ফাইনালে খেলার স্বপ্ন জিইয়ে থাকলো মাহমুদউল্লাহ বাহিনীর

26

খেলাধুলা প্রতিবেদন:
প্রেসিডেন্টস কাপের ফাইনালে খেলার স্বপ্ন জিইয়ে থাকলো মাহমুদউল্লাহ একাদশের। গতকাল সোমবার টুর্নামেন্টে নিজেদের শেষ ম্যাচে তামিম ইকবাল একাদশের মুখোমুখি হয় মাহমুদউল্লাহ একাদশ। আগে ব্যাট করতে নেমে তামিম একাদশের সংগ্রহ ৮ উইকেটে ২২১ রান। ম্যাচ শেষ হওয়ার ৫ বল বাকি থাকতেই ৪ উইকেটে জয় পায় পয়েন্ট টেবিলের তলানিতে থাকা মাহমুদউল্লাহ একাদশ। টুর্নামেন্টের এই পর্যায়ে এসে পয়েন্ট টেবিল বলছে ফাইনালে যাওয়ার সুযোগ আছে তিন দলেরই। মাহমুদউল্লাহরা আজ জয় না পেলে ফাইনাল নিশ্চিত ছিল তামিম-নাজমুলদের। টস জিতে আগে ব্যাট করতে নেমে শুরুতেই ব্যাটিং বিপর্যয়ে পড়ে তামিম একাদশ। ১৭ রানের মধ্যে দলটি হারায় টপ অর্ডারের চার ব্যাটসম্যানকে। অধিনায়ক তামিম ১৩ বলে করেন মাত্র ৯ রান। আবু হায়দার রনির বলে সাব্বিরের হাতে ক্যাচ দেন তামিম। পরের তিন ব্যাটসম্যানকেই ফিরিয়েছেন পেসার রুবেল হোসেন। একে একে বিদায় নেন তানজিদ হাসান (১), এনামুল হক বিজয় (১) ও মোহাম্মদ মিঠুন (২)। শুরুর বিপর্যয় ভালোমতোই রোধ করেন মিডল অর্ডারের ব্যাটসম্যানরা। পঞ্চম উইকেটে ক্রিজে আঠার মতো লেগে থাকেন ইয়াসির আলী ও মাইদুল ইসলাম অঙ্কন। এই দুজনে দলকে টেনে নিয়ে যায় ১২৮ রান পর্যন্ত। ফিফটি করেও দুর্ভাগা ইয়াসির আলী। হয়ে যান রান আউট। ৮১ বলে তার ব্যাট থেকে আসে ৫ চার ও এক ছক্কায় ৬২ রানের গুরুত্বপূর্ণ ইনিংস। ইয়াসির আলীর বিদায়ের পর টেস্ট মেজাজে থাকার চেষ্টা করেন অঙ্কন। তবে দলীয় ১৪৪ রানের মাথায় তাকে বিদায় করেন রুবেল হোসেনই। সাজঘরে ফেরার আগে অঙ্কন খেলে যান ১১০ বলে ৫৭ রানের চরম ধৈর্যশীল ইনিংস। তিন চারের পাশাপাশি দুটি ছক্কাও মেরেছেন তিনি। বিপর্যয় রোধ করে রানের চাকা সচল রেখেছিলেন ইয়াসির আলী ও অঙ্কন জুটি। দুজনের বিদায়ের পর শেষের দিকে সাইফউদ্দিন ও মোসাদ্দেক জুটির দারুণ ব্যাটিংয়ে চ্যালেঞ্জিং স্কোর পায় তামিম একাদশ। ৩৯ বলে ৪০ রান করেন মোসাদ্দেক। সেখানে ২৯ বলে চারটি চার ও এক ছক্কায় ৩৮ রান করেন সাইফউদ্দিন। বল হাতে মাহমুদউল্লাহ একাদশের হয়ে দারুণ করেছেন পেসার রুবেল হোসেন। ১০ ওভারে তিন মেডেনসহ রান দিয়েছেন মাত্র ৩৪। উইকেট চারটি। সেখানে ১০ ওভারে ৬০ রানে দুটি উইকেট নেন এবাদত হোসেন। ব্যাট হাতে দলের হয়ে সর্বোচ্চ ৬৭ রান করেছেন অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। এছাড়া বড় স্কোর রয়েছে মাহমুদুল হাসান জয় (৫৮) ও ইমরুল কায়েসের (৪৯)।