দ্বীপরাষ্ট্র সামোয়ায় হামে শিশুসহ ৫৩ জনের মৃত্যু

75

বিশ্ব প্রতিবেদন:
ওশেনিয়া অঞ্চলের দ্বীপরাষ্ট্র সামোয়ায় হামে আক্রান্ত হয়ে শিশুসহ ৫৩ জনের মৃত্যু হয়েছে। মৃতদের ৪৮ জনের বয়স চার বছরেরও কম। প্রতিদিন নতুন করে আক্রান্ত হচ্ছেন একশরও বেশি মানুষ। খবর এএফপির। প্রায় দুই লাখ জনসংখ্যার দ্বীপটিতে এখন পর্যন্ত হাম আক্রান্ত হওয়ার তিন হাজার সাতশরও বেশি কেস রেকর্ড করা হয়েছে। রবি ও সোমবার এ দুদিনেই নতুন করে আক্রান্ত হয়েছে ১৯৮ জন। বিশ্বজুড়ে হামের প্রাদুর্ভাব বাড়ছে। হামের টিকা দিলে অটিজিম হতে পারে এমন আশঙ্কায় শিশুদের টিকা দিচ্ছেন না অনেক অভিভাবক। এ কারণে জার্মানি, যুক্তরাষ্ট্রের মতো উন্নত দেশেও বাড়ছে এ রোগে আক্রান্তের সংখ্যা। চলতি বছরের অক্টোবরে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডবিওএইচও) এক বিবৃতিতে এ ব্যাপারে সতর্ক করে জানায়, এ বছরের প্রথম তিন মাসে হাম আক্রান্তের কেস ৩০০ শতাংশ বেড়েছে। আশঙ্কা রয়েছে এটি মহামারী রূপ নিতে পারে। ডব্লিওএইচওর তথ্যমতে, সামোয়ার মোট জনসংখ্যার মাত্র ৩১ শতাংশের হামের টিকা দেয়া হয়েছে। এ কারণে বাড়ছে এ রোগের প্রাদুর্ভাব। গত ২০ নভেম্বর দেশটিতে জরুরি অবস্থা জারি করা হয়েছে। নিউজিল্যান্ড ও অস্ট্রেলিয়াসহ অন্যান্য দেশের আন্তর্জাতিক সংস্থার সহায়তায় দেশটিতে হামের টিকা দেয়ার কার্যক্রম শুরু হয়েছে। এ পর্যন্ত ৫৮ হাজার ১৫০ জনকে টিকা দেয়া হয়েছে। ভাইরাসজনিত একটি রোগ হাম। হাঁচি-কাশিসহ নানাভাবে দ্রুত সংক্রমিত হয় এটি। তাই বর্তমানে সামোয়ার সব স্কুল-কলেজ ও ইউনিভার্সিটি বন্ধ রয়েছে। এ ছাড়া বন্ধ রয়েছে লোক সমাগমের সব স্থান।