প্রধানমন্ত্রী সবার কথা ভাবেন, তাই এ অনুদান দিয়েছেন

90

ননএমপিও শিক্ষক-কর্মচারীদের মধ্যে অনুদান বিতরণকালে ডিসি নজরুল ইসলাম
নিজস্ব প্রতিবেদক:
চুয়াডাঙ্গায় প্রধানমন্ত্রীর দেওয়া ননএমপিও ৪৬৫ জন শিক্ষক ও কর্মচারীকে অনুদান বিতরণ করা হয়েছে। গতকাল বৃহস্পতিবার সকাল ১০টায় জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের সম্মেলনকক্ষে এ অনুদান বিতরণ করা হয়। চুয়াডাঙ্গার অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (শিক্ষা ও আইসিটি) মনিরা পারভীনের সভাপতিত্বে অনুদান বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জেলা প্রশাসক নজরুল ইসলাম সরকার।
প্রধান অতিথির বক্তব্যে জেলা প্রশাসক নজরুল ইসলাম সরকার বলেন, ‘সারা বিশ্ব করোনাভাইরাসের কারণে সংকটকালীন সময়ের মধ্যে দিয়ে যাচ্ছে। যখন থেকে লকডাউন শুরু হলো, তখন থেকেই কেউ যেন না খেয়ে থাকে, সে জন্য মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা ছিল। দারিদ্র থেকে শুরু করে কাজহীন সব মানুষকে সহযোগিতা করা হয়েছে। নন-এমপিও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলো ফিস এবং অনুদান দিয়ে চলে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী সে বিষয়টি মাথায় রেখেছেন। তিনি সবার কথা চিন্তা করেন। তাই নন-এমপিও শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তা ও কর্মচারীদেরও অনুদানের ব্যবস্থা করেছেন। তিনি আরও বলেন, সরকারের কাজ একটি সুন্দর নিয়মনীতি তৈরি করে দেওয়া। একজন সুনাগরিকের দায়িত্ব রাষ্ট্রের কল্যাণে সেটি মেনে নেওয়া, মেনে চলা। করোনাভাইরাস প্রতিরোধেও সরকার নিয়মনীতি তৈরি করে দিয়েছে। কিন্তু অনেকেই সেটা মানছেন না। আর মানছেন না বলেই ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করতে হচ্ছে। কিন্তু প্রত্যেকে সঠিকভাবে মেনে চললে, এই ভাইরাসটিও প্রতিরোধ করা সম্ভব হতো। এ সময় জেলা প্রশাসক নজরুল ইসলাম সরকার সবাইকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার আহ্বান জানিয়ে বলেন, সামাজিক ও শারীরিক দূরুত্ব মেনে চলতে হবে। বাইরে বেরোলে মাস্ক পরতে হবে।
অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য দেন জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা নিখিল রঞ্জন চক্রবর্তী। চুয়াডাঙ্গা কালেক্টরেটের সহকারী কমিশনার (শিক্ষা ও আইসিটি) সুরাইয়া মমতাজের উপস্থাপনায় অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন সহকারী কমিশনার ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট আমজাদ হোসেন, ফিরোজ হোসেন, হাবিবুর রহমান প্রমুখ।
উল্লেখ্য, করোনাভাইরাসের কারণে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ননএমপিও শিক্ষক ও কর্মচারীদের জন্য অনুদান দিয়েছেন। চুয়াডাঙ্গায় মোট ৪৬৫ জন এ অনুদান পাবেন। এর মধ্যে ৩৪৬ জন শিক্ষক-শিক্ষিকা এবং ১১৯জন কর্মচারী। প্রত্যেক শিক্ষক ৫ হাজার ও কর্মচারীরা ২ হাজার ৫ শ টাকা করে পাবেন। পর্যায়ক্রমে বিকাশের মাধ্যমে এ টাকা বিতরণ করা হবে।