বাংলাদেশকে হালকাভাবে নিয়েছিল শ্রীলঙ্কা!

247

খেলাধুলা ডেস্ক: কলম্বোর ম্যাচটি নিয়ে লঙ্কান ক্রিকেটে শুরু হয়েছে নানা ধরনের বিতর্ক। টেস্টের চতুর্থ দিনে শ্রীলঙ্কা যখন বাংলাদেশের চেয়ে ৭৫ রানে পিছিয়ে, তখন দলের ৬ নম্বর থেকে শুরু করে বাকি ব্যাটসম্যানদের হোটেল থেকে পি সারা ওভালে একটু দেরি করে যাওয়ার কথা বলা হয়েছিল বলে লিখেছে ইংরেজি পত্রিকা দ্য আইল্যান্ড। অধিনায়ক রঙ্গনা হেরাথ অবশ্য বাংলাদেশকে হালকাভাবে নেওয়ার অভিযোগ অস্বীকার করেছেন। ফিল্ডিং নিয়েও এন্তার অভিযোগ এসেছে। কলম্বো টেস্টে কয়েকটি ক্যাচ ম্যাচের মোড় ঘুরিয়ে দিয়েছে। ফিল্ডিং নিয়ে অবশ্য অভিযোগ ছিল আগে থেকেই। দক্ষিণ আফ্রিকা সফরের পরপরই এ নিয়ে অনেক কথা হয়েছে লঙ্কান ক্রিকেটে। কোচ গ্রাহাম ফোর্ডও শ্রীলঙ্কান দলের ফিল্ডিং দুর্বলতার কথা স্বীকার করেছেন। এই মুহূর্তে ক্রিকেট দুনিয়ায় শ্রীলঙ্কা অন্যতম বাজে ফিল্ডিং-শক্তি কি না, এমন প্রশ্ন করেছে দেশটির পত্রপত্রিকা। আইল্যান্ড তো কোনো রাখঢাক না রেখেই দলের বাজে ফিল্ডিংয়ের জন্য ফিল্ডিং কোচ নিক পোথাসকে দায়ী করেছে। পত্রিকাটি লিখেছে, কলম্বো টেস্টে একটি দিনও পোথাসকে দলের খেলোয়াড়দের নিয়ে ফিল্ডিং অনুশীলন করতে দেখা যায়নি। ফিল্ডিং অনুশীলন না করে খেলোয়াড়েরা ফুটবল খেলে সময় কাটিয়েছে। আইল্যান্ড মজা করে লিখেছে, দলের খেলোয়াড়দের ফুটবল খেলা দেখে মনে হয়েছে হোসে মরিনহো শ্রীলঙ্কায় এসেছেন ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের জন্য নতুন খেলোয়াড় বাছাই করতে! অবশ্য দলের অনুশীলনে ফুটবল খেলা ক্রিকেটারদের জন্য নতুন নয়। সরাসরি অনুশীলনে না নেমে গা গরম করতে প্রায়ই ফুটবল খেলা হয়। তবে শ্রীলঙ্কার মিডিয়ার দাবি, ফিল্ডিং কোচ পুরো উৎসাহ ফুটবল খেলাতেই দিয়েছেন। ক্রিকেট ম্যানেজার অশঙ্কা গুরুসিন্হা অবশ্য বলেছেন, ‘আমাদের কোনটি ভালো করে করা উচিত, কোনটি উচিত নয়, এটা আমি লক্ষ রাখছি। কতটা সময় ধরে আমরা অনুশীলন করছি, এটা গুরুত্বপূর্ণ নয়। গুরুত্বপূর্ণ হচ্ছে, কতটা ভালোভাবে আমরা অনুশীলনটা করছি। সবচেয়ে বড় কথা, অনুশীলনটা আমাদের কতটা কাজে আসছে, সেটি বিচার করা।’ শ্রীলঙ্কার সাবেক এই ব্যাটসম্যান শ্রীলঙ্কান ক্রিকেট দলকে কোনোভাবেই ‘বাজে ফিল্ডিং দল’ মনে করেন না। তিনি দাবি করেছেন, ফিল্ডিংটা অবশ্যই খারাপ হয়েছে, কয়েকটি ক্যাচ পড়েছে, তার মানে এই নয় যে শ্রীলঙ্কান ফিল্ডিং খুব খারাপ। কোচ গ্রাহাম ফোর্ডের অধীনে ফিল্ডিংকেই সর্বাধিক গুরুত্ব দেওয়া হচ্ছে।