পরীক্ষায় নানামুখী সংকট

35

করোনা মোকাবেলায় আরো প্রচেষ্টা প্রয়োজন
বাংলাদেশে প্রতিনিয়ত বাড়ছে করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা। দৈনিক ১৪ হাজার থেকে ১৭ হাজার নমুনা পরীক্ষায় তিন হাজার থেকে চার হাজার মানুষের করোনা শনাক্ত হচ্ছে। গতকাল শনিবার পর্যন্ত মোট আক্রান্তের সংখ্যা ছিল এক লাখ আট হাজারের বেশি। এর মধ্যে মোট আক্রান্তের প্রায় অর্ধেকই যুক্ত হয়েছে গত ১৫ দিনে। বিশেষজ্ঞরা মনে করছেন, পরীক্ষার সংখ্যা যত বাড়বে, আক্রান্তের সংখ্যাও তত বাড়বে। কিন্তু সেই নমুনা পরীক্ষা নিয়েও তৈরি হয়েছে নানামুখী সংকট। দিনের পর দিন লাইন দিয়েও অনেকে নমুনা দিতে পারছেন না। যাঁরা নমুনা দিতে পারছেন তাঁদেরও পরীক্ষার ফলাফল পেতে ৮ থেকে ১০ দিন লেগে যাচ্ছে। তত দিনে হয় রোগীর মৃত্যু হচ্ছে, না হয় উপসর্গহীন বা ভালো হয়ে যাচ্ছে। অনেক পজিটিভ রোগী এই সময়ে পরিবারের সদস্য কিংবা অফিস, হাট-বাজার বা অন্যান্য সামাজিক মেলামেশার মাধ্যমে অনেককে সংক্রমিত করছেন। দেশে ৬১টি আরটি-পিসিআর ল্যাবে পরীক্ষার ব্যবস্থা করা হলেও সব কটি সঠিকভাবে কাজ করতে পারছে না। টেস্ট কিটের ঘাটতিও নমুনা পরীক্ষার কাজ ব্যাহত করছে। এই পরিস্থিতিতে করোনা মোকাবেলায় সরকারের উদ্যোগে পরিকল্পনা ও সমন্বয়হীনতার চিত্রই লক্ষ করা যায়। আক্রান্তের সংখ্যা ১০ হাজার থেকে ২০ হাজার হতে সময় লেগেছিল ১১ দিন। আর ৪০ হাজার থেকে ৫০ হাজার হতে সময় লেগেছিল মাত্র পাঁচ দিন। আর এখন এক দিনেই বাড়ছে চার হাজার পর্যন্ত। পিক বা চূড়ায় না ওঠা পর্যন্ত আগামী দিনগুলোতে আক্রান্ত ও মৃত্যুর এই হার আরো বাড়তে পারে। পিকে ওঠা নিয়েও বিশেষজ্ঞদের মধ্যে রয়েছে নানা মত।
বিবিসির বিশ্লেষণ অনুযায়ী সর্বোচ্চ পর্যায়ে ওঠার পর নিচে নামা শুরু হতে ৪২ দিন বা তারও বেশি সময় লাগতে পারে। অতি আশাবাদী কারো কারো মতে, চলতি মাসের শেষ নাগাদ সংক্রমণের হার কমে আসতে পারে। স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা মনে করছেন, বাংলাদেশে সংক্রমণ ও মৃত্যুর এই ঊর্ধ্বগতি রোধে যে ধরনের প্রস্তুতি থাকা প্রয়োজন ছিল, তা আমাদের নেই। এ ক্ষেত্রে সরকারের সঠিক পরিকল্পনা ও দূরদর্শিতার অভাব ছিল। সরকার প্রথম দিকে দৈনিক ১০ হাজার পরীক্ষা করানোর লক্ষ্য ঠিক করে। পরে সেটি বাড়ালেও এখন পর্যন্ত প্রতিদিন ২০ হাজার নমুনা পরীক্ষার সক্ষমতা তৈরি করতে পারেনি। অথচ অনেক বিশেষজ্ঞের মতে, এই সময়ে দৈনিক ৫০ হাজারের বেশি নমুনা পরীক্ষা করা জরুরি ছিল। অথচ আরটি-পিসিআর পরীক্ষার ল্যাব বেড়ে ৬১টি হলেও প্রতিদিন সব ল্যাবে পরীক্ষা করা সম্ভব হচ্ছে না। রয়েছে কিটের সংকট। তাই স্বাস্থ্য অধিদপ্তরও মনে করছে, শুধু পিসিআর পরীক্ষা দিয়ে পরিস্থিতি সামাল দেওয়া যাবে না, বিকল্প কৌশলও নিতে হবে। শুধুু নমুনা পরীক্ষাই নয়, রোগীদের জন্য হাসপাতালে শয্যাসংখ্যা বাড়ানো, আইসিইউ, অক্সিজেন, ভেন্টিলেশনসহ উন্নত চিকিৎসার ব্যবস্থা করতে হবে। সেই সঙ্গে অবশ্যই দ্রুত রোগ শনাক্ত করতে হবে।