দেশে ৩৬ জনের মৃত্যু, নতুন শনাক্ত ২৫৩৯

59

গত ২৪ ঘণ্টায় চুয়াডাঙ্গায় আরও দুজন করোনা আক্রান্ত
সমীকরণ প্রতিবেদন:
দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় সংক্রমিত ৩৫ জনের মৃত্যু হয়েছে। একই সময় নতুন করে ২ হাজার ৫৩৯ জন করোনা রোগী শনাক্ত হয়েছে। দেশে এখন পর্যন্ত ৪ লাখ ৬৪ হাজার ৯৩২ জনের দেহে করোনার সংক্রমণ শনাক্ত হয়েছে। তাঁদের মধ্যে ৬ হাজার ৬৪৪ জনের মৃত্যু হয়েছে। সুস্থ হয়েছেন ৩ লাখ ৮০ হাজার ৬১১ জন। গতকাল সোমবার স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এসব তথ্য জানানো হয়। গত ২৪ ঘণ্টায় দেশের ১১৮টি পরীক্ষাগারে ১৫ হাজার ৩৭২ নমুনা পরীক্ষা করা হয়। শনাক্তের হার ১৬ দশমিক ৪৩ শতাংশ। যে ৩৫ জনের মৃত্যু হয়েছে তাঁদের মধ্যে ২৪ জন পুরুষ ও ১১ জন নারী। সবারই মৃত্যু হয়েছে প্রাতিষ্ঠানিক আইসোলেশনে চিকিৎসাধীন অবস্থায়। গত ৮ মার্চ দেশে প্রথম করোনাভাইরাসে সংক্রমিত রোগী শনাক্তের কথা জানায় সরকার। শুরুর দিকে রোগী শনাক্তের হার কম ছিল। গত মে মাসের মাঝামাঝি থেকে সংক্রমণ বাড়তে শুরু করে। ওই মাসের শেষের দিক থেকে রোগী শনাক্তের হার ২০ শতাংশের ওপরে চলে যায়। আগস্টের তৃতীয় সপ্তাহ পর্যন্ত সেটি ২০ শতাংশের ওপরে ছিল। এরপর থেকে নতুন রোগীর পাশাপাশি শনাক্তের হারও কমতে শুরু করেছিল। একপর্যায়ে দৈনিক রোগী শনাক্তের হার ১০ শতাংশ পর্যন্ত নেমেছিল। তবে চলতি নভেম্বরের শুরুর দিক থেকে শনাক্তের হারে আবার ঊর্ধ্বমুখী প্রবণতা দেখা দেয়। জনস্বাস্থ্যবিদেরা বলছেন, টিকা আসার আগপর্যন্ত নতুন এই ভাইরাসের সংক্রমণ প্রতিরোধের মূল উপায় হলো স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলা মাস্ক পরা, কিছু সময় পরপর সাবান-পানি দিয়ে হাত ধোয়া, জনসমাগম এড়িয়ে চলা এবং সামাজিক দূরত্ব মেনে চলা। কিন্তু এই স্বাস্থ্যবিধিগুলো মেনে চলার ক্ষেত্রে ঢিলেঢালাভাব দেখা যাচ্ছে। এতে সংক্রমণ আবার বেড়ে যাওয়ার আশঙ্কা আছে।
চুয়াডাঙ্গা:
চুয়াডাঙ্গায় নতুন করে আরও দুইজনের শরীরে করোনা শনাক্ত হয়েছে। জেলায় এ নিয়ে মোট করোনা শনাক্ত হয়েছে ১ হাজার ৫৯১ জন। গতকাল সোমবার রাত ৮টায় জেলা সিভিল সার্জন অফিস এ তথ্য নিশ্চিত করেন। গতকাল জেলায় নতুন ৮ জন সুস্থ হয়ছে। এ নিয়ে জেলায় মোট সুস্থ হয়েছেন ১ হাজার ৪৮১ জন। গতকাল নতুন আক্রান্ত দুই জনের মধ্যে আলমডাঙ্গা উপজেলার ১ জন ও জীবননগর উপজেলার ১ জন। আক্রান্ত দুইজনই পুরুষ, বয়স ৫০ ও ৫৮ বছর।
জানা যায়, গত রোববার জেলা স্বাস্থ্যবিভাগ করোনা আক্রান্ত সন্দেহে নতুন ২০টি নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষার জন্য প্রেরণ করে। গতকাল ২০টি নমুনার ফলাফল সিভিল সার্জন অফিসে এসে পৌঁছায়। এর মধ্যে ২টি নমুনার ফলাফল পজিটিভ ও বাকি ১৮টি নমুনার ফলাফল নেগেটিভ আসে। গতকাল জেলা স্বাস্থ্য বিভাগ করোনা পরীক্ষার জন্য সদর উপজেলা থেকে ২৪টি, আলমডাঙ্গা থেকে ২টি ও দামুড়হুদা থেকে ২টি নমুনাসহ ২৮টি নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষার জন্য প্রেরণ করেছে।
চুয়াডাঙ্গা সিভিল সার্জন অফিসের সর্বশেষ তথ্যানুযায়ী জেলা থেকে এ পর্যন্ত মোট নমুনা সংগ্রহ ৬ হাজার ৮৮৫টি, প্রাপ্ত ফলাফল ৬ হাজার ৬৮৩টি, পজিটিভ ১ হাজার ৫৯১টি, নেগেটিভ ৫ হাজার ৩০৫টি। শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত জেলায় হোম আইসোলেশনে ছিলেন ৪৯ জন ও প্রাতিষ্ঠানিক আইসোলেশনে ছিলেন ৮ জন। চুয়াডাঙ্গা জেলায় করোনা আক্রান্ত হয়ে এ পর্যন্ত মোট মৃত্যুর সংখ্যা ৪১ জন, এর মধ্যে ৪ জনের মৃত্যু হয়েছে জেলার বাইরে।