নতুন আইফোন আসছে ১৩ অক্টোবর

21

প্রযুক্তি প্রতিবেদন
করোনা ভাইরাসের প্রভাবে উৎপাদন কাজ বাধাগ্রস্ত হওয়ায় সেপ্টেম্বরের ইভেন্টে আইফোন আনেনি অ্যাপল। তাই আইফোন ভক্তদের অপেক্ষায় থাকতে হয়েছে বাড়তি কয়েক সপ্তাহ। এবার অপেক্ষা শেষ হওয়ার পালা এবার। ইতোমধ্যে আইফোন উন্মোচন ইভেন্টের আমন্ত্রণপত্র পাঠানো শুরু করেছে অ্যাপল। আমন্ত্রণপত্রে লেখা, ১৩ অক্টোবর অ্যাপল পার্ক থেকে প্রচারিত ইভেন্টটি দেখা যাবে অ্যাপল ডটকম ওয়েবসাইটে। ইভেন্ট শুরু হবে বাংলাদেশ সময় রাত ১১টায়। এ বছর আরও নতুন ৪টি আইফোন আনতে পারে অ্যাপল। এই ৪ মডেল হলো আইফোন ১২ মিনি, আইফোন ১২, আইফোন ১২ প্রো, আইফোন ১২ ম্যাক্স প্রো। প্রতিটি ফোনেই থাকবে ফাইভজি নেটওয়ার্ক সাপোর্ট। আইফোনগুলোর আকার হবে ৫.৪ ইঞ্চি থেকে ৬.৭ ইঞ্চির মধ্যে। আইফোন বাদে আরও কিছু পণ্য আনবে অ্যাপল। এ তালিকায় আছে লোকেশন ট্র্যাকিং ডিভাইস এয়ারট্যাগস, সাশ্রয়ী দামের হোমপড ও হেডফোন। বিনিয়োগ ব্যাংক কোয়েন ইনকরপোরেশনের বিশ্লেষক কৃশ শঙ্করের ভাষ্যে, বৈশ্বিক স্মার্টফোন বাজার তীব্র প্রতিযোগিতাপূর্ণ হয়ে উঠেছে। ক্রমবর্ধমান চীনা ব্র্যান্ডগুলোর কারণে চাপে রয়েছে অ্যাপল ও স্যামসাংয়ের মতো প্রিমিয়াম ডিভাইস নির্মাতারা। এ পরিস্থিতিতে হার্ডওয়্যারের পাশাপাশি ডিজিটাল পেমেন্ট এবং অন্যান্য সফটওয়্যার সেবায় মনোযোগ অ্যাপলের জন্য নতুন ব্যবসার সম্ভাবনা উন্মোচন করেছে। অ্যাপলের রাজস্বে আইফোনের গুরুত্ব কমলেও সেবা বিভাগের গুরুত্ব বাড়ছে। তিনি বলেন, অ্যাপল ব্যবসায় বৈচিত্র্য আনয়নের লক্ষ্য থেকে ডিজিটাল পেমেন্ট খাতে প্রবেশ করেছিল, যা এখন প্রতিষ্ঠানটির জন্য আশীর্বাদ হয়ে দেখা দিয়েছে। ডিজিটাল পেমেন্ট খাতে অ্যাপল পে, অ্যাপল কার্ড এবং অ্যাপল ক্যাশ সেবা দিয়ে ব্যবসা করছে অ্যাপল। এর মধ্যে অ্যাপল পে আগামীতে অ্যাপলের জন্য মাল্টিবিলিয়ন ডলার রাজস্বের ব্যবসায় পরিণত হবে বলে জানান তিনি। গত সোমবার প্রকাশিত এক রিসার্চ নোটে কৃশ শঙ্কর লেখেন, সামপ্রতিক সময় ডিজিটাল পেমেন্ট খাতে অ্যাপলের তিন সেবায় ১০০ শতাংশের বেশি প্রবৃদ্ধি দেখা গেছে। কভিড-১৯ মহামারীর মধ্যে নতুন স্বাভাবিকতার সঙ্গে মানিয়ে নেয়ার অংশ হিসেবে অ্যাপলের ডিজিটাল পেমেন্ট সেবাগুলোর ব্যবহার এবং পেনিট্রেশন দুটোই উল্লেখযোগ্য বেড়েছে। সূত্র : সিএনএন ও ইয়াহু ফিন্যান্স।