েছেন। পর্যবেক্ষণে বলা হয়েছে, এদেশের ছাত্র রাজনীতির একটি গৌরবোজ্জ্বল ইতিহাস রয়েছে, রয়েছে কৃতিত্বপূর্ণ সংগ্রামের ঐতিহ্য। সেই ইতিহাস ফিরিয়ে আনার প্রত্যাশা ব্যক্ত করেছেন আদালত। ক্ষমতাসীন ও বিরোধীদলীয় রাজনৈতিক নেতৃত্ব ভবিষ্যৎ ছাত্র রাজনীতির জন্য নীতি নির্ধারণ করবেন। ছাত্র রাজনীতির খারাপ দিকগুলোর কথা উল্লেখ করে বলা হয়েছে, কোনো কোনো সময় নিজ নিজ এলাকায় নিরঙ্কুশ প্রভাব বিস্তারের জন্য ন্যক্কারজনকভাবে ক্ষমতা ও পেশিশক্তি প্রদর্শন করা হচ্ছে, পরীক্ষায় নকল করতে না দেয়ায় পেটানো হয়েছে, শিক্ষাঙ্গনের আবাসিক ভবনের প্রশাসনিক ক্ষমতা নিজের হাতে তুলে নেয়া হয়েছে, সাধারণ ছাত্রদের কাছে ভাড়ার ভিত্তিতে সিট বণ্টন করা হয়েছে, এমনকি তাদের মিটিং-মিছিলে যেতে বাধ্য করা হয়েছে। আদালত আরও বলেছেন, আমরা যে সমাজে বাস করছি সেখানে টাকাওয়ালা ও ক্ষমতাসীনরা কিছু কিছু ক্ষেত্রে দায়মুক্তি পাচ্ছে এবং ক্ষমতার প্রভাব খাটিয়ে খুব সহজেই তদন্ত প্রক্রিয়া থেকে বের হয়ে যাচ্ছে। ন্যায়বিচার প্রতিষ্ঠায় বিচার বিভাগ যদি ভূমিকা না রাখে, নিরপরাধ জনসাধারণকে নিরাপত্তা না দেয়, তাহলে আইনের শাসন ভেঙে পড়বে বলেও আদালত মন্তব্য করেছেন। বিশ্বজিৎ হত্যা মামলার পূর্ণাঙ্গ রায়ে আমরা বিদ্যমান ছাত্র রাজনীতির একটা বাস্তব চিত্র দেখতে পাই এবং একইসঙ্গে তদন্ত ও বিচার প্রক্রিয়ার দুর্বলতাও টের পাই। আমরা মনে করি, সরকারি ও বিরোধীদলীয় উভয় নেতৃত্বই রায়টি গভীর মনোযোগ সহকারে পাঠ করবেন এবং বাস্তব সত্য উপলব্ধিতে সচেষ্ট হবেন। ছাত্র রাজনীতির নামে যা চলছে এখন, তা মোটেও সুখকর নয়। আদালত ঠিকই বলেছেন, এই রাজনীতি একসময়, বিশেষত স্বাধীনতা-পূর্বকালে বাঙালির স্বাধীনতা ও গণতান্ত্রিক আন্দোলনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছিল। সেই গৌরব এখন ম্লান হওয়ার পথে। ছাত্র রাজনীতির হাতে গৌরব ফিরিয়ে আনতে হলে উচ্চ আদালতের আলোচ্য রায়টিকে হৃদয়ঙ্গম করে সেভাবেই এগোতে হবে।