বিভিন্ন প্রজাতির মাছ নিধন, লক্ষাধিক টাকার ক্ষতি

39

আলমডাঙ্গার পাঁচকমলাপুরে অর্ন্তদ্বন্দ্বের জের ধরে পুকুরে বিষ প্রয়োগ
বিশেষ প্রতিবেদক:
আলমডাঙ্গার পাঁচকমলাপুরে একটি পুকুরে বিষ প্রয়োগ করেছে দুর্বৃত্তরা। এ ঘটনায় প্রায় লক্ষাধিক টাকার বিভিন্ন প্রজাতির মাছ মারা গেছে। গত শনিবার রাতে পুকুরে বিষ প্রয়োগ করলে গত রোববার সকাল থেকে মাছ মরে ভেসে উঠতে থাকে।
এলাকাবাসী জানান, উপজেলার খাদিমপুর ইউনিয়নের পাঁচকমলাপুর দক্ষিণপাড়া গ্রামের মৃত গোলাম রসুলের ছেলে সাজ্জাদ হোসেন, সেলিম হোসেন, ভাতিজা সেণ্টু মিয়াসহ তাঁদের পরিবারের লোকজন ১০-১২ বছর যাবত বাড়ির পার্শ্ববর্তী ৫ বিঘা জায়গাজুড়ে একটি পুকুরে মাছ চাষ করে আসছেন। যেখানে প্রায় ৫ লাখ টাকা ব্যয়ে রুই, কাতলা, তেলাপিয়া, সিলভার কার্প, গ্লাসকার্প, মৃগেল, বাটাসহ বিভিন্ন প্রজাতির মাছের চাষাবাদ করা হয়। মাস দুয়েক আগে বিভিন্ন প্রজাতির ১০ মণ ও এ ঘটনার এক সপ্তাহ আগে আরও ১০ মণ মাছ ছাড়া হয়। নিবিড় পরিচর্যায় খুব অল্প সময়ে বেশ বড় হয়ে উঠেছিল মাছগুলো। গত শনিবার রাতে কে বা কারা পুকুরটিতে বিষ প্রয়োগ করে। সকালে সব মাছ মরে ভেসে ওঠে। এতে প্রায় লক্ষাধিক টাকার ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে।
পুকুর মালিক সাজ্জাদ হোসেন বলেন, ‘এই পুকুরে আমরা অনেকদিন ধরে মাছ চাষ করি। কোনোদিন কোনো সমস্যা হয়নি। রোববার সকাল থেকে পুকুরের সব মাছ মরে ভেসে উঠতে থাকে। পুকুরে গিয়ে মরা মাছ তুলে দেখি, তার শরীরে বিষের গন্ধ। পুকুরের পাশ থেকে বিষের খালি বোতল (সোপান ৫৫ ইসি) আর বিষ মাখানো চাল পেয়েছি। কিন্তু কে বা কারা এমন কাজ করেছে বুঝতে পারছি না।’ তবে অর্ন্তদ্বন্দ্বের কারণে একটি চক্র এমন কাজ করতে পারে বলে ধারণা করছেন তিনি। খবর পেয়ে আলমডাঙ্গা থানার সহকারী উপপরিদর্শক (এএসআই) সাইদুর রহমান ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেন। তবে এর সঙ্গে জড়িত কাউকে আটক করা সম্ভব হয়নি।
এ প্রসঙ্গে আলমডাঙ্গা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সৈয়দ আশিকুর রহমান বলেন, ‘পুকুরে মাছ মারা যাওয়ার সংবাদ পেয়ে পাঁচকমলাপুর ক্যাম্প ইনচার্জ ও থানার একজন অফিসার ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। প্রাথমিকভাবে বিষ প্রয়োগ ও পানির সমস্যা, দুটি বিষয় নজরে এসেছে। এখনি নির্দিষ্ট করে কিছু বলা যাচ্ছে না। মৌখিক অভিযোগ পেয়েছি, তদন্ত চলছে।’