নতুন আইন বাস্তবায়নে সবার সহযোগিতা চাইলেন জেলা প্রশাসক

22

চুয়াডাঙ্গার রাফেল কমিউনিটি সেন্টারে জেলা ট্রাক মালিক গ্রুপের অভিষেক

বিশেষ প্রতিবেদক:
চুয়াডাঙ্গা জেলা প্রশাসক নজরুল ইসলাম সরকার বলেছেন, ‘আইন না মানা আমাদের অনেকের অভ্যাসে পরিণত হয়েছে। তাই নতুন আইন মানতে একটু কষ্ট হচ্ছে। কিন্তু সড়কে শৃঙ্খলা ফেরাতে আর মৃত্যুর মিছিল থামাতে নতুন আইন বাস্তবায়নে সবাইকে এক হয়ে কাজ করতে হবে।’ চুয়াডাঙ্গা জেলা ট্রাক মালিক গ্রুপের নবনির্বাচিত কমিটির অভিষেক অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন তিনি। গতকাল শুক্রবার বিকেলে চুয়াডাঙ্গার হোটেল সাহিদ প্যালেসের রাফেল কমিউনিটি সেন্টারে এ আয়োজন করা হয়।
নবনির্বাচিত কমিটির সভাপতি হাবিবুর রহমান লাভলুর সভাপতিত্বে অভিষেক পরবর্তী আলোচনায় জেলা প্রশাসক আরও বলেন, ‘আইন মেনে গাড়ি চালালে দুর্ঘটনা কমবে। এতে করে প্রাণহানী-অঙ্গহানীর ঘটনা কমে আসবে এবং বাস-ট্রাক পরিবহন মালিকরাও তাঁদের কর্মীদের হাতে নিশ্চিন্তে গাড়ি তুলে দিতে পারবেন। আমি মনে করি, নিয়ম মেনে গাড়ি চালালে কেউ এ আইনের আওতায় আসবে না। কারণ আইন মেনে চললে তা প্রয়োগ করার প্রয়োজন পড়ে না।’
অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্য দেন পুলিশ সুপার জাহিদুল ইসলাম, জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক রিয়াজুল ইসলাম জোয়ার্দ্দার টোটন, সাংগঠনিক সম্পাদক মুন্সী আলমগীর হান্নান ও ট্রাক মালিক গ্রুপের দ্বি-বার্ষিক নির্বাচনের প্রধান নির্বাচন কমিশনার অ্যাড. তছিরুল আলম মালিক ডিউক।
অভিষেক অনুষ্ঠানের শুরুতে অতিথিদের ফুল দিয়ে বরণ শেষে নবনির্বাচিত নেতৃবৃন্দের সঙ্গে সব সদস্য ও উপস্থিত অতিথিদের পরিচয় করিয়ে দেওয়া হয়। জেলা ট্রাক মালিক গ্রুপের দ্বি-বার্ষিক সাধারণ নির্বাচন ২০১৯-২০২১ মেয়াদে সভাপতি নির্বাচিত হয়েছেন হাজি হাবিবুর রহমান লাভলু, সিনিয়র সহসভাপতি হাজি আবুল কালাম, সহসভাপতি আতিয়ার রহমান হাবু, সাধারণ সম্পাদক সাইফুল হাসান জোয়ার্দ্দার টোকন, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক হাজি আলমগীর কবির ও হাজি রেজাউল হক জোয়ার্দ্দার (রেজা), সাংগঠনিক সম্পাদক মাহমুদুল ইসলাম মালিক পল্টু, সড়ক সম্পাদক শাহারিন হক মালিক, প্রচার সম্পাদক মিজানুর রহমান, কোষাধ্যক্ষ হাজি আমিনুল ইসলাম ও দপ্তর সম্পাদক পদে হাজি ওসমান আলী বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন। এ ছাড়া নির্বাহী সদস্য পদে নির্বাচিত হয়েছেন আব্দুল মান্নান নান্নু, তরিকুল ইসলাম, একরামুল হক পর্বত, কাজী হাসানুজ্জামান, শেখ ওসমান আলী ও সেকেন্দার আলী বিশ্বাস।