বিজ্ঞানকে কাজে লাগিয়ে আমরা খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণ

46

চুয়াডাঙ্গায় তিন দিনব্যাপী বিজ্ঞান মেলা এবং অলিম্পিয়াডের উদ্বোধনকালে এমপি ছেলুন জোয়ার্দ্দার
মেহেরাব্বিন সানভী:
চুয়াডাঙ্গা-১ আসনের সংসদ সদস্য ও জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা সোলায়মান হক জোয়ার্দ্দার ছেলুন এমপি বলেছেন, ‘বিজ্ঞানের আধুনিক প্রযুক্তিকে কাজে লাগিয়ে নতুন নতুন পদ্ধতিতে আবাদ করে ফসল ফলাচ্ছেন চাষিরা। তাতে ফলনও বেশি হচ্ছে এবং দামও পাচ্ছেন ভালো। আমাদের দেশের কৃষি বিজ্ঞানিরা অনেক কিছু আবিষ্কার করেছেন। তাদের মাধ্যমে কৃষি ক্ষেত্রে প্রচুর পরিমানে খাদ্য পাচ্ছি আমরা। আমরা কৃষি বিজ্ঞানীদের কথা চিন্তা করতে পারি এবং তাদের দেখিয়ে যাওয়া পথ অনুসরণ করতে পারি। তবেই কৃষি ক্ষেত্রে সফলতা আনা সম্ভব। বিজ্ঞানের প্রযুক্তিকে কাজে লাগিয়ে এখন আমরা খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণ।’ গতকাল সোমবার সকাল ১০টায় চুয়াডাঙ্গা জেলা প্রশাসকের কার্যালয় চত্বরের ডিসি সাহিত্যমঞ্চে তিন দিনব্যাপী ৪১তম জাতীয় বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি সপ্তাহ উপলক্ষে বিজ্ঞান মেলা এবং জাতীয় বিজ্ঞান অলিম্পিয়াডের উদ্বোধনকালে এসব কথা বলেন তিনি।
‘খাদ্য নিরাপত্তা, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির ব্যবহার’ এই প্রতিপাদ্যে চুয়াডাঙ্গা জেলা প্রশাসনের আয়োজনে, জাতীয় বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি যাদুঘরের তত্ত্বাবধানে এবং বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের পৃষ্ঠপোষকতায় এই মেলার উদ্বোধন করা হয়।
উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে জেলা প্রশাসক নজরুল ইসলাম সরকারের সভাপতিত্ব করেন। সভাপতির বক্তব্যে তিনি বলেন, ‘আমার এখন খাদ্যে আগের চেয়ে স্বয়ংসম্পূর্ণ। যখন আমাদের দেশে ৭ কোটি মানুষের বসবাস ছিলো, তখন আমাদের দেশে প্রচুর পরিমানে আবাদি জমি ছিলো। বর্তমানে আমাদের দেশের জনসংখ্যা দ্বিগুণেরও বেশি। সেই তুলনায় আবাদি জমির পরিমান অনেক কম। কিন্তু আধুনিক প্রযুক্তিকে কাজে লাগিয়ে আমরা অনেক বেশি ফসল ফলাচ্ছি।’
আলোচনা সভায় বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য দেন, পুলিশ সুপার জাহিদুল ইসলাম, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (শিক্ষা ও আইসিটি) মনিরা পারভীন, পৌর মেয়র ওবায়দুর রহমান চৌধুরী জিপু, সরকারি আদর্শ মহিলা কলেজের উপাধ্যক্ষ রেজাউল করিম, সরকারি কলেজের সাবেক অধ্যক্ষ প্রফেসর সিদ্দিকুর রহমান প্রমুখ।
আলোচনা সভায় আরও উপস্থিত ছিলেন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) ইয়াহ্ ইয়া খান, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) জাহিদুল ইসলাম, জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মুন্সি আলমগীর হান্নান, সাবেক অধ্যক্ষ এসএম ইস্রাফিল, সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মুহাম্মদ সাদিকুর রহমান, সদর উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভুমি) ইসরাত জাহান, এনডিসি আমজাদ হোসেন, সাবেক মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার আবু হোসেনসহ সরকারি-বেসরকারি বিভিন্ন দফতরের কর্মকর্তাবৃন্দ। আলোচনা সভার সার্বিক সঞ্চালনায় ছিলেন জেলা প্রশাসনের সহকারী কমিশনার সুরাইয়া মমতাজ। সভা শেষে প্রধান অতিথিসহ সকলে মেলার স্টলগুলো ঘুরে দেখেন এবং এর মূল্যায়ন করেন। বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি সপ্তাহ উদযাপন উপলক্ষে বিশেষ, সিনিয়র ও জুনিয়র গ্রুপ মিলে মোট ২৮টি স্টল দেওয়া হয়েছে। এরমধ্যে উচ্চমাধ্যমিক পর্যায়ে ১১টি ও মাধ্যমিক পর্যায়ে ১৬টি স্টল এবং বিশেষ গ্রুপে প্রথম আলো বন্ধুসভা চুয়াডাঙ্গা জেলা কমিটি একটি স্টল দিয়েছে। অপরদিকে, দুপুর ১২টায় জুনিয়র ও সিনিয়র গ্রুপের উপস্থিত বক্তৃতা প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়।