তাপদাহে পুড়ছে ইউরোপ, ‘রেড অ্যালার্ট’ জারি

79

বিশ্ব ডেস্ক:
বিশ্ব উষ্ণায়নের চরম প্রভাবে ইউরোপের প্রতিটি অঞ্চল অসহনীয় গরমের মধ্য দিয়ে পার করছে। ইতোমধ্যে তাপদাহের কারণে মানুষের প্রাণহানির খবরও পাওয়া যাচ্ছে। এছাড়া হিট স্ট্রোকে আক্রান্ত হওয়ার ঘটনাও প্রকাশ্যে আসছে। ফ্রান্সের রাষ্ট্রীয় আবহাওয়া সংস্থা জানায়, শুক্রবার ফ্রান্সের দক্ষিণাঞ্চলের শহর গ্যালারগস-লি-মনটাক্সে বিকেল ৪ টা ২০ মিনিটে রেকর্ড করা হয়েছে ইতিহাসের সর্বোচ্চ ৪৫.৯ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা। বিবিসির এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, এটিই হচ্ছে এ যাবতকালে ফ্রান্সের সর্বোচ্চ তাপমাত্রার রেকর্ড। আবহাওয়াবিদ ইতিনি কাপিকান বলেন, এবার প্রথমবারের মতো তাপমাত্রা ৪৫ ডিগ্রি ছাড়াল। যা অস্বাভাবিক। এর আগে ২০০৩ সালে ফ্রান্সে সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ৪১.৫ ডিগ্রি ছিল এবং সে সময়ে তীব্র দাবদাহে একমাসে প্রায় ১৫ হাজার মানুষের মৃত্যু হয়েছিল। তীব্র এই গরমে ফ্রান্সের স্বাস্থ্যমন্ত্রী এগনেস বুজইয়ান সতর্ক করে দিয়ে বলেন, সবাই এখন ঝুঁকিতে আছে। ফ্রান্সের আবহাওয়া অফিস ইতোমধ্যে চারটি জায়গায় ‘রেড অ্যালার্ট’ জারি করেছে এবং প্রায় পুরো ফ্রান্স জুড়েই দ্বিতীয় সর্বোচ্চ সতর্কতা অরেঞ্জ অ্যালার্ট জারি আছে। রেডিও, টেলিভিশনসহ অন্যান্য প্রচারমাধ্যমগুলোতে নানাভাবে সাধারণ মানুষকে সতর্ক করা হচ্ছে। ফ্রান্সের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে বারবার প্রচার চালানো হচ্ছে এই অতিরিক্ত গরমে কী কী করা উচিত। গরমে যতটা সম্ভব বাইরে না বেরোনোই উচিত মনে করে নির্দেশনা দেওয়া হচ্ছে। প্রশাসনের পক্ষ থেকে সকলকে পানীয় ও সানস্ক্রিন সঙ্গে রাখার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে। এ বছর জুনে ফ্রান্সসহ জার্মানি, পোল্যান্ড, ইতালি, স্পেন এবং চেক প্রজাতন্ত্র তাপমাত্রা আগের সব রেকর্ড ছাড়িয়ে গেছে। তীব্র এ গরমে জনজীবন বিপর্যস্ত হয়ে উঠেছে। অতিষ্ট হয়ে উঠছে স্থানীয় অধিবাসীসহ বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে ইউরোপে আসা পর্যটকেরা।