প্রাথমিক চিকিৎসায় যে ভুলগুলো করবেন না

79

স্বাস্থ্য ডেস্ক:
ছোটখাটো আঘাতে বা ব্যথায় ঘরোয়া উপায়ে বা ঘরের ওষুধ দিয়েই কমিয়ে ফেলা যায়। কারণ সমস্যা গুরুতর না হলে কোন রোগে কী ওষুধ খেতে হবে বা কি করলে ব্যথা কমবে তা সকলেই জানেন। কিন্তু সব কিছুই কি আমরা ঠিক ভাবে জানি? প্রাথমিক চিকিৎসা করতে গিয়ে আবার বিপদ ডেকে আনছি না তো? চলুন জেনে নেয়া যাক প্রাথমিক চিকিৎসার ক্ষেত্রে কোন বিষয়গুলো মাথায় রাখা অত্যন্ত জরুরি। নাক থেকে রক্তক্ষরণ: নাক থেকে রক্তক্ষরণ হলে অনেকেই বলে থাকেন মাথা পিছনের দিকে করে নিতে। মনে করা হয় এর ফলে রক্ত তাড়াতাড়ি বন্ধ হয়। কিন্তু তেমন কিছুই হয় না। উল্টো নাক ও মুখ বেয়ে তা গলা পর্যন্ত নেমে আসে। আর সেই রক্ত আপনার পেটে ঢুকলে বমি পর্যন্ত হতে পারে। শুষ্ক আবহাওয়া অথবা এলার্জির জন্যই সাধারণত নাক থেকে রক্তক্ষরণ হয়ে থাকে। এমনটা হলে সামনের দিকে ঝুঁকে নাকের উপর দিকটা চেপে ধরেন। ১০ মিনিটের মধ্যে ক্ষরণ বন্ধ না হলে চিকিৎসকের কাছে নিয়ে যান। পোড়া স্থানে বরফ: ভুল করেও এই ভুলটি করবেন না। পোড়া স্থানে বরফ দিলে স্থানটি অবশ হয়ে যেতে পারে। এটি ত্বকের ক্ষতিও করে। শরীরের কোনো অংশ পুড়লে সেখানে মাখন বা টুথপেস্টও লাগাবেন না। বরং জায়গাটায় ভাল করে ঠা-া পানি দিন। তারপর শুকনো কাপড়ে মুছে ওষুধ লাগান। আহত ব্যক্তিকে নড়ানো: অনেক সময় কোনো পড়ে গিয়ে আহত হওয়া ব্যক্তি ঠিক আছেন কি না বুঝতে তাকে নাড়িয়ে দেখা হয়। এমনটা করতে গিয়ে তার মেরুদ-ে ব্যথা লাগে। এমন কি নার্ভ ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ারও সম্ভাবনা থেকে যায়। এসব না করে তাকে হাসপাতালে নিয়ে যেতে হবে। চোখ থেকে ধুলো বের করা: চোখে সামান্য কিছু ধুলো-বালি ঢুকে গেলেও অস্বস্তি হতে থাকে। সহ্য করতে না পেরে অনেকেই চোখ ঘষতে থাকেন এই ভেবে, যে এতে ধুলিকণা বেরিয়ে আসবে। কিন্তু আসলে এতে চোখের ক্ষতিই হয়। এমনটা হলে সঙ্গে সঙ্গে চোখে পানির ঝাপটা দিন। কাটা স্থানে থুথু: অনেক সময় কোনো ক্ষত বা কাটা স্থান পরিষ্কার করতে হলে পানির অভাবে সেখানে থুথু দেই। এটি মনে করে যে এতে জীবাণু দূর হবে। কিন্তু এমন ধারণা সঠিক নয়। এতে ক্ষত আরো গভীর হতে পারে। এসব ক্ষেত্রে শুধুমাত্র পরিষ্কার পানিই ব্যবহার করুন।