বঙ্গমাতার ত্যাগ ও সংগ্রামের কাছে বাংলাদেশ ঋণী -এমপি ছেলুন

31

চুয়াডাঙ্গা, মেহেরপুর, ঝিনাইদহসহ সারা দেশে শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিবের ৯০তম জন্মবার্ষিকী পালন
সমীকরণ প্রতিবেদন:
চুয়াডাঙ্গা, মেহেরপুর, ঝিনাইদহসহ সারা দেশে বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিবের ৯০তম জন্মবার্ষিকী পালিত হয়েছে। এ উপলক্ষে গতকাল শনিবার পৃথক আয়োজনে আলোচনা সভা ও নারীদের মধ্যে সেলাই মেশিন বিতরণ করা হয়েছে।
চুয়াডাঙ্গা:
চুয়াডাঙ্গায় বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিবের ৯০তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে আলোচনা সভা ও সেলাই মেশিন বিতরণ করা হয়েছে। গতকাল শনিবার সকাল সাড়ে ১০টায় চুয়াডাঙ্গা জেলা প্রশাসকের সম্মেলনকক্ষে স্বাস্থ্যবিধি মেনে এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। এর আগে চুয়াডাঙ্গা জেলা আওয়ামী লীগ, জেলা প্রশাসন, পুলিশ প্রশাসনসহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের উদ্যোগে জেলা প্রশাসনের কার্যালয় চত্বরের বঙ্গমাতার প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ করা হয়।
আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন চুয়াডাঙ্গা-১ আসনের সংসদ সদস্য সোলায়মান হক জোয়ার্দ্দার ছেলুন। এ সময় প্রধান অতিথির বক্তব্যে এমপি ছেলুন জোয়ার্দ্দার বলেন, বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব বাঙালির অহংকার, নারী সমাজের প্রেরণার উৎস। শৈশব থেকেই তিনি ছিলেন সাহসী ও দৃঢ়চেতা। যেকোনো পরিস্থিতি তিনি বুদ্ধিমত্তা, বিচক্ষণতা দিয়ে মোকাবিলা করতেন। বাংলাদেশের স্বপ্নের সোনালী ভোরে জেগে ওঠা একজন সংগ্রামী নারী বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব। তাঁর নাম বাঙালি ও বাংলাদেশের ইতিহাসের সঙ্গে অবিচ্ছেদ্য। যার অপরিসীম ত্যাগ ও সংগ্রামের কাছে বাংলাদেশ ঋণী।
সভাপতির বক্তব্যে চুয়াডাঙ্গা জেলা প্রশাসক নজরুল ইসলাম সরকার বলেন, স্বাধীনতার মহানায়ক বঙ্গবন্ধুর রাজনৈতিক চেতনার প্রদীপ তিলতিল করে জ্বালিয়ে রেখেছিলেন তিনি। বঙ্গবন্ধুর সংকটে, সংগ্রামে সাহসে বুক বেঁধে পাশে থেকেছেন। বঙ্গবন্ধুর সবচেয়ে বড় নির্ভরতার জায়গা, আস্থা ও বিশ্বাসের জায়গায় আজীবন অবিচল ছিলেন শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব। বঙ্গবন্ধুর জেল-জুলুম অত্যাচার নির্যাতনে সাহস ও অনুপ্রেরণা জুগিয়েছেন। বঙ্গবন্ধুর রাজনৈতিক জীবনে নানা ঝড়-ঝঞ্ঝার কঠিন সময় শক্ত খুঁটির মতো দাঁড়িয়েছেন তিনি। নীরবে নিভৃতে কত কষ্ট কত যন্ত্রণা মুখ বুজে সহ্য করেছেন। বঙ্গবন্ধু শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব একজন মহিয়সী নারী।
পরে, চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলার মনোনীত ছয়জন নারীকে সেলাই মেশিন প্রদান করা হয়। চুয়াডাঙ্গা জেলা প্রশাসন, মহিলাবিষয়ক অধিদপ্তর, জাতীয় মহিলা সংস্থা ও বাংলাদেশ শিশু একাডেমির সম্মিলিত আয়োজনে পুষ্পস্তবক অর্পণের সময় আরও উপস্থিত ছিলেন- চুয়াডাঙ্গার অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট মনিরা পারভীন, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন) আবু তারেক, সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সাদিকুর রহমান, নেজারত ডেপুটি কালেক্টর আমজাদ হোসেন, জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও সাবেক মেয়র রিয়াজুল ইসলাম জোয়ার্দ্দার টোটন, সাংগঠনিক সম্পাদক মুন্সি আলমগীর হান্নান, জেলা মহিলাবিষয়ক কর্মকর্তা আব্দুল আওয়াল, যুব উন্নয়নের উপপরিচালক মাসুম আহমেদ, জেলা শিশুবিষয়ক কর্মকর্তা আফসানা ফেরদৌসী, জেলা মহিলা সংস্থার চেয়ারম্যান নাবিলা রুকসানা ছন্দা প্রমুখ। অনুষ্ঠানটি উপস্থাপনা করেন চুয়াডাঙ্গা জেলা কালেক্টরেটের সহকারী কমিশনার জান্নাতুল ফেরদৌস। এর আগে, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সরাসরি গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিবের ৯০তম জন্মদিন উপলক্ষে চুয়াডাঙ্গাসহ সারা দেশে আয়োজিত আলোচনা সভা ও সেলাই মেশিন বিতরণ অনুষ্ঠানের উদ্বোধন ঘোষণা করেন।

অপর দিকে, বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছার ৯০তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে দোয়া ও মিলাদ মাহফিল ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। চুয়াডাঙ্গা জেলা যুবলীগের উদ্যোগে ও সদর উপজেলার পদ্মবিলা ইউনিয়ন যুবলীগের আয়োজনে এ দোয়া অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। গতকাল শনিবার বিকেল ৫টার দিকে পদ্মবিলা ইউনিয়নের চন্ডিপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় প্রাঙ্গণে এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করা করে পদ্মবিলা ইউনিয়ন যুবলীগের নের্তৃবৃন্দ।
পদ্মবিলা ইউনিয়নের ২ নম্বর ওয়ার্ড যুবলীগের সভাপতি মফিজ উদ্দিনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জেলা যুবলীগের আহ্বায়ক নঈম হাসান জোয়ার্দ্দার। অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন যুবলীগ নেতা আজাদুল ইসলাম আজাদ, জেলা যুবলীগের সদস্য আরিফ, শুভ, যুবলীগ নেতা মাসুদুর রহমান মাসুম, সৈকত, বিপ্লব হোসেন, পদ্মবিলা ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি হুমায়ুন কবির বনফুল, সহসভাপতি আব্দুল হান্নান, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ওমর ফারুক সুমন, সাংগঠনিক সম্পাদক হারুন অর রশিদসহ পদ্মাবিলা ইউনিয়নের বিভিন্ন ওয়ার্ডেও যুবলীগের নেতা-কর্মীরা। অনুষ্ঠানটি পরিচালনা করেন পদ্মবিলা ইউনিয়ন যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক একরামুল হোসেন জান্টু।
আলমডাঙ্গা:

আলমডাঙ্গায় বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিবের ৯০তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে আলোচনা সভা ও সেলাই মেশিন বিতরণ অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল মনিবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে উপজেলা পরিষদের হলরুমে এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. লিটন আলীর সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন আলমডাঙ্গা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব আইয়ুব হোসেন। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান অ্যাড. সালমুন আহম্মদ ডন ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান কাজী মারজাহান নিতুু। মহিলাবিষয়ক কর্মকর্তা মাকসুরা জান্নাতের উপস্থাপনায় অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন প্রেসক্লাবের সম্পাদক হামিদুল ইসলাম আজম, যুগ্ম সম্পাদক প্রশান্ত বিশ্বাস প্রমুখ। আলোচনা সভা শেষে ছয় নারীকে সেলাই মেশিন প্রদান করা হয়েছে।
দামুড়হুদা:

দামুড়হুদায় বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিবের ৯০তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে আলোচনা সভা ও প্রশিক্ষিত ছয়জন নারীর মধ্যে সেলাই মেশিন বিতরণ করা হয়েছে। গতকাল শনিবার দুপুর ১২টার দিকে দামুড়হুদা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এলাকার ৬ জন প্রশিক্ষিত দুস্থ, বিধবা ও প্রতিবন্ধী নারীর হাতে সেলাই মেশিন তুলে দেন। এর আগে দামুড়হুদা উপজেলা প্রশাসন ও উপজেলা মহিলাবিষয়ক অধিদপ্তরের আয়োজনে এক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। এ সময় উপস্থিত ছিলেন দামুড়হুদা উপজেলা মহিলাবিষয়ক কর্মকর্তা হোসনে জাহান ববি, দামুড়হুদা মডেল থানার সেকেন্ড অফিসার এসআই কামরুল হাসান, কিশোর-কিশোরী ক্লাবের জেলা সুপারভাইজার কাবিল উদ্দীন প্রমুখ।
মুজিবনগর:

বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিবের ৯০তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে মুজিবনগরে আলোচনা সভা ও সেলাই মেশিন বিতরণ করা হয়েছে। গতকাল শনিবার দুপুর ১২টায় উপজেলা প্রশাসন ও মহিলাবিষয়ক কার্যালয়ের আয়োজনে উপজেলা পরিষদের হলরুমে এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। উপজেলা মহিলাবিষয়ক কর্মকর্তা তাজুল ইসলামের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. উসমান গনি। ওই সময় উপস্থিত ছিলেন উপজেলা তথ্যসেবা কর্মকর্তা খন্দকার তানিয়া আক্তার, উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক শেখ সাকিব, উপজেলা যুব মহিলা লীগের সভাপতি তকলিমা খাতুন প্রমুখ। এ সময় ১০ জন অসহায় দরিদ্র মায়েদের মধ্যে বিনামূল্যে সেলাই মেশিন বিতরণ করা হয়।
অপর দিকে, মুজিবনগর তথ্যকেন্দ্রের আয়োজনে বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিবের ৯০তম জন্মবার্ষিকী পালিত হয়েছে। গতকাল শনিবার বেলা ১১টার দিকে মুজিবনগর উপজেলার বাগোয়ান ইউনিয়নের সোনাপুর গ্রামে উঠান বৈঠকের মাধ্যমে মহিয়সী নারী ফজিলাতুন্নেছার জীবনবৃত্তান্ত সম্পর্কিত ভিডিও প্রদর্শন এবং তার জীবনী সম্পর্কে আলোচনা করা হয়। আলোচনা শেষে ৩০ জন নারীর মধ্যে মহামারি করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাব ঠেকাতে হ্যান্ড স্যানিটাইজার, মাস্ক ও হ্যান্ডগ্লভস বিতরণ করা হয়। এ সময় উপস্থিত ছিলেন তথ্যসেবা কর্মকর্তা তানিয়া খন্দকার, তথ্যসেবা সহকারী আরজিনা খাতুন, শান্তনা আক্তার, অফিস সহায়ক আমিরুল ইসলাম প্রমুখ।
ঝিনাইদহ:

??

‘বঙ্গমাতার ত্যাগ ও সুন্দরের সাহসী প্রতিক’ এ প্রতিপাদ্যে ঝিনাইদহে বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন নেছা মুজিবের ৯০তম জন্মবার্ষিকী উদ্যাপন করা হয়েছে। জেলা প্রশাসন ও জেলা মহিলাবিষয়ক অধিদপ্তরের আয়োজনে গতকাল শনিবার সকালে জেলা প্রশাসকের সম্মেলনকক্ষে আলোচনা সভা ও দুস্থদের মধ্যে সেলাই মেশিন বিতরণ করা হয়। জেলা প্রশাসক সরোজ কুমার নাথের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সংরক্ষিত মহিলা আসন-২৭ এর সংসদ সদস্য খালেদা খানম। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জেলা মহিলাবিষয়ক অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক নিলুফার রহমান, জেলা জাতীয় মহিলা সংস্থার চেয়ারম্যান দীপ্তি রহমান ও জেলা মহিলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক অ্যাড. সালমা ইয়াসমিন। অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন জেলা মহিলাবিষয়ক অধিদপ্তরের প্রোগ্রাম অফিসার খোন্দকার শরীফা আক্তার। বক্তারা, শেখ ফজিলাতুন নেছা মুজিবের স্বাধীনতায় তাঁর আত্মত্যাগের বিষয়ে আলোচনা করেন। পরে জেলার ৩৬ জন দুস্থ নারীদের মধ্যে সেলাই মেশিন বিতরণ করেন।