প্রতারক বগুড়ার স্বপন কারাগারে

70

মালয়েশিয়ায় কাজের প্রলোভন দেখিয়ে অর্থ আত্মসাৎ
নিজস্ব প্রতিবেদক:
ভালো বেতনে মালয়েশিয়ায় কাজের প্রলোভনে দেখিয়ে আলমডাঙ্গা রুইতনপুরের তিনজনের কাছ থেকে প্রায় সাড়ে ১০ লাখ টাকা হাতিয়ে নেওয়ার ঘটনায় মামলা হয়েছে। মামলার জামিন নিতে এলে প্রতারক বগুড়ার স্বপন কুমার রায় (৪২) নামের এক আদম ব্যাপারীকে কারাগারে প্রেরণ করেছেন চুয়াডাঙ্গা চিফ জুডিসিয়াল আদালত। প্রতারক স্বপন কুমার রায় বগুড়া জেলার গাবতলীর মৃত শ্রীধর চন্দ্র রায়ের ছেলে। গতকাল মঙ্গলবার প্রতারক ওই আদম ব্যাপারী চুয়াডাঙ্গা চিফ জুডিসিয়াল আদালতে জামিন আবেদন করলে বিজ্ঞ আদালতের ম্যাজিস্ট্রেট মিজানুর রহমান তাঁর আবেদন নামঞ্জুর করে জেলহাজতে প্রেরণ করার আদেশ দেন।
জানা যায়, আত্মীয়তার সূত্রে ভালো বেতনে মালয়েশিয়ায় কাজের প্রলোভন দেখিয়ে আলমডাঙ্গা উপজেলার রুইতনপুরের কুদ্দুস আলীর ছেলে শাহিন আলী, আব্দারের ছেলে আরিফ ও খবির উদ্দীনের ছেলে খেদের আলীর কাছ থেকে কয়েক দফায় প্রায় সাড়ে ১০ লাখ টাকা নেন স্বপন কুমার রায়। পরে বিভিন্ন সময় কাগজপত্র রেডি করার নাম করে কয়েক দফায় ঢাকাতে নিয়ে যান তাঁদের। প্লেনের টিকিট পাওয়া যাচ্ছে না জানিয়ে দালাল চক্র নদীপথে মালয়েশিয়ায় পাঠাতে চায় তাঁদের। এ সময় তাঁরা পানিপথে যেতে রাজি না হলে একটি ঘরে আটকে রেখে মারধরসহ খুন করার হুমকি প্রদান ও একটি স্ট্যাম্পে স্বাক্ষর করে নেয় প্রতারক চক্র। পাচারের বিষয়টি টের পেয়ে ওই তিনজন কৌশলে বাড়িতে পালিয়ে আসেন। গ্রামের লোকজনসহ আত্মীয়স্বজন ওই প্রতারককে দেওয়া টাকা ফেরত চাওয়াসহ বিষয়টি মিটমার করার জন্য একটি সালিসি বৈঠক করেন। ওই সলিসে টাকা ফেরত দেবেন না বলে জানিয়ে দেন প্রতারক স্বপন। পরে গত ১৯ জানুয়ারি চুয়াডাঙ্গা চিফ জুডিসিয়াল আদালতে এ ঘটনায় মামলা করা হয়। ওই মামলায় গতকাল জামিন নিতে এলে বিজ্ঞ আদালতের ম্যাজিস্ট্রেট মিজানুর রহমান তাঁর আবেদন নামঞ্জুর করে জেলহাজতে প্রেরণ করার আদেশ দেন।