বিনম্র শ্রদ্ধায় আত্মবলিদানের মহিমায় ভাস্বর চির প্রেরণার অমর একুশ উদ্যাপন

292

দিনব্যাপি শহীদ মিনারে পুষ্পস্তবক অর্পণ প্রভাত ফেরি আলোচনা সভা সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান
রুখে দাড়াতে হবে আমাদের; বাংলা ভাষা আর বাঙালীর সত্তা মুছে ফেলতে ষড়যন্ত্র থেমে নেই
সমীকরণ প্রতিবেদন:
‘অপমানে তুমি জ্বলে উঠেছিলে সেদিন বর্ণমালা/সেই থেকে শুরু/সেই থেকে শুরু দিনবদলের পালা’। প্রকৃত অর্থেই বাঙালি জাতির দিনবদলের পালা শুরু হয়েছিল যেদিন, সেদিন অমর একুশ। আত্মবলিদানের মহিমায় ভাস্বর চির প্রেরণার এই দিবসটি যথাযথ মর্যাদা, বিন¤্র শ্রদ্ধা আর ভালোবাসায় উৎযাপন করেছে বাঙালী জাতি। ভাষা শহীদের প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে একুশের প্রথম প্রহরেই মানুষের ঢল নেমেছিল শহীদ মিনারে। ফুলে ফুলে ভরে ওঠে বাঙালির শোক আর অহঙ্কারের এই মিনার। এদিকে অমর একুশে উপলক্ষে সারা দেশে বিন¤্র শ্রদ্ধায় পালিত হয়েছে নানা কর্মসূচি। কর্মসূচির মধ্যে ছিল শহীদ মিনারে পুষ্পস্তবক অর্পণ, প্রভাত ফেরি, আলোচনা সভা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান।

চুয়াডাঙ্গা:
সারাদেশের ন্যায় চুয়াডাঙ্গায় যথাযথ মর্যাদায় নানা কর্মসূচির মধ্য দিয়ে একুশে ফেব্রুয়ারি মহান ভাষা শহীদ ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালিত হয়েছে। এই উপলক্ষে আয়োজিত কর্মসূচির মধ্যে ছিলো বুধবার রাত ১২টা ১মিনিটে চুয়াডাঙ্গা সরকারি কলেজের কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে শ্রদ্ধাঞ্জলী অর্পণ, জাতীয় পতাকা (অর্ধনমিত) উত্তোলন, প্রভাত ফেরি, কবিতা আবৃত্তি ও সাংস্কৃতি অনুষ্ঠান, হামদ-নাত, সংগীত, চিত্রাংকন, সুন্দর হাতের লেখা ও রচনা প্রতিযোগিতা, শহীদদের রুহের মাগফেরাত কামনা করে বিশেষ মোনাজাত ও প্রার্থনা, আলোচনা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান ইত্যাদি। চুয়াডাঙ্গা সিভিল ও পুলিশ প্রশাসন, আওয়ামী লীগ, বিএনপিসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক দল, মুক্তিযোদ্ধা সংসদ ও বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের পক্ষ থেকে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে পুস্পস্তবক অর্পণ করা হয়। রাত ১২টা ১ মিনিটে চুয়াডাঙ্গা-১ আসনের সাংসদ বীর মুক্তিযোদ্ধা সোলায়মান হক জোয়ার্দ্দার ছেলুন শহীদ বেদিতে পুষ্পার্ঘ্য অর্পণের মধ্যে দিয়ে কর্মসূচীর উদ্বোধন করেন। রাতে ঘন্টাব্যাপী শ্রদ্ধাঞ্জলী নিবেদন শেষে সকাল ৬টা ৪৫ মিনিট থেকে বিভিন্ন সরকারি/বেসরকারি দপ্তর, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, রাজনৈতিক দলের নেতৃবৃন্দ প্রভাতফেরি সহকারে শহীদ মিনারে পুষ্পার্ঘ্য অর্পণ করেন। প্রভাতফেরি ও শ্রদ্ধাঞ্জলী নিবেদন শেষে সকাল ৯টায় চুয়াডাঙ্গা সরকারি কলেজে কবিতা আবৃত্তি ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। ইসলামিক ফাইন্ডেশন, চুয়াডাঙ্গা’র আয়োজনে হামদ-নাত ও রচনা প্রতিযোগিতায় অংশ নেয় বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা। এ ছাড়া শিশুদের কবিতা আবৃত্তি, সংগীত, চিত্রাংকন ও সুন্দর হাতের লেখা প্রতিযোগিতারও আয়োজন কওে জেলা শিশু একাডেমি। বাদ যোহর জেলার সকল মসজিদ ও ধর্মীয় উপাসনালয়ে শহীদদের রুহের মাগফেরাত কামনা করে বিশেষ মোনাজাত ও প্রার্থনা করা হয়। শহীদ দিবস উপলক্ষে চুয়াডাঙ্গা জেলা শিল্পকলা একাডেমির মুক্ত মঞ্চে আলোচনাসভা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।
আলোচনা সভা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান:


চুয়াডাঙ্গা জেলা প্রশাসনের আয়োজনে বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা ৭টায় জেলা শিল্পকলা একাডেমির মুক্ত মঞ্চে আলোচনা সভা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। জেলা প্রশাসক গোপাল চন্দ্র দাসের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন চুয়াডাঙ্গা-১ আসনের সংসদ সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা সোলায়মান হক জোয়ার্দ্দার ছেলুন। তিনি বলেন, ‘মাতৃভাষার মর্যাদা রক্ষার সংগ্রামে বায়ান্নর রক্তঝরা এ দিনটি মূলত বাঙালির স্বাধিকারের চেতনায় জেগে ওঠার দিন। এদিনে দেশের মানুষ একটি দন্ডে একাট্টা হয়েছিলো। বাঙালীর যা কিছু অর্জন তার কোন কিছুই রক্ত ছাড়া হয়নি। এই অর্জন সবসময়ই ইতিহাসের অংশ। কিন্তু আমরা এখন বাংলার সঙ্গে ইংরেজি মিশিয়ে ফেলেছি, হয়ে গেছি দুই নাম্বার সিটিজেন। কারণ আমরা শুদ্ধ বাংলা উচ্চারণ বাদ দিয়ে বিভিন্ন ভাষা মিশিয়ে কথা বলি।’
তিনি আরও বলেন, ‘এই ভাষা রাষ্ট্র ভাষা হিসেবে প্রতিষ্ঠার জন্য আমার ভাইদের রক্ত মাটিতে মিশেছে, মা-বোনেদের সম্ভ্রম হানি হয়েছে। অনেক ত্যাগ স্বীকার করে আমরা এই ভাষা পেয়েছি। বঙ্গবন্ধুকে স্বপরিবারে হত্যার মাধ্যমে যে স্বাধীনতা বিরোধী শক্তি মাথা চাড়া দিয়ে উঠেছিল তা আবারও সক্রিয় হতে শুরু করেছে। রুখে দাড়াতে হবে আমাদের। কারণ বাংলা ভাষা আর বাঙালীর সত্তা মুছে ফেলতে ষড়যন্ত্র থেমে নেই।’
চুয়াডাঙ্গা সরকারি কলেজের সহকারী অধ্যাপক মুন্সী আবু সাঈফের সঞ্চালনায় বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আহসান হাবীব, চুয়াডাঙ্গা সরকারি কলেজের সাবেক অধ্যক্ষ প্রফেসর সিদ্দিকুর রহমান, চুয়াডাঙ্গা আদর্শ সরকারি মহিলা কলেজের সাবেক অধ্যক্ষ প্রফেসর এস এম ই¯্রাফিল, বর্তমান অধ্যক্ষ প্রফেসর আজিজুর রহমান। আলোচনা সভা শেষে জেলা শিল্পকলা একাডেমির শিল্পীদের পরিবেশনায় সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান করা হয়। এরআগে জেলা প্রশাসনসহ বিভিন্ন সরকারি দপ্তরের গেজেটেড কর্মকর্তাদের পরিবেশনায় নাটিকা ‘ফিরে দেখা একুশ’ মঞ্চস্থ হয়। নাটিকাটির প্রথম ও একমাত্র প্রযোজনা অধিকর্তা এবং পরিকল্পনায় ছিলেন জেলা প্রশাসক গোপাল চন্দ্র দাস। সরকারি শিশু পরিবারের তত্ত্বাবধায়ক রুমানা মিরা রচিত নাটিকাটি পরিচালনা ও নির্দেশনা দিয়েছেন সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার ওয়াশীমুল বারী। এতে বিভিন্ন চরিত্রে অভিনয় করেন সহকারী কমিশনার ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সুচিত্র রঞ্জন দাস, পাপিয়া আক্তার, সিব্বির আহমেদ (এনডিসি), হাসিনা মমতাজ, আমজাদ হোসেন, খায়রুল ইসলাম, শিবানী সরকার, এনএসআই’র সহকারী পরিচালক তপু ভৌমিক, জেলা পাসপোর্ট অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালক রুবাইয়াত ফেরদৌস, জেলা ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালক সজল আহমেদ, জেলা প্রতিবন্ধী বিষয়ক কর্মকর্তা খায়রুল ইসলাম প্রমুখ।
প্রতিযোগিতা ও পুরষ্কার বিতরণ অনুষ্ঠান:
মহান শহীদ দিবস ও আন্তজার্তিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে ইসলামিক ফাউন্ডেশন চুয়াডাঙ্গা জেলা শাখার আয়োজনে হামদ নাত ও রচনা প্রতিযোগিতা এবং বাংলাদেশ শিশু একাডেমি চুয়াডাঙ্গা জেলা শাখার আয়োজনে চিত্রাংকন, কবিতা আবৃত্তি ও সঙ্গীত প্রতিযোগীতা অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল বৃহস্পতিবার সকাল ১০টায় পৃথক পৃথক আয়োজনে চুয়াডাঙ্গা সরকারি কলেজ মঞ্চে এ প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়। প্রতিযোগিতা শেষে এক আলোচনা সভা ও পুরষ্কার বিতরণী অনুষ্ঠানের মধ্যে দিয়ে ইসলামিক ফাউন্ডেশন ও শিশু একাডেমির আয়োজনে অনুষ্ঠিতব্য এসব প্রতিযোগিতার পুরষ্কার বিতরণ করা হয়। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন চুয়াডাঙ্গা সরকারি কলেজের বাংলা বিভাগের বিভাগীয় প্রধান সহযোগী অধ্যাপক ড. আব্দুল আজিজ। চুয়াডাঙ্গা খেলাঘর সংগঠক বিশিষ্ট উপস্থাপক নুঝাত পারভীনের সঞ্চালনায় বিশেষ অতিথি ছিলেন চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার ওয়াশীমুল বারী, সরকারি কলেজের বাংলা বিভাগের সহকারি অধ্যাপক জাহিদুল হাসান, ইসলামিক ফাউন্ডেশন চুয়াডাঙ্গা জেলা শাখার উপ-পরিচালক এ বি এম রবিউল ইসলাম, জেলা শিশু বিষয়ক কর্মকর্তা আফসানা ফেরদৌসি, চুয়াডাঙ্গা সরকারি কলেজের রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের প্রভাষক মৌসুমি হোসেন, দর্শনা সরকারি কলেজের প্রভাষক জাহাঙ্গীর আলম প্রমুখ।
প্রেস রিলিজ:
ভিকুইন্স পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটের উদ্যোগে শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উদযাপিত হয়েছে। গতকাল বৃহস্পতিবার ইনস্টিটিউট মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত আলোচনা ও দোয়া অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন প্রতিষ্ঠানের অধ্যক্ষ হামিদুল হক মুন্সী। উপস্থিত ছিলেন ইন্সটিটিউটের পরিচালক জহুরুল ইসলাম জীম। অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন ইনস্টিটিউটের শিক্ষক মোস্তাফিজুর রহমান, শরিফুজজামান চৌধুরী, তহিদুল ইসলাম, মাসুদ রানা প্রমুখ। আলোচনাসভা ও দোয়া অনুষ্ঠানে দোয়া অনুষ্ঠানে ইনস্টিটিউটের শিক্ষক, কর্মকর্তা-কর্মচারীসহ শিক্ষার্থীরা উপস্থিত ছিলেন।
সরোজগঞ্জ:
বাংলা ভাষাভাষীদের গৌরব ও ত্যাগের দিন মহান একুশে ফেব্রুয়ারি উপলক্ষে চুুয়াডাঙ্গা সদরের সরোজগঞ্জের বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান র‌্যালি, আলোচনা সভা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান সম্পন্ন হয়েছে। গতকাল বৃহস্পতিবার সকালে সরোজগঞ্জের তেঁতুল শেখ কলেজ, সরোজগঞ্জ উচ্চ বিদ্যালয়, ছাদেমান নেছা মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়, আবুল হোসেন দাখিল মাদ্রাসাসহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের পক্ষ হতে মহান একুশে দিবসের র‌্যালি বের করা হয়। এদিকে ডিঙ্গেদহ মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়ে দিবসটি উপলক্ষে র‌্যালি ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। প্রধান শিক্ষক শরীফ উদ্দীনের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি ছিলেন শংকরচন্দ্র ইউনিয়নের চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুর রহমান। বিশেষ অতিথি ছিলেন শংকরচন্দ্র ইউপি সচিব ফয়জুর রহমান, ইউপি মেম্বার শওকত মহাম্মদ, সাংবাদিক ইলিয়াছ, কমিটির সদস্য সাইফদ্দিন, ডাঃ হান্নান, মাসুদ, তাজউদ্দিন, আব্দুস সাত্তারসহ শিক্ষক শিক্ষিকাবৃন্দ। এ ছাড়াও ডিঙ্গেদহ হাই স্কুল, উদিচী ডিঙ্গেদহ শাখা, মনিরা কিন্ডার গার্ডেন পৃথক আয়োজন করে। এ ছাড়াও সরোজগঞ্জ সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়, সরোজগঞ্জ বেবী নার্সিং স্কুল, সরোজগঞ্জ শিশু নিকেতন, সরোজগঞ্জ সোনামণি কিন্ডারগার্টেন, সরোজগঞ্জ আন নূর ইসলামী একাডেমি স্কুল, নবীন নগর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়, বোয়ালিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, হাসানহাটি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, মহম্মদজমা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়, ভুলটিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, বহালগাছি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, সুবদিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, বালিয়াকান্দি সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়সহ বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে মহান একুশে দিবসের র‌্যালি বের করা হয়।
বদরগঞ্জ:
চুয়াডাঙ্গার সদর উপজেলার বদরগঞ্জের আলিয়ারপুর আজিজ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের শহীদ মিনারে শহীদদের স্মরণে পুষ্পার্ঘ্য অর্পণ করা হয়। পরে বিদ্যালয় প্রাঙ্গনে আলোচনা ও দোয়ার অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সভাপতি আব্দুল মোতালেবের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি ছিলেন কুতুবপুর ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান হাজী শাখাওয়াত হোসেন টাইগার। বিশেষ অতিথি ছিলেন কুতুবপুর ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান নজরুল ইসলাম, ম্যানিজিং কমিটির সদস্যবৃন্দ, ছাত্র/ছাত্রীদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন দশম শ্রেণী মাসুদ রানা ও সপ্তম শ্রেণীর ছাত্রী তামান্না। অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন সাইফুল ইসলাম স্বপন। এদিকে, বদরগঞ্জ বাকি বিল্লাহ কামিল মাদরাসার উদ্যোগে প্রভাত ফেরি, আলোচনা সভা ও দোয়ার আয়োজন করা হয়। বদরগঞ্জ ডিগ্রি কলেজের পরিচালনা কমিটির সভাপতি এ্যাড. বেলাল হোসেনের সভাপতিত্বে গতকাল সাড়ে ৮ টার দিকে পুষ্পার্ঘ্য অর্পণ, র‌্যালি, আলোচনা ও দোয়ার আয়োজন করা হয়। আলিয়ারপুর সরকারী প্রথমিক বিদ্যালয়ের সভাপতি রমজান আলীর সভাপতিত্বে প্রথম প্রহরে শহীদ বেদিতে পুষ্পার্ঘ্য অর্পণ, র‌্যালি, আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়। এ সময় উপস্থিত ছিলেন সহকারী শিক্ষিকা মালবিতা, রুমিনা, লায়লা, বিউটি প্রমুখ।
আলমডাঙ্গা:
২১ শে ফেব্রুয়ারী মহান শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষ্যে উপজেলা প্রশাসন বিভিন্ন রাজনৈতিক ও সামাজিক সংগঠন পৃথক পৃথক ভাবে প্রভাত ফেরি শহীদ মিনারে পুষ্পমাল্য অর্পন ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল ২১ ফেব্রুয়ারী সকাল ৮টায় উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে র‌্যালী সহকারে শহীদ মিনারে পুষ্পমাল্য অর্পন করে। এ সময় চিত্রাংকন ও কবিতা আবৃত্তি প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়। শহীদ দিবস উপলক্ষ্যে আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব করেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার রাহাত মান্নান। প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন আলমডাঙ্গা পৌর মেয়র উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি হাসান কাদির গনু। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন আলমডাঙ্গা থানা অফিসার ইনচার্জ আসাদুজ্জামান মুন্সি, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান কাজী খালেদুর রহমান অরুন, প্রভাষক জেবুন নেসা খাতুন, প্রভাষক বজলুর রশীদ, প্রভাষক তাপস রশীদ, ব্রাইট মডেল স্কুলের পরিচালক জাকারিয়া হিরো, উপজেলা কৃষি অফিসার মোহাম্মদ আলী জিন্না, উপজেলা প্রকৌশলী রফিকুর রহমান। উপজেলা সমাজসেবা অফিসার আফাজ উদ্দিনের উপস্থাপনায় অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন আলমডাঙ্গা প্রেসক্লাবের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা খন্দকার শাহ্ আলম মন্টু, সাধারণ সম্পাদক বীর মুক্তিযোদ্ধা খন্দকার হামিদুল ইসলাম আজম, আবাসিক প্রকৌশলী গোলাম নবী, উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার শামসুজ্জোহা, উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার আব্দুল বারি, উপজেলা বিআরডিবি অফিসার সায়লা শারমীন, উপজেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা উম্মে সালমা, ডাক্তার গোলাম সাইখ ফেরদৌস সজিব, উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা ফাতেমা কামরুন্নাহার আঁখি, উপজেলা যুব উন্নয়ন অফিসার আনিসুজ্জামান, সাবেক পৌর কমান্ডার বীর মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব শেখ নুর মোহাম্মদ জকু, বীর মুক্তিযোদ্ধা অগ্নিসেনা মইনদ্দিন, ভিডিবি কর্মকর্তা মিলন হোসেন, সমবায় অফিসার মৃণাল কান্তি, উপসহকারী কমিউনিটি মেডিক্যাল অফিসার মুঞ্জুরুল ইসলাম বেলু প্রমুখ। উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে আলোচনা সভা শেষে চিত্রাংকন ও কবিতা আবৃত্তি প্রতিযোগিতায় বিজয়ীদের মাঝে পুরষ্কার বিতরণ করা হয়। এছাড়াও উপজেলার কালিদাসপুর ইউনিয়নের শ্রীরামপুর জেএস মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক ও শিক্ষার্থীরা স্থানীয় শহীদ মিনারে পুষ্পমাল্য অর্পন করেন। এরপর বিদ্যালয় প্রাঙ্গণে একুশের তাৎপর্য নিয়ে এক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক রফিকুল ইসলাম। প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন কালিদাসপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি নুরুল ইসলাম নুরু। সহকারি প্রধান শিক্ষক নাসির উদ্দিনের সঞ্চালনায় বিশেষ অতিথি ছিলেন ম্যানেজিং কমিটির সদস্য মানোয়ার হোসেন, ওসমান গণি, আফিল উদ্দিন, আনিছুর রহমান, আর্জিনা খাতুন, শিক্ষক প্রতিনিধি নাসির উদ্দিন, হেলাল উদ্দীন, জান্নাতুল ফেরদৌস। এসময় আরও বক্তব্য রাখেন শিক্ষখ রফিকুল ইসলাম, সিদ্দিকুর রহমান, ইলোরা বেগম, ইউপি সদস্য কামরুল হাসান মাখন, হাসিবুল ইসলাম প্রমুখ।
এদিকে, আলমডাঙ্গা উপজেলা আওয়ামী লীগের উদ্যোগে প্রভাত ফেরি শেষে সকাল সাড়ে ৭টায় দলীয় কার্যালয়ে পতাকা উত্তোলন করা হয়। পতাকা উত্তোলন করেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি পৌর মেয়র হাসান কাদির গনু, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ইয়াকুব আলী মাষ্টার। পতাকা উত্তোলন শেষে দলীয় কার্যালয়ে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষ্যে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় সভাপতিত্ব করেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি পৌর মেয়র হাসান কাদির গনু। সাধারণ সম্পাদক ইয়াকুব আলী মাষ্টারের উপস্থাপনায় অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি প্রশান্ত অধিকারী, বন ও পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক শহিদুল ইসলাম খান, জেলা নির্বাহী কমিটির সদস্য শাহ্ আলম, পৌর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সিরাজুল ইসলাম, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আতিয়ার রহমান, আলম হোসেন, বিআরডিবির চেয়ারম্যান মহিদুল ইসলাম মহিদ, বিশিষ্ট আওয়ামী লীগ নেতা শিক্ষানুরাগী লিয়াকত আলী লিপু মোল্লা, উপজেলা বঙ্গবন্ধু পরিষদের সভাপতি আনোয়ার হোসেন মৃধা, উপজেলা আওয়ামী লীগের অন্যতম সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা আহসান মৃধা, পৌর আওয়ামী লীগের প্রচার সম্পাদক রেজাউল হক তবা, উপজেলা বাস-ট্র্রাক শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি রিয়াজ উদ্দিন, আওয়ামী লীগ নেতা আব্দুল মালেক, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান শামীম আরা, উপজেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সাহিদা খাতুন, মহিলা লীগ নেত্রী মারজাহান নিতু, শ্রমিকলীগ নেতা পরিমল কুমার কালু ঘোষ, আওয়ামী লীগ নেতা ইন্দ্রজিত দেব শর্মা, প্রধান শিক্ষক হারেজ উদ্দিন প্রমুখ।
দামুড়হুদা:
দামুড়হুদায় ভাষা শহীদদের স্মরণে প্রভাতফেরি, আলোচনা সভা, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, প্রতিযোগিতা ও বিজয়ীদের মাঝে পুরুষ্কার বিতরণ করা হয়। গতকাল বৃহস্পতিবার সকাল ৭টায় বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও সরকারি বেসরকারি বিভিন্ন সামাজিক ও পেশাজীবি সংগঠন প্রভাতফেরিতে অংশ নেয়। শেষে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে উপজেলা প্রশাসনের আয়োজনে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। এতে প্রধান অতিথি ছিলেন দামুড়হুদা উপজেলা নির্বাহী অফিসার রফিকুল হাসান। উপস্থিত ছিলেন উপজেলা শিক্ষা অফিসার সাকী সালাম, মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার আব্দুল মতিন, উপজেলা প্রকৌশলী মাহাববু-উল হক, উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা আলমগীর হোসেন, উপজেলা প্রকল্প কর্মকর্তা আশরাফ হোসেন, জনস্বাস্থ্য প্রকৌশলী আব্দুর রশিদ, সমাজসেবা অফিসার ছানোয়ার হোসেন, একাডেমিক সুপার ভাইজার রাফিজুল ইসলাম, সহকারী প্রোগামার আব্দুল কাদির, উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা সেলিম রেজা, সহকারী মৎস্য কর্মকর্তা আইয়ুব আলী, সমবায় অফিসার অশোক কুমার বিশ্বাস, উপজেলা পল্লী সঞ্চয় ব্যাংকের ম্যানেজার মাজহারুল ইসলাম, দামুড়হুদা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি হাজি সহিদুল ইসলাম, যুগ্মসম্পাদক ইমতিয়াজ হোসেন, উপজেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক হযরত আলী, দামুড়হুদা পাইলট হাইস্কুলের প্রধান শিক্ষক নজরুল ইসলাম, দামুড়হুদা পাউলট গার্লস স্কুল অ্যান্ড কলেজের অধ্যক্ষ নূরজাহান খাতুন, যুবলীগ নেতা মিরাজুল ইসলাম মিরাজ, দামুড়হুদা ডিএস দাখিল মাদরাসার সহকারী সুপার জয়নাল আবেদীন, ইউপি সদস্য মুনসুর আলী, আ.লীগ নেতা আশাদুল হক মতি, জোনাব আলী প্রমূখ। আলোচনা শেষে উপজেলা শিল্পকলা একাডেমির ওস্তাদ আসমত আলী বিশ্বাস ও আক্কাচ আলীর নেতৃত্বে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে শহীদদের উদ্দেশ্যে সংগীত পরিবেশিত হয়। শেষে বিজয়ীদের মাঝে পুরুষ্কার বিতরণ করা হয়। অনুষ্ঠানটি পরিচালনা করেন সমবায় পরিদর্শক হারুণ অর রশিদ। সার্বিক তত্তাবধানে ছিলেন নাজির ওমর ফারুক।
এদিকে, গতকাল অমর একুশে ফেব্রুয়ারী আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস জয়রামপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে যথাযোগ্য মর্যাদায় পালিত হয়েছে। এ উপলক্ষে গতকাল বৃহস্পতিবার সকাল ৮ টার দিকে জয়রামপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি হাউলী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আবু সাইদ খোকনের নেতৃত্বে প্রভাতফেরি বের হয়। প্রভাতফেরি শেষে বিদ্যালয় প্রাঙ্গণে শহীদ মিনারে পুষ্পমাল্য অর্পণ করা হয়। পরে বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ফারুক আহম্মেদের সভাপতিত্বে আলোচনাসভা অনুষ্ঠিত হয়। এতে প্রধান অতিথি ছিলেন বিদ্যালয়ের সভাপতি আবু সাইদ খোকন। উপস্থিতি ছিলেন শিক্ষক আনোয়ারুল ইসলাম, আব্দুল লতিফ, জিয়াউর রহমান, শামীমা সুলতানা, লিয়াকত আলী, বড় সহিদুল, ছোট শহিদুল, ওহিদুজ্জামান, কামরুজ্জামান, আনোয়ার হোসেন প্রমূখ। আলোচনা শেষে দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়।
দর্শনা:
দামুড়হুদায় আর্ন্তজাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে একুশের নানা কর্মসূচি পািলত হয়েছে। গতকাল বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ৬টার সময় বিভিন্ন রাজনৈতিক, সাংস্কৃতিক সংগঠন, অনির্বাণ থিয়েটার, পেশাজীবি ও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে জাতীয় ও কালো পতাকা উত্তোলন করা হয়। সকাল ৮টায় দর্শনা কেরু চিনিকল মাঠ থেকে বিভিন্ন রাজনৈতিক, সাংস্কৃতিক সংগঠন, পেশাজীবি, প্রেসক্লাব ও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ব্যানারে দর্শনা পৌরসভার উদ্যোগে প্রভাতফেরি নিয়ে দর্শনা সরকারি কলেজ কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে একে একে পুস্পর্ঘ্য অর্পন করে। এরপর শপথ বাক্য পাঠ করা হয়। শপথ পাঠ করান বর্ষিয়ান রাজনীতিবিদ কমরেড এ্যাডভোকেট শহিদুল ইসলাম। এছাড়া দামুড়হুদা উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ একুশের কর্মসূচি পালন করা হয়। একুশের সমগ্র অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন দর্শনা পৌর মেয়র মতিয়ার রহমান।
কার্পাসডাঙ্গা:
কার্পাসডাঙ্গায় যথাযোগ্য মর্যাদায় আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালন করা হয়েছে। সকালে কার্পাসডাঙ্গা ব্রীজ মোড়ে কার্পাসডাঙ্গা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগসহ অঙ্গসংঠনের নেতৃবৃন্দ বুকে কালো ব্যাজ ধারন করে জাতীয় সংগীতের মৃরে শোক পতাকা, জাতীয় ও দলীয় পতাকা উত্তোলন করে এক মিনিট নীরবতা পালনসহ শহীদদের আত্মার মাগফেরাত কামনা করে দোয়া অনুষ্ঠিত হয়। পরে একটি শোক র‌্যালি বাজারের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিন শেষে কার্পাসডাঙ্গা ডিগ্রি কলেজ মাঠে শহীদ মিনারে ভাষা শহীদদের প্রতি বিন¤্র শ্রদ্ধা জানাতে পুষ্পার্ঘ্য অর্পন করেন। কার্পাসডাঙ্গা বালিকা বিদ্যালয়, কার্পাসডাঙ্গা ডিগ্রী কলেজ, কার্পাসডাঙ্গা মাধ্যমিক বিদ্যালয়, কার্পাসডাঙ্গা ফাযিল বিএ মাদ্রাসা, বাঘাডাঙ্গা আশীর্বাদ এজি স্কুল, কার্পাসডাঙ্গার বেশ কয়েকটি কিন্ডার গার্ডেন স্কুলসহ বিভিন্ন সরকারী বেসরকারী প্রতিষ্ঠান যথাযোগ্য মর্যাদায় আর্ন্তজাতিক মাতৃভাষা দিবস পালন করা হয়।
জীবননগর:
যথাযথ মর্যাদায় জীবননগরে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা ও শহীদ দিবস পালিত হয়েছে। গতকাল বৃহস্পতিবার সকাল ৮টায় জীবননগর উপজেলা প্রশাসনের আয়োজনে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা ও শহীদ দিবস উপলক্ষে উপজেলা চত্ত্বর থেকে একটি প্রভাত ফেরি বের হয়ে শহরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিন শেষে আলোচনা সভায় মিলিত হয়। পরে সেখানে সাংস্কৃতি অনুষ্ঠান ও সুন্দর হাতে লেখা, চিত্রাংকন ও রচনা প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহনকারীদের মধ্যে পুরস্কার বিতরণ করা হয়। সুন্দর হাতে লেখায় প্রথম স্থান লাভ করেন শাপলা কলি আদর্শ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ৮ম শ্রেনীর ছাত্র তন্ময় রহমান তুর্য্য। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সিরাজুল ইসলাম। বিশেষ অতিথি ছিলেন উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের পঃ পঃ কর্মকর্তা ডাঃ রফিকুল ইসলাম, জীবননগর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) শেখ গনি মিয়া, উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার মোস্তাফিজুর রহমান, মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার দ্বীনেশ চন্দ্র পাল, নির্বাচন অফিসার তাইজুল ইসলাম, খাদ্য নিয়ন্ত্রক কর্মকর্তা আব্দুল খালেক, সমাজ সেবা কর্মকর্তা মাসুদুর রহমান, উপজেলা সহকারী জনস্বাস্থ্য প্রকৌশলী রাজিব হোসেন রাজু প্রমুখ।
আন্দুলবাড়ীয়া:
আন্দুলবাড়ীয়া ইউনিয়নের সর্বত্র যথাযোগ্য মর্যাদায় অমর একুশে ফেব্রুয়ারী আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা ও শহীদ দিবস পালিত হয়েছে। দিবসটি উপলক্ষে আন্দুলবাড়ীয়া কলেজ, আন্দুলবাড়ীয়া বহুমুখী মাধ্যমিক বিদ্যালয়, আশরাফিয়া আলীম মাদ্রাসা, আন্দুলবাড়ীয়া বহুমুখী মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়, পাঁকা মাধ্যমিক বিদ্যালয়, শাহাপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয়, কাশীপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয়, হারদা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়, দেহাটি প্রাইমারী স্কুল, নিশ্চিন্তপুর প্রাইমারী স্কুল, আন্দুলবাড়ীয়া সরকারী প্রাথমিক বালিকা বিদ্যালয়, আন্দুলবাড়ীয়া বাজার কমিটি, আন্দুলবাড়ীয়া প্রেসক্লাব, আন্দুলবাড়ীয়া ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ, যুবলীগ ও ছাত্রলীগের উদ্যোগে পৃথক-পৃথক ভাবে নানা কর্মসূচী পালন করেছেন। কর্মসূচীর মধ্যে ছিলো প্রভাত ফেরী, জাতীয় ও দলীয় পতাকা উত্তোলন, কুচ কাওয়াজ, বর্ণাঢ্য র‌্যালী, শহীদ বেদীতে পুম্পমাল্য অর্পন, আলোচনা সভা, ফাতেহা পাঠ সহ দোয়া ও বিশেষ মোনাজাত অনুষ্ঠিত হয়। এ ছাড়াও আন্দুলবাড়ীয়া বাজার কমিটির উদ্যোগে বাজারের সকল ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে এবং সকল সরকারী, বেসরকারী ও শায়ত্ব শাষিত প্রতিষ্ঠানে জাতীয় পতাকা উত্তোলন করে অর্ধনমিত রাখা হয়। নিজ-নিজ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের উদ্যোগে বর্ণাঢ্য র‌্যালী বের করে আন্দুলবাড়ীয়া বাজারের প্রধান-প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করেন। পৃথক-পৃথক ভাবে বর্ণাঢ্য র‌্যালিটির নেতৃত্বদেন ২নং আন্দুলবাড়ীয়া ইউপি’র চেয়ারম্যান ও আন্দুলবাড়ীয়া বহুমূখী মাধ্যমিক বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সভাপতি শেখ শফিকুল ইসলাম মোক্তার, আন্দুলবাড়ীয়া ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও আন্দুলবাড়ীয়া বহুমূখী মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সভাপতি মীর মকলেচুর রহমান টজো, জীবননগর উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী ও আন্দুলবাড়ীয়া আশরাফিয়া আলিম মাদ্রাসার সভাপতি এসএম আশরাফুজ্জামান টিপু, হারদা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সভাপতি শেখ মহিদুল ইসলাম মধু, আন্দুলবাড়ীয়া ইউনিয়ন যুবলীগের সহ-সভাপতি মঈনুল ইসলাম লুলু মিয়া ও সাংগঠনিক সম্পাদক জামিরুল খান। ছাত্রলীগের পক্ষে শেখ শিপন, বাজার কমিটির পক্ষে হাজী আব্দুল খালেক, আন্দুলবাড়ীয়া প্রেসক্লাবের পক্ষে সাধারণ সম্পাদক জাহিদুল ইসলাম মামুন ও সদস্য মামুন খান, যুবলীগ নেতা খান তারিক মাহমুদ, শরিফুল ইসলাম, বিশারত আলী, সহ বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রধান শিক্ষক, শিক্ষিকা, কর্মকর্তা-কর্মচারী ও শিক্ষার্থীরা।
উথলী:
নানা আয়োজনে উথলী ইউনিয়নে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা ও শহীদ দিবস উৎযাপন করা হয়েছে। দিবসটি উপলক্ষে গতকাল বৃহস্পতিবার সকালে প্রভাত ফেরি বের করে উথলী মাধ্যমিক বিদ্যালয়, উথলী মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়, উথলী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, সেনেরহুদা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, জান্নাতুল খাদরা দাখিল মাদ্রাসা, মৃগমারি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, পশ্চিমপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, একতারপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, সিংনগর মাধ্যমিক বিদ্যালয়সহ বিভিন্ন সরকারি বেসরকারি প্রতিষ্ঠান সমূহ। পরে স্ব স্ব বিদ্যালয় শহীদ মিনারে শ্রদ্ধা নিবেদন করে শিক্ষার্থীসহ অন্যান্যরা। কয়েকটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শহীদ মিনার না থাকায় তারা ফুল হাতে প্রভাত ফেরি শেষে স্ব স্ব প্রতিষ্ঠানে ফিরে শহীদদের রূহের মাগফেরাত কামনা করে বিশেষ দোয়া ও প্রার্থনা করে।
মেহেরপুর:

মহান শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে গতকাল বৃহস্পতিবার সকালে মেহেরপুরের বিভিন্ন সংগঠন ও প্রতিষ্ঠানের পক্ষ থেকে শহদীদের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে মেহেরপুরের শহীদ ড. সামসুজ্জোহা পার্কের কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারের বেদীতে পুষ্পার্ঘ্য অর্পন করা হয়। এ দিন সকালে মেহেরপুর পুলিশ সুপারের পত্মী নাদিয়া আফরোজের নেতৃত্বে মেহেরপুর লেডিস ক্লাব ও নারী পুলিশ কল্যাণ সমিতির পক্ষ থেকে পৃথকভাবে পুষ্পার্ঘ্য অর্পন করা হয়। এ সময় মেহেরপুর এমকেএসপি পরিচালক পৌর প্যানেল মেয়ের শাহীনুর রহমান রিটনের নেতৃত্বে পুষ্পার্ঘ অর্পন করা হয়। এছাড়াও মেহেরপুর সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়, সরকারি বালক উচ্চ বিদ্যালয়, সরকারি টেকনিক্যাল স্কুল এন্ড কলেজ, মেহেরপুর মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয় এন্ড বিএম কলেজ, জিনিয়াস ল্যাবরেটারি স্কুল এন্ড কলেজ, পৌর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, বড় বাজার সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, উদীচী শিল্পী গোষ্ঠীসহ বিভিন্ন সংগঠনের পক্ষ থেকে পুষ্পার্ঘ্য অর্পন করার পাশাপাশি প্রভাতফেরির আয়োজন করা হয়।
এদিকে, মেহেরপুরের ছয় ভাষা সৈনিককে সংবর্ধনা প্রদান করেছে জেলা প্রশাসন। গতকাল বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় মেহেরপুর শহীদ ড. সামসুজ্জোহা পার্কে তাদের সংবর্ধনা প্রদান করা হয়। সংবর্ধিত ভাষা সৈনিকরা হলেন- ইসমাইল হোসেন, নজির উদ্দিন বিশ্বাস, সিরাজুল ইসলাম, গোলাম কাউসার চানা, সুলতান শেখ ও ননী গোপাল ভট্টাচার্য। সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) ইবাদত হোসেনের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জেলা প্রশাসক আতাউল গনি। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন পুলিশ সুপার মোস্তাফিজুর রহমান, জেলা পরিষদেও চেয়ারম্যান আলহাজ¦ গোলাম রসুল। আলোচক হিসেবে বক্তব্য রাখেন প্রফেসর হাসানুজ্জামান মালেক, পিপি পল্লব ভট্টাচার্য, সহযোগী অধ্যাপক আবদুল্লাহ আল আমিন, ড. গাজি রহমান, জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি আব্দুস সামাদ বাবলু বিশ্বাস প্রমুখ।
অপরদিকে, ৫২’র ভাষা আন্দোলনের বীর শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধাঞ্জলী জানিয়েছে মেহেরপুর জেলা বিএনপিসহ অঙ্গ সংগঠনের নেতৃবৃন্দ। গতকাল বৃহস্পতিবার ১০টায় জেলা বিএনপির কার্যালয় প্রাঙ্গণ থেকে জেলা বিএনপির সভাপতি মাসুদ অরুনের নেতৃত্বে শহীদ দিবসের শোক র‌্যালিটি মেহেরপুর শহর প্রদক্ষিণ শেষে ড. শহীদ সামসুজ্জোহা পার্কে মেহেরপুর জেলা বিএনপির নেতৃবৃন্দ ২১’র শহীদ বেদীতে পুস্পার্ঘ্য অর্পণ করেন। এসময় উপস্থিত ছিলেন জেলা বিএনপির সহসভাপতি আব্দুর রহমান, আনছারুল হক, পৌর বিএনপির সভাপতি জাহাঙ্গীর বিশ্বাস ও অঙ্গ সংগঠনের নেতৃবৃন্দ। পরে এক মিনিট নীরবতা শেষে শহীদের আত্মার মাগফেরাত কামনা করে দোয়া অনুষ্ঠিত হয়।
বারাদি:
মেহেরপুর সদর উপজেলার বারাদীতে মহান ২১ শে ফেব্রুয়ারি আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা ও শহীদ দিবস পালন করা হয়। বিভিন্ন সংগঠন ও শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের পক্ষ থেকে ভাষা শহীদদের স্মরণে শহীদ বেদীতে শ্রদ্ধাঞ্জলি ও পুষ্পস্তবক অর্পণের মধ্য দিয়ে দিবসটি যথাযোগ্য মর্যাদায় পালন করে-বারাদী ইউনিয়ন (সাংগঠনিক) আওয়ামী লীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগ, কৃষকলীগ, বারাদী পুলিশ ক্যাম্প, মোমিনপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয়, মোমিনপুর মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়, মোমিনপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়, তৃণমূল মডেল একাডেমী, এসএস বিদ্যানিকেতন ও পাটকেলপোতা জাগ্রত যুব সংঘ। এসময় উপস্থিত ছিলেন মোমিনপুর মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়ের এসএমসি সভাপতি ও বারাদী ইউনিয়ন (সাংগঠনিক) আওয়ামী লীগের সভাপতি শামীম ফেরদৌস, প্রধান শিক্ষক জাব্বারুল ইসলাম, বারাদী ইউনিয়ন (সাংগঠনিক) আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সদর উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থী মোমিনুল ইসলাম মোমিন, যুগ্ম সম্পাদক আরিফুল ইসলাম লিটন, যুবলীগ সভাপতি এস আই রিংকু, ছাত্রলীগ সভাপতি আল মামুন, কৃষকলীগের সহ-সভাপতি আব্দুল মান্নান, বারাদী পুলিশ ক্যাম্প ইনচার্জ এস আই আব্বাস আলী, মোমিনপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মেহেদী রেজা, মোমিনপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আনারুল ইসলাম, তৃণমূল মডেল একাডেমীর প্রধান শিক্ষক সাদ আহমেদ, এস এস বিদ্যানিকেতন’এর ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ গোলাম কিবরিয়া সহ বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক শিক্ষিকা ও ছাত্র ছাত্রীবৃন্দ । আরও উপস্থিত ছিলেন পাটকেলপোতা জাগ্রত যুব সংঘের হুমায়ুন স্বপন, ডাঃ দেলোয়ার হোসেন রুনু, লোকমান হোসেন, নিলয়, সালাউদ্দিন, সোহেল রানা, আবু জাফর, ইসরাইল প্রমুখ।
গাংনী:


একুশের প্রথম প্রহরে শহীদ মিনার ফুল দিয়ে ভাষা সৈনিকদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করেছে গাংনী উপজেলা প্রশাসনসহ বিভিন্ন স্তরের জনগন। প্রথম প্রহরে গাংনী উপজেলা পরিষদ কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে শ্রদ্ধা নিবেদনে নামে মানুষের ঢল। গাংনী উপজেলা প্রশাসনের পক্ষে মেহেরপুর-২ আসনের সংসদ সদস্য সাহিদুজ্জামান খোকন, উপজেলা নির্বাহী অফিসার বিষ্ণুপদ পাল ও কৃষি অফিসার কেএম শাহাব উদ্দীনসহ কর্মকর্তাবৃন্দ শহীদ মিনারে পুষ্পার্ঘ অর্পণ করেন। এরপরে এমপির পক্ষে পুষ্পার্ঘ অর্পণ করা হয়। পর্যায়ক্রমে গাংনী থানার পক্ষে ওসি হরেন্দ্র নাথ সরকার ও ওসি তদন্ত সাজেদুল ইসলাম, মুক্তিযোদ্ধাদের পক্ষে সাবেক কমান্ডার মুন্তাজ আলী ও আমিরুল ইসলাম, গাংনী পৌরসভার পক্ষে থেকে মেয়র আশরাফুল ইসলামসহ বিভিন্ন শ্রেণী পেশার মানুষের পক্ষে পুষ্পার্ঘ অর্পণ করেন। সকাল ৮টায় পৌর এলাকার সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান থেকে নিজ উদ্যোগে প্রভাতফেরি শেষে শহীদ মিনারে উপস্থিতি হয়ে পুষ্পার্ঘ অর্পণ করেন। সেখানে ভাষা দিবসের সংক্ষিপ্ত আলোচনা শেষে র‌্যালি করে শহর প্রদক্ষিণ করা হয়। এছাড়াও উপজেলার বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও সামাজিক সংগঠন দিবস পালনে নানা কর্মকসূচি পালন করেন।
মুজিবনগর:


মুজিবনগরে যথাযোগ্য মর্যাদায় মহান ২১ শে ফেব্রুয়ারি ভাষা শহীদ দিবস ও আন্তজাতিক মাতৃভাষা দিবস পালন করা হয়েছে। এ উপলক্ষে বুধবার ১২ টা ১ মিনিটে শহীদ বেদিতে পুষ্পস্তবক অর্পন করা হয়। এদিকে গতকাল বৃহস্পতিবার ভোরে মুজিবনগর উপজেলা নির্বাহী অফিসার নাহিদা আক্তারের নেতৃত্বে উপজেলা শহীদ মিনার চত্বর থেকে প্রভাত ফেরী শুরু হয়ে মুজিবনগর স্মৃতিসৌধে ঘুরে প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিন করে মুজিবনগর উপজেলা চত্ত্বরে স্থাপিত শহিদ মিনারের পাদদেশে এসে শেষ হয়। প্রভাত ফেরীতে মুজিবনগর থানা অফিসার (ওসি) আব্দুল হাশেম, মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার আনোয়ার হোসেন, প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার মোস্তাফিজুর রহমান, মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা তাজুল ইসলাম, মৎস্য কর্মকর্তা শহিদুল ইসলাম, প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক শেখ সফি, সহসভাপতি হাসান মোস্তাফিজুর রহমান, উপজেলার কর্মকর্তা, কর্মচারী ও স্কুল/কলেজের শিক্ষক/শিক্ষিকা, ছাত্র/ছাত্রীরা অংশ গ্রহন করেন। পরে শহীদ মিনার চত্ত্বরে উপজেলা নির্বাহী অফিসার নাহিদা আক্তারের সভাপতিত্বে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।