দিল্লির মসনদে তৃতীয়বার কেজরিওয়াল

19

বিশ্ব প্রতিবেদন
ভারতের দিল্লি বিধানসভা নির্বাচনে হ্যাটট্রিক জয় পেয়েছে অরবিন্দ কেজরিওয়ালের আম আদমি পার্টি। এর মধ্য দিয়ে তৃতীয়বারের মতো দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী হচ্ছেন কেজরিওয়াল। তিনি ঝাড়ূ হাতে খেলেছেন ঝড়ো ইনিংস। তাতেই উড়ে গেছে কেন্দ্রে ক্ষমতাসীন বিজেপির গেরুয়া শিবির। আর কংগ্রেসের নামনিশানাই খুঁজে পাওয়া যায়নি। পরপর দু’বার নিজেদের নাক কাটা গেলেও বিজেপির হার নিয়েই সন্তুষ্ট থাকতে হলো শতাব্দী প্রাচীন কংগ্রেসকে। দিল্লি বিধানসভার ৭০ আসনের ৬২টিতে জয় পেয়েছে কেজরিওয়ালের আম আদমি পার্টি। গতবারের চেয়ে পাঁচটি আসন কম পেয়েছে। তার পরও নিরঙ্কুশ সংখ্যাগষ্ঠিতা অর্জন করেছে। সরকার গঠন করতে যেখানে ৩৬ আসন প্রয়োজন, কেজরিওয়ালরা সেখানে ৬২ আসনে জয় পেয়েছেন। এ এক বিশাল জয়। দোর্দণ্ড প্রতাপশালী নেতা প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ যেন খড়কুটোর মতো উড়ে গেলেন কেজরিওয়ালের জনপ্রিয়তার হাওয়ায়। শনিবার ভোটের পর বুথফেরত জরিপে বিজেপির অন্তত ১৮টি আসন পাওয়ার আভাস মিলেছিল। সে পূর্বানুমান ভুল হলো। মাত্র আটটি আসন পেয়েছে তারা। অবশ্য গতবারের চেয়ে তা পাঁচটি বেশি। তবে এবার বিজেপির প্রাপ্ত ভোটের সংখ্যা গতবারের চেয়ে বেশি। প্রায় ৪০ শতাংশ ভোট পেয়েছে গেরুয়া শিবির। অন্যদিকে কোনো আসন না পাওয়া কংগ্রেস ২০১৫ সালের চেয়েও কম ভোট পেয়েছে। এবার তাদের ঝুলিতে ৪ শতাংশের মতো ভোট পড়েছে।
মঙ্গলবার ভোটের ফল প্রকাশের পর উৎসবে মেতে ওঠেন আম আদমির নেতাকর্মীরা। নেচে-গেয়ে উল্লাস করেছেন তারা। পাঞ্জাবের অমৃতসরেও উল্লাস করেছেন দলটির নেতাকর্মীরা। তবে সুনসান নীরবতা ছিল দিল্লিতে বিজেপির কার্যালয়ে। মহারাষ্ট্রের মতো নতুন ‘গেম’ খেলার সুযোগ না পেয়ে তাই ‘শোক পালন’ করেছে গেরুয়া শিবির। সকালে ফল প্রকাশের শুরুর দিকে অবশ্য বেশকিছু আসনে এগিয়ে ছিল বিজেপি। দলীয় কার্যালয়ের সামনে দলটি একটি ব্যানার টানিয়ে দেয়। কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহর ছবি সংবলিত সেই পোস্টারে লেখা ছিল- ‘জয় আমাদের অহংকারী করে না, হার আমাদের হতাশ করে না’। বিজেপির নেতাকর্মীরা শেষ মুহূর্ত পর্যন্ত ‘দৈব’ কিছু ঘটার আশায় ছিলেন।
বিকেলে দলীয় কার্যালয়ে বিজয় ভাষণ দেন কেজরিওয়াল। এ সময় নেতাকর্মীদের উদ্দেশে তিনি বলেন, ‘এই জয় মানুষের জয়। কাজে বিশ্বাস রেখে ভোট দিয়েছেন সবাই। নতুন রাজনৈতিক যুগের সূচনা হলো।’ তৃতীয়বারের মতো আম আদমি পার্টির ওপর ভরসা রাখার জন্য দিল্লির মানুষকে ধন্যবাদ দেন তিনি।