ডাকাতের অস্ত্রের কোপে দু’জন জখম : বোমা বিষ্ফোরণ

334

দামুড়হুদার কুনিয়া চাঁদপুরে মধ্যরাতে মুখোশধারীদের তান্ডব : গ্রামবাসীর প্রতিরোধ
ডাকাতের অস্ত্রের কোপে দু’জন জখম : বোমা বিষ্ফোরণ
নিজস্ব প্রতিবেদক: চুয়াডাঙ্গা দামুড়হুদার কুনিয়া চাঁদপুরের এক বাড়িতে তা-ব চালিয়েছে একদল ডাকাত। এসময় বাড়ির সদস্যদের চিৎকারে প্রতিবেশীরা ছুটে এসে প্রতিরোধ করলে দুইজনকে কুপিয়ে জখম করে তারা। পরে স্থানীয়দের প্রতিরোধের মুখে বোমার বিষ্ফোরণ ঘটিয়ে পিছু হটে ডাকাতরা। গতরাত ১টার দিকে এঘটনা ঘটে। আহতদের মধ্যে একজনকে চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতাল এবং অপরজনকে দামুড়হুদা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। তবে পুলিশ বলেছে, সেখানে ডাকাতির কোন ঘটেনি। কয়েকজন গ্রামের মধ্যে ঢুকেছিলো, তবে গ্রামবাসীর প্রতিরোধের মুখে তারা পিছু হটে।
জানা গেছে, গতরাত ১টার দিকে দামুড়হুদার কুনিয়া চাঁদপুর পশ্চিমপাড়ার তাজের আলীর বাড়িতে হামলা চালায় মুখোশধারী একদন ডাকাত। মাথায় লাল গামছা বাঁধা ৮/১০ অস্ত্রধারী ডাকাত তাজের আলীর পরিবারের সদস্যদের অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে নির্বিঘেœ ডাকাতির সময় চিৎকার দেন আজিজুলের ছেলে সুমন। এসময় ডাকাতদের ধারালো অস্ত্রের কোপে সুমন জখম হয়। পরিবারের অন্যান্য সদস্যদের চিৎকারে আশপাশের লোকজন ছুটে এসে প্রতিরোধ গড়ে তোলে। প্রতিবেশী মৃত মুছা করিমের ছেলে হাবিবুর রহমান ডাকাতদলের সামনে গেলে তাকেও কুপিয়ে জখম করে ডাকাতেরা। পরে এলাকাবাসীর প্রতিরোধের মুখে পিছু হটে ডাকাতদল। মুখোশধারী ডাকাতদল বোমার বিষ্ফোরণ ঘটিয়ে চলে যায়। পরে স্থানীয়রা জখম হাবিবুর ও সুমনকে উদ্ধার করে দামুড়হুদা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে। হাবিবুরের অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় গতরাতেই তাকে চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে নেয়া হয়েছে।
এ বিষয়ে দামুড়হুদা মডেল থানার সেকেন্ড অফিসার এসআই আনোয়ার হোসেন জানান, কুনিয়া চাঁদপুর গ্রামে কোন ডাকাতির ঘটনা ঘটেনি। মধ্যরাতে ৫/৬ জন ওই গ্রামে ঢুকেছিলো, তবে গ্রামবাসীর প্রতিরোধের মুখে তারা পালিয়ে যায়।