দামুড়হুদায় পৃথক দু’টি কর্মি সমাবেশে মনোনয়ন প্রত্যাশী হাশেম রেজা

153

অবহেলা-বঞ্চনার ব্যাথা ভূলে আসুন শেখ হাসিনার নৌকায়
নিজস্ব প্রতিবেদক: সকল অবহেলা-বঞ্চনার ব্যাথা ক্ষোভ আর হতাশা ভূলে আবারও আসুন শেখ হাসিনার নৌকায়। কারন নৌকা ছাড়া বাঙালীর অর্থনৈতিক মুক্তি সম্ভব নয়। যে মহান নেতা জাতির জনক বঙ্গবন্ধু বিশ্বের প্রাচীন রাজনৈতিক সংগঠন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সৃষ্ঠি করেছেন সেই বঙ্গবন্ধু’র হাত ধরেই স্বাধীন বাংলাদেশের জন্ম হয়েছে। তাইতো বলতে হয় তুমি জন্মেছিলে বলে জন্মেছিল এই দেশ, মুজিব তোমার আরেক নাম স্বাধীন বাংলাদেশ”। যে বঙ্গবন্ধুর জন্ম না হলে স্বাধীন বাংলাদেশের জন্ম হতো না, যে বঙ্গবন্ধুর জন্ম না হলে লাল-সবুজের এই মানচিত্রের সৃষ্ঠি হতোনা, সেই মহান নেতাকেই বাঙালী জাতির কিছু কুলাঙ্গার সন্তান আর তাদের বিদেশী দোসররা নির্মমভাবে হত্যা করেছে। সে কারণে জাতীয় শোকের মাসে আপনারা সবাই বঙ্গবন্ধুকে স্মরণ করুন, তাকে নিয়ে গবেষনা করুন, তার রাজনৈতিক দর্শন অনুসরন করুন। আর তার সারাজীবনের স্বপ্ন সোনার বাংলা বিনির্মানে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করুন।
গতকাল বৃহস্পতিবার বিকালে চুয়াডাঙ্গা-২ আসনের অধীন দামুড়হুদা উপজেলার নতিপোতা ইউনিয়নের কালিয়া বকরী প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠে ও পার্শ্ববর্তী হুদাপাড়া গ্রামে স্থানীয় আওয়ামী লীগ, যুবলীগ ও ছাত্রলীগ আয়োজিত পৃথক দু’টি কর্মি সমাবেশে এসব কথা বলেন মনোনয়ন প্রত্যাশী ও যুবলীগের কেন্দ্রিয় কমিটির সহ-সম্পাদক হাশেম রেজা।
জীবননগর উপজেলা যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক শরিফুল ইসলাম মিন্টুর সঞ্চালনায় ও আওয়ামী লীগ নেতা ই¯্রাফিল হোসেনের সভাপতিত্বে হাশেম রেজা আরো বলেন, আগামী একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আগেই আমাদের চুয়াডাঙ্গা-২ আসনের সকল ভোটারের কাছে যেতে হবে। কিন্তু তার আগে আমাদের দলীয় নেতাকর্মি বিশেষ করে আমাদের দলের সাংসদের অনিয়ম-দূর্নীতি ও বিভিন্ন অপকর্মের কারণে যারা নিস্ক্রিয় হয়ে পড়েছেন, সেই সকল সহজ-সরল নেতাকর্মি ও সমর্থকদেরকে আবারো দলীয় কর্মকা-ে সম্পৃক্ত করতে হবে। সংখ্যার দিক দিয়ে তারা কিন্তু একেবারে কম নয়, তাদেরকে উজ্জ্বীবিত করতে না পারলে এ আসন ধরে রাখা কোনভাবেই সম্ভব হবেনা। আমাদের বর্তমান সাংসদ তার এলাকায় কোন উন্নয়ন না করেও নিজে নিজেই উন্নয়নের কথিত রুপকার সেজে বসে আছেন। তিনি ঢাকাতে থাকেন, এলাকায় আসলে কেবল মাত্র দামুড়হুদা, জীবননগর আর দর্শনায় সরকারী কিছু নিয়ম রক্ষার সভায় যোগদান করে আবারো ঢাকায় ফিরে যান। তিনি যাদের ভোটে এমপি নির্বাচিত হয়েছেন, এখন আর তাদের কাছে যাননা, যেতে ভয় পান।
এ সময় উপস্থিত ছিলেন, দামুড়হুদা উপজেলা আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল হামিদ, হাসান মেম্বর, কামাল মেম্বর, জাহাঙ্গীর আলম, মাসুদ বিল্লাহ মন্টু, আব্দুল মজিদ মোল্লা, নতিপোতা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ নেতা মোহাম্মদ আলী, হাউলী ইউনিয়ন কৃষক লীগের সভাপতি আবুল হাশেম, নাটুদহের জসিম মেম্বর, আপেল উদ্দীন, রায়পুরের যুবলীগ নেতা শাহবুদ্দিন খান, যুবলীগ নেতা জহিরুল ইসলাম, আ. রহিম, করিম, রিপন, ইনামুল, লিটন, যুবলীগ নেতা নাজমুল হক ডেগার, ছাত্রলীগ নেতা রাসেল রিমু, রঞ্জু, লিটন, সাজিদুর রহমান কাদের, এইচএম হাকিম প্রমূখ।