ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত হানা ব্যক্তিদের শাস্তি দাবি

65

গাংনীতে পবিত্র কালেমা অবমাননাকারীদের বিরুদ্ধে উলামা পরিষদের সংবাদ সম্মেলন
গাংনী অফিস:
মেহেরপুরের গাংনী উপজেলার তেঁতুলবাড়ীয়া দয়েরপাড়া জামে মসজিদে কালেমা অবমাননাকারীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবিতে সংবাদ সম্মেলন করেছে মেহেরপুর জেলা উলামা পরিষদ। সংবাদ সম্মেলনে পবিত্র কালেমা অবমানের বিষয়টি সারা বিশে^র মুসলমানদের ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত বলে আখ্যায়িত করেছেন উলামা পরিষদ নেতৃবৃন্দ। গতকাল শুক্রবার আসরের নামাজের পর গাংনী প্রেসক্লাবে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে ঘটনার বিস্তারিত তুলে ধরেন জেলার বিভিন্ন এলাকা থেকে আসা আলেম-উলামারা।
অনুষ্ঠানে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন মেহেরপুর জেলা উলামা পরিষদের উপদেষ্ট সদস্য মাওলানা আব্দুল কাদের। তিনি বলেন, সাম্প্রতিক সময়ে তেঁতুলবাড়ীয়া দয়েরপাড়া জামে মসজিদের মেহরাবে কালেমা তৈয়বা ‘লা ইলাহা ইল্লাল্লাহু মুহাম্মাদুর রাসূলুল্লাহ’ লেখা টাইলসটি ভেঙে ফেলার মধ্য দিয়ে আল্লাহ ও রাসুল (স.) কে অবমাননা করা হয়েছে। আহলে হাদিস মতাবলম্বী শিহাব আলী, একাতারুল মোল্লা, দেলোয়ার হোসেন, আব্দুল্লাহ আল মামুন বকুল এবং মসজিদ কমিটির পক্ষে শফিকুল ইসলাম ওরফে শফি, হাবিবুর রহমান, রমজান আলী, শাহাজান মুন্সি রাতের আধারে কালেমা তৈয়বা লেখা টাইলসটি ভেঙে সারা পৃথিবীর কোটি কোটি ধর্মভীরু মুসলমানদের হৃদয়ে রক্তক্ষরণ করেছেন। তাই মেহেরপুর জেলা উলামা পরিষদ ও তওহীদী জনতার পক্ষ থেকে ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত হানা ব্যক্তিদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানাচ্ছি। এ ঘটনার সঙ্গে জড়িতদের বিষয়ে ব্যবস্থা গ্রহণ করে আল্লাহ পাকের ও রাসুলে পাক (স.)-এঁর মান ও শান রক্ষার জন্য সাংবাদিক, পুলিশ ও প্রশাসনের সংশ্লিষ্টদের সহযোগিতা কামনা করেন নেতৃবৃন্দ।
সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্য দেন জেলা উলামা পরিষদের সাধারণ সম্পাদক মাওলানা মুফতি হাফিজুর রহমান, সিনিয়র সহসভাপতি মাওলানা শফিকুল ইসলাম, মাওলানা খাদেমুল ইসলাম ও গাংনী দারুচ্ছালাম জামে মসজিদের ইমাম হাফেজ রুহুল আমিন। অনুষ্ঠানে পবিত্র কোরআন থেকে তিলাওয়াত করেন মাওলানা জাবের হোসেন। অনুষ্ঠান সঞ্চালনায় ছিলেন মাওলানা সাদেক আলী।