পুলিশি সেবা জনগণের বাড়িতে পৌঁছে দিতেই এ কার্যক্রম

93

মনোহরপুর ও নাটুদাহে বিট পুলিশিং কার্যক্রমের উদ্বোধনকালে এএসপি আবু রাসেল
সমীকরণ প্রতিবেদন:
জীবননগর থানার মনোহরপুর ও দামুড়হুদা থানার নাটুদাহে বিট পুলিশিং কার্যক্রমের উদ্বোধন করা হয়েছে। গতকাল বৃহস্পতিবার পৃথক সময়ে পৃথক আয়োজনে এ বিট পুলিশিং কার্যক্রমের উদ্বোধন করা হয়।
মনোহরপুর:
‘মুজিববর্ষের অঙ্গীকার পুলিশ হবে জনতার’ এ স্লোগানে জীবননগর উপজেলার মনোহরপুরে বিট পুলিশ কার্যক্রমের উদ্বোধন করা হয়েছে। গতকাল বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ১০টায় মনোহরপুর ইউনিয়ন পরিষদের হলরুমে জীবননগর থানার পুলিশ এ আয়োজন করে। জীবননগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সাইফুল ইসলামের সভাপতিত্বে মনোহরপুর ইউনিয়ন এলাকায় বিট পুলিশিং কার্যক্রমের উদ্বোধন করেন সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার (দামুড়হুদা-জীবননগর) সার্কেল আবু রাসেল। উদ্বোধন শেষে সারা দেশে করোনায় পুলিশ সদস্যসহ যারা মারা গেছেন, তাঁদের আত্মার মাগফিরাত কামনা করে দোয়া করা হয়।
প্রধান অতিথির বক্তব্যে সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার আবু রাসেল বলেন, ‘অপরাধ দমন এবং পুলিশি সেবা বাড়িতে বাড়িতে পৌঁছে দেওয়ার লক্ষ্যে বিট পুলিশিং কার্যক্রম চালু করা হয়েছে। মাদক, সন্ত্রাস, জঙ্গিবাদ নারী নির্যাতন, বাল্যবিবাহ প্রতিরোধ, ইভ টিজিং মুক্ত সমাজ গড়তে এবং জনগণকে পুুুলিশের সেবা দোরগোড়ায় পৌঁছে দিতে প্রতিশ্রুতিবদ্ধবিষয়ক সচেতনতামূলক বিট পুলিশিং কার্যক্রম চালুু করা হয়েছে। জনগণ দ্রুত যেন পুলিশি সেবা পায় এবং অপরাধ দমন ও আইনশৃঙ্খলা স্বাভাবিক রাখতেই এটি চালু করা হয়েছে। পুলিশের একার পক্ষে সব অপরাধ দমন করা সম্ভব নয়, দরকার জনগণের আন্তরিকতা ও সহযোগিতা। যেকোনো অপরাধের তথ্যাদি নির্ভয়ে আমাকে জানান, আপনাদের জন্য আমার ফোন দিন-রাত ২৪ ঘণ্টা খোলা।’
অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন মনোহরপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সোহরাব হোসেন খাঁন সুরোদ্দীন, জীবননগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি তদন্ত) ফেরদৌস ওয়াহিদ, জীবননগর প্রেসক্লাবের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আকিমুল ইসলাম আকমান, উপজেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি আশরাফ আলী, মনোহরপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি গোলাম রসুল, সাধারণ সম্পাদক আহসান হাবীব ও মনোহরপুর ইউনিয়ন আওয়ামী যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক ফজলুল হক মিলন।
এ সময় উপস্থিত ছিলেন মনোহরপুর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি কামরুজ্জামান কুড়োন, সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুর রহমান, ২ নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মাসুদ, সাবেক ডেপুটি কমান্ডার বীর মুক্তিযোদ্ধা বদরউদ্দিন মণ্ডল, মনোহরপুর ইউনিয়ন বন্ধু রক্তদান ফাউন্ডেশনের সাধারণ সম্পাদক সাকিল হাসান, জীবননগর থানার কর্মকর্তা-কর্মচারীসহ সুশীল সমাজের প্রতিনিধিসহ অন্যরা উপস্থিত ছিলেন। উপজেলায় একটি পৌরসভা ও ৮টি ইউনিয়নে মোট ১১টি বিট পুলিশিং কার্যালয় থাকবে। অনুষ্ঠানটি সার্বিক পরিচালনা করেন এসআই বাবুল ইসলাম।
নাটুদাহ:
‘মুজিববর্ষের অঙ্গীকার, পুলিশ হবে জনতার’ এই স্লোগানে আইনী সহায়তা মানুষের দোর-গোড়ায় পৌঁছে দিতে দামুড়হুদা উপজেলার ৮নং নাটুদাহ ইউনিয়নে বিট পুলিশিং কার্যক্রমের উদ্বোধন করা হয়েছে। দামুড়হুদা মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আব্দুল খালেকের সার্বিক পরিচালনা ও ব্যবস্থাপনায় গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুর সাড়ে ১২টার সময় বিট পুলিশিং কার্যক্রমের উদ্বোধন করেন দামুড়হুদা সার্কেলের সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার আবু রাসেল। এসময় এএসপি আবু রাসেল বলেন, ‘এলাকায় মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ, বাল্যবিবাহ, নারী নির্যাতন, ইভটিজিং রোধকল্পে এই বিট পুলিশ পুলিশিং কার্যক্রম চালু করা হলো। যা পুলিশি সেবা মানুষের দোর-গোড়ায় পৌঁছে দিতে ভালো ভূমিকা রাখবে।’ এসময় এএসপি আবু রাসেল স্থানীয় বাসিন্দাদের উদ্যোশে আরও বলেন, ‘আপনাদের যে কোনো সমস্যা হলে জানাবেন। তাহলে পুলিশ, চেয়ারম্যান ও ওয়ার্ডের মেম্বার মিলে দ্রুত সেই সমস্যার সমাধান করে দিবে।’ এ সময় উপস্থিত ছিলেন নাটুদহ ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান শফিকুল ইসলাম, নাটুদাহ পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ উপপরিদর্শক (এসআই) পলাশ পারভেজসহ নাটুদহ ইউনিয়ন পরিষদের বিভিন্ন ওয়ার্ডের মেম্বার ও স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ।