‘নতুন নিয়মে চ্যালেঞ্জটা বেশি বোলার ও অধিনায়কদের’

29

খেলাধুলা প্রতিবেদন
ক্রিকেট ফিরেছে একগুচ্ছ নতুন নিয়ম নিয়ে। নিয়মগুলোর সঙ্গে মানিয়ে নিতে সবচেয়ে বেশি চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি হতে হবে বোলার ও অধিনায়কদের। এমনটাই মত পাকিস্তান টেস্ট অধিনায়ক আজহার আলীর। নতুন নিয়মের মধ্যে উল্লেখযোগ্য, বলে লালা ব্যবহারে নিষেধাজ্ঞা এবং বোলাররা তাদের ক্যাপ, তোয়ালে, সোয়েটার ইত্যাদি জিনিসপত্র আম্পায়ারকে দিতে পারবেন না। প্রতি ওভারের আগে সেগুলো রেখে আসতে হবে বাউন্ডারি লাইনের বাইরে। ইংল্যান্ডের আবহাওয়ায় লালার বিকল্প ঘাম ব্যবহার নিয়েও রয়েছে শঙ্কা। ক্যাপ, তোয়ালে বাউন্ডারি লাইনের বাইরে রেখে বোলিং করতে আসতে সময়ের অপচয় হওয়ার ঝুঁকি রয়েছে। এতে অধিনায়করা পড়বেন বিপাকে। নির্ধারিত সময়ের মধ্যে ওভার শেষ না করতে পারলে জরিমানা সহ নিষেধাজ্ঞার কবলে পড়তে পারেন অধিনায়করা। উস্টারশায়ারে নিজেদের মধ্যে দু’দিনের প্রস্তুতি ম্যাচ খেলেছে পাকিস্তান। সেখানে নতুন নিয়মগুলোর সঙ্গে মানিয়ে নিতে বেগ পেতে হয়েছে পাকিস্তানি খেলোয়াড়দের। সে অভিজ্ঞতাই জানালেন আজহার আলী, ‘নতুন নিয়মের সঙ্গে মানিয়ে নেয়াটা চ্যালেঞ্জিং। বিশেষত বোলার এবং অধিনায়কদের। এই আবহাওয়ায় পেসাররাই কেবল ঘামছিল। অন্যরা তাই বল উজ্জ্বল করতে পারছিল না। ইংল্যান্ডে এখন গ্রীষ্মকাল। আবহাওয়া উষ্ণ হলেই পরিস্থিতি বদলে যাবে। সবচেয়ে বেশি চ্যালেঞ্জিং বিষয় বোলারদের ক্যাপ, সোয়েটার বাউন্ডারি লাইনের বাইরে রেখে আসতে হচ্ছিল। এই কারণে ওভার রেট ঠিক রাখাটা কঠিন হচ্ছিল। বিশেষত ইয়াসির শাহ’র জন্য। সে বৃত্তের মধ্যে ফিল্ডিং করছিল এবং বোলিং শুরুর আগে তাকে ক্যাপ, সোয়েটার রাখতে বাউন্ডারি লাইনের বাইরে যেতে হচ্ছিল। আমদের আরো দুটি প্রস্তুতি ম্যাচ আছে। আশা করছি পুরোপুরি মানিয়ে নিতে পারব।’
ইংল্যান্ড সফরে তিনটি করে টেস্ট ও টি-টোয়েন্টি খেলবে পাকিস্তান। ৫ই আগস্ট ম্যানচেস্টারে প্রথম টেস্টে মুখোমুখি হবে পাকিস্তান ও ইংল্যান্ড। পরের দুই টেস্ট সাউদাম্পটনে, শুরু হবে ১৩ ও ২১শে আগস্ট। পাকিস্তান সিরিজের তিনটি টি-টোয়েন্টিই হবে ম্যানচেস্টারে। ২৮শে আগস্ট প্রথম, ৩০শে আগস্ট দ্বিতীয় ও ১লা সেপ্টেম্বর হবে শেষ ম্যাচ। চলমান ইংল্যান্ড-ওয়েস্ট ইন্ডিজ টেস্ট সিরিজের মতো সব ম্যাচই হবে দর্শকশূন্য স্টেডিয়ামে।