নামাজরত অবস্থায় বাজুস নেতা রিপনের শ্বশুরের ইন্তেকাল

168

চুয়াডাঙ্গায় জামাই বাড়িতে বেড়াতে এসে ফেরার দিন, না ফেরার দেশে!
বিশেষ প্রতিবেদক:
বাংলাদেশ জুয়েলারি সমিতির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক রিপনুল হাসান রিপনের শ্বশুর মোরশেদ আনোয়ার ইন্তেকাল করেছেন। ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাহি রাজিউন। গতকাল শুক্রবার দুপুরে চুয়াডাঙ্গা শহরতলীর দৌলাতদিয়াড় মাঝেরপাড়া জামে মসজিদে জুমার নামাজরত অবস্থায় শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন তিনি। মৃত্যুকালে তাঁর বয়স হয়েছিল ৫০ বছর। তিনি স্ত্রী, দুই মেয়ে-জামাই, এক ছেলে, নাতি-নাতনি, আত্মীয়-স্বজন, বন্ধু-বান্ধব, সহকর্মীসহ অসংখ্য গুণগ্রাহী রেখে গেছেন। মোরশেদ আনোয়ার রাজধানীর মহাখালীর ইন্টারন্যাশনাল সেন্টার ফর ডাইরিয়াল ডিজিজ রিসার্চের (আইসিডিডিআরবি) জেনারেল সার্ভিস ইউনিটে কর্মরত ছিলেন।
দীর্ঘ নয় বছর পর গত মঙ্গলবার (১০ ডিসেম্বর) সপরিবারে প্রথমবার জামাই রিপনুল হাসানের চুয়াডাঙ্গা দৌলাতদিয়াড়ের বাড়িতে বেড়াতে এসেছিলেন। গতকাল শুক্রবার বিকেলে ট্রেনযোগে ঢাকায় ফিরে যাওয়ার কথা ছিল তাঁদের। সে অনুযায়ী প্রস্তুতি সেরে পরিবারের পুরুষ সদস্যদের সঙ্গে জুমার নামাজ আদায় করতে যান মসজিদে। খুৎবা শেষে নামাজ শুরু হলে কাতারবদ্ধ হয়ে প্রথম রাকাতে সিজদা সম্পন্ন করেন তিনি। এরপর রুকুতে ওঠার সময় হঠাৎ সেখানেই লুটিয়ে পড়েন। এ সময় পরিবারের সদস্য ও মুসল্লিরা তাঁকে উদ্ধার করে চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে নিলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাঁকে মৃত ঘোষণা করেন। সেখান থেকে শেষবারের মতো তাঁর মরদেহ নিয়ে আসা হয় বড় মেয়ের শ্বশুরবাড়িতে। তাঁকে দেখতে আসেন বাংলাদেশ বিজনেস চেম্বার অব সিঙ্গাপুরের প্রেসিডেন্ট আলহাজ্ব সাহিদুজ্জামান টরিক, সদর উপজেলা চেয়ারম্যান আসাদুল হক বিশ্বাস, পৌর মেয়র ওবাইদুর রহমান চৌধুরী জিপু, দৈনিক সময়ের সমীকরণ-এর প্রধান সম্পাদক নাজমুল হক স্বপনসহ নিকটজনেরা। তাঁরা মোরশেদ আনোয়ারের মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ ও শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি সমবেদনা জ্ঞাপন করেন।
এদিকে, বিকেল পাঁচটা নাগাদ অ্যাম্বুলেন্সযোগে রাজধানীর রামপুরা বাসভবনের উদ্দেশে নেওয়া হয় মোরশেদ আনোয়ারের মরদেহ। রাত সাড়ে ১১টায় মালিবাগ নূর মসজিদে জানাজা শেষে পাশ্ববর্তী কবরস্থানে তাঁর দাফনকার্য সম্পন্ন করা হয়।