পাওনা টাকা চাওয়ায় মা-ছেলেকে মারধরের অভিযোগ

63

প্রতিবেদক, দামুড়হুদা:
দামুড়হুদা উপজেলার কালিয়াবকরি গ্রামে পাওনা টাকা চাওয়াকে কেন্দ্র করে মা ও ছেলেকে মারধরের অভিযোগ উঠেছে চেয়ারম্যানপ্রার্থী ইয়ামিন। এ ঘটনায় আগত কালিয়াবকরি গ্রামের মৃত মোমিন আলীর ছেলে সোহেল (২৫) ও তাঁর মা সায়মা খাতুনকে (৪৫) রক্তাক্ত অবস্থায় দামুড়হুদা চিৎলা হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। শুক্রবার (১০ এপ্রিল) বিকেল সাড়ে পাঁচটার দিকে এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় দামুড়হুদা মডেল থানায় সাইমা খাতুন বাদী হয়ে একটি অভিযোগ করেছেন।
স্থানীয় ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, দামুড়হুদা উপজেলার কালিয়াবকরি হালদার পাড়ার গ্রামের মৃত মোমিন আলীর ছেলে সোহেল বিদেশ যাওয়ার জন্য এইক গ্রামের মৃত ছামছুদ্দীনের ছেলে চেয়ারম্যানপ্রার্থী ইয়ামিন হোসেনকে আড়াই বছর আগে ৪ লাখ টাকা দেন। বছর খানেক আগে বিদেশে যাওয়ার জন্য সোহেলকে ভিসা দেন ইয়ামিন। পরে ইয়ামিন সোহেলকে জানায় ফ্লাইটের তারিখ ঠিক হয়েছে, ঢাকায় চলো এসো। সোহেল ঢাকায় যাওয়ার পর ভিসা চেক করে দেখেন, তাঁর জাল ভিসা দেওয়া হয়েছে। সেখান থেকে সোহেল ফিরে এসে ইয়ামিনের কাছে টাকা ফেরত চাইলে ঘুরাতে থাকে। শুক্রবার (১০ এপ্রিল) বিকেলে সোহেল ও তাঁর মা টাকা চাইতে গেলে টাকা দিতে অস্বীকৃতি জানান ইয়ামিন। কথাকাটাকাটির একপর্যায়ে ইয়ামিন লোহার রড দিয়ে সোহেলকে মারতে থাকে। এ সময় সোহেলের মা ঠেকাতে গেলে তার মাকেও বিভিন্ন স্থানে কামড়ে রক্তাক্ত জখম করেন ইয়ামিন।
এ বিষয়ে ইয়ামিনের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘সোহেল আমার কাছে কিছু টাকা পায়। সোহেল ও তার মা আমার কাছে টাকা চাইতে আসলে আমি বলি কিছুদিন পরে দিব। এই কথা শুনে সোহেলের হাতে থাকা মোবাইল দিয়ে আমাকে মারতে থাকে। আমি ঠেকাতে গেলে তার মোবাইলে তার মাথায় লাগে।’ দামুড়হুদা মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আব্দুল খালেক জানান, ‘এমন ঘটনা শুনেছি, সাইমা বাদী হয়ে ইয়ামিনের বিরুদ্ধে একটি অভিযোগ করেছেন। ঘটনাটি তদন্ত করে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’