ডিসি বরাবর ইউনিয়নবাসীর স্মারকলিপি

33

চুয়ডাঙ্গা সদরের কুতুবপুর ইউনিয়নকে বিভক্ত না করার দাবি
নিজস্ব প্রতিবেদক:
চুয়াডাঙ্গা সদরের কুতুবপুর ইউনিয়নকে বিভক্ত করে প্রস্তাবিত ‘ভুলটিয়া’ ও কুতুবপুর ইউনিয়নের প্রাথমিক তালিকা প্রকাশের বিরুদ্ধে আপত্তি জানিয়ে জেলা প্রশাসক বরাবর স্মারকলিপি প্রদান করেছে ইউনিয়নবাসী। ইউনিয়নের প্রায় ১২ হাজার মানুষের স্বাক্ষর করা এ স্বাক্ষরলিপিতে বিভাজন প্রক্রিয়া বন্ধ রাখার দাবি জানিয়েছেন তাঁরা। গতকাল সোমবার বেলা একটায় চুয়াডাঙ্গা জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে জেলা প্রশাসক নজরুল ইসলাম সরকারের কাছে এ স্মারকলিপি প্রদান করেন তাঁরা। এ সময় চুয়াডাঙ্গা জেলা প্রশাসক স্মারকলিপিটি আমলে নিয়ে তদন্তর্পূবক যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ করার আশ্বাস প্রদান করেন। এর আগে ইউনিয়নের কয়েকজন চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ওয়াশিমুল বারী ও প্রস্তাবিত ‘ভুলটিয়া’ ইউনিয়নের সীমানা নির্ধারণ কর্মকর্তা সদর উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা বিকাশ কুমার সাহার নিকট একই দাবিতে স্মারকলিপি প্রদান করেন।
স্মারকলিপিতে ইউনিয়নবাসী দাবি জানিয়েছে, একটি অশুভ চক্র ইউনিয়নের নাগরিকদের অজান্তেই ৩ নম্বর কুতুবপুর ইউনিয়ন পরিষদ বিভাজনের নাম করে মোকদ্দমা সৃষ্টির মাধ্যমে অবৈধভাবে অধিক সময় ক্ষমতায় থাকার অপচেষ্টা করছে। এলাকার কোনো দায়িত্বশীল ও গণ্যমান্য ব্যক্তির সঙ্গে আলোচনা না করে ইউনিয়নের দুটি সংরক্ষিত ও সাধারণ ওয়ার্ডের প্রাথমিক তালিকা প্রকাশ করা হয়েছে। যা ইউনিয়নবাসীর প্রত্যাশিত নয়। স্মারকলিপিতে তাঁরা আরও জানিয়েছেন, কুতুবপুর ইউনিয়ন প্রতিষ্ঠিত হওয়ার পর থেকে ইউনিয়নের প্রাতিষ্ঠানিক ও প্রশাসনিক কার্যক্রম সুষ্ঠু ও সুন্দরভাবে পরিচালিত হচ্ছে। সুতরাং এ ইউনিয়ন বিভাজনের কোনো প্রয়োজন নেই।
স্মারকলিপি প্রদানকালে উপস্থিত ছিলেন জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য শাখাওয়াত হোসেন, চুয়াডাঙ্গা সদর থানা ছাত্রলীগের সভাপতি জুয়েল রানা, ৮ নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক লোকমান হোসেন, ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের নেতা আক্তার হোসেন, আজিমউদ্দীন, আলম মেম্বার, চান মিয়া, মহাব্বত আলী, আনু ম-ল, আব্বাস আলী, আলী আহমেদ, যুবলীগের নেতা মুতালেব আলীম, ছাত্রলীগের নেতা মেহেদি, ছোট জুয়েল, রাজা, নাজমুল, আশরাফুল, হৃদয় প্রমুখ।