দীপিকার সবচেয়ে কঠিন ছবি

11

বিনোদন ডেক্স:
অ্যাসিডে ক্ষতবিক্ষত দীপিকা পাড়ুকোনের মুখটা দেখে অনেকেই আঁতকে উঠেছিলেন। রীতিমতো প্রশংসার ঝড় বয়ে যায় এই লুকের। গ্ল্যামারাস অভিনেত্রী হয়ে এ ধরনের চরিত্রায়ণের জন্য দীপিকার ঝুলিতে বাহবাও জুটল অনেকের। আর দীপিকাও মনে করেন তাঁর ক্যারিয়ারের সবচেয়ে কঠিন ছবিটি হলো ছপাক। মেঘনা গুলজার পরিচালিত ‘ছপাক’ ছবিতে দীপিকাকে দেখা যাবে লক্ষ্মী আগারওয়াল নামক এক মেয়ের চরিত্রে। লক্ষ্মীর ওপর অ্যাসিড হামলা হয়েছিল। অ্যাসিড হামলার ফলে তার মুখ ক্ষতবিক্ষত হয়ে যায়। কিন্তু তার মনের জোরকে দমাতে পারেনি এই হামলা। ছবিটি নিয়ে সংবাদমাধ্যমকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে দীপিকা বলেন, ‘আমার জীবনের সবচেয়ে কঠিন ছবি এটি। চরিত্রের জন্য নয়, প্রসথেটিক মেকআপের কারণে। আমি খুবই ধৈর্যশীল। কিন্তু আমাকে ৪২ দিনের মধ্যে প্রতিটা দিন অনেক পরিশ্রম করতে হয়েছে।’ দীপিকা পাড়ুকোন ছবি: ইনস্টাগ্রাম দীপিকা পাড়ুকোন ছবি: ইনস্টাগ্রাম অ্যাসিডে ক্ষতবিক্ষত দীপিকা পাড়ুকোনের মুখটা দেখে অনেকেই আঁতকে উঠেছিলেন। রীতিমতো প্রশংসার ঝড় বয়ে যায় এই লুকের। গ্ল্যামারাস অভিনেত্রী হয়ে এ ধরনের চরিত্রায়ণের জন্য দীপিকার ঝুলিতে বাহবাও জুটল অনেকের। আর দীপিকাও মনে করেন তাঁর ক্যারিয়ারের সবচেয়ে কঠিন ছবিটি হলো ছপাক। মেঘনা গুলজার পরিচালিত ‘ছপাক’ ছবিতে দীপিকাকে দেখা যাবে লক্ষ্মী আগারওয়াল নামক এক মেয়ের চরিত্রে। লক্ষ্মীর ওপর অ্যাসিড হামলা হয়েছিল। অ্যাসিড হামলার ফলে তার মুখ ক্ষতবিক্ষত হয়ে যায়। কিন্তু তার মনের জোরকে দমাতে পারেনি এই হামলা। ছবিটি নিয়ে সংবাদমাধ্যমকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে দীপিকা বলেন, ‘আমার জীবনের সবচেয়ে কঠিন ছবি এটি। চরিত্রের জন্য নয়, প্রসথেটিক মেকআপের কারণে। আমি খুবই ধৈর্যশীল। কিন্তু আমাকে ৪২ দিনের মধ্যে প্রতিটা দিন অনেক পরিশ্রম করতে হয়েছে।’ ছপাক ছবির প্রযোজকদের একজন দীপিকা নিজেও। প্রযোজনা প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘আরও বেশি মানুষের কাছে পৌঁছানোর জন্য আমি প্রযোজনায় এসেছি। আমি চাই, আমার প্রযোজিত ছবির মাধ্যমে মানুষকে প্রভাবিত করতে। ছায়াছবি অনেক শক্তিশালী এক মাধ্যম। তাই এর ব্যবহার অনেক বুদ্ধিমত্তার সঙ্গে করা উচিত। আমি এখনো তা করে উঠতে পারিনি। তবে আমার ইচ্ছা এটাই।’ আগামী বছর শুরুতে মুক্তি পেতে পারে এই ছবি। এ ছাড়া ৮৩ ছবিতে দেখা যাবে দীপিকাকে। এই ছবিতে আছেন স্বামী রণবীর সিংও। বিয়ের পরে সিনেমাটির মাধ্যমে ফের একসঙ্গে দেখা যাবে দীপবীরকে। কবির খান পরিচালিত ৮৩ ছবির কাহিনি ভারতের ক্রিকেট বিশ্বকাপ জয়ের ওপর।