টিটিসিগুলোতে নতুন ট্রেড চালুর পরিকল্পনা করছে সরকার

35

চুয়াডাঙ্গায় প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের সচিব ড. আহমেদ মুনিরুছ সালেহীন
নিজস্ব প্রতিবেদক:
প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের সচিব ড. আহমেদ মুনিরুছ সালেহীন বলেছেন, বিদেশের শ্রমবাজারে দক্ষ জনশক্তি প্রেরণের লক্ষ্যে সরকার কারিগরি প্রশিক্ষণ কেন্দ্রগুলোতে যুগোপযোগী ও বিশেষ চাহিদা সম্পন্ন নতুন নতুন ট্রেড চালুর পরিকল্পনা করছে। যথাযথ প্রশিক্ষণ দিয়ে অধিক সংখ্যক দক্ষ কর্মী বিদেশে প্রেরণ করতে পারলে রেমিট্যান্সের ঊর্ধ্বগতি অব্যাহত থাকবে। এছাড়াও যেসব জেলা থেকে কম সংখ্যক কর্মী বিদেশে যায়, সেসব জেলা থেকে সরকার অধিক সংখ্যক দক্ষ কর্মী বিদেশে প্রেরণের উদ্যোগ নিয়েছে। প্রবাসী আয় আমাদের অর্থনীতির অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ একটি খাত। এই খাতকে এগিয়ে নিতে আমাদেরকে আরও সচেষ্ট হতে হবে। দক্ষ মানবসম্পদ তৈরি করে প্রবাসী আয় বৃদ্ধির জন্য আমাদেরকে নতুন নতুন উদ্যোগ গ্রহণ করতে হবে। বিদেশে এখন দক্ষ ও প্রযুক্তি জ্ঞান সম্পন্ন কর্মীদের চাহিদা অনেক। তাই প্রশিক্ষণ কেন্দ্রগুলোতে যুগোপযোগী কোর্স তৈরি করতে হবে।
চুয়াডাঙ্গা কারিগরি প্রশিক্ষণ কেন্দ্রের প্রশিক্ষক-কর্মচারীদের সঙ্গে আলোচনা ও মতিবিনিময় সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। গতকাল শুক্রবার বেলা ১১টায় চুয়াডাঙ্গা কারিগরি প্রশিক্ষণ কেন্দ্রের মিলনায়তনে এ আলোচনা ও মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়।
সভায় সচিব ড. আহমেদ মুনিরুছ সালেহীন প্রশিক্ষকদের দৃষ্টি আকর্ষণ করে বলেন, প্রশিক্ষণ দিতে হলে আগে নিজেদেরকে তৈরি করতে হবে। ভালোভাবে জানতে হবে। তারপর ভালো প্রশিক্ষণ দেওয়া যাবে। নিজে দক্ষ হয়ে, অন্যকে দক্ষ করতে হবে। আন্তরিকতার সঙ্গে কাজ করতে হবে। প্রশিক্ষণ ও সেবার মান যাতে ভালো হয়, সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে। সনির্ভর কোর্স কমিয়ে নিয়মিত কোর্স বৃদ্ধির তাগিদ দিয়ে সচিব ড. আহমেদ মুনিরুছ সালেহীন আরও বলেন, সরকার যেটি আপনাদের পিছনে খরচ করছে, সেটির মান দিতে হবে। সরকারি অর্থে আপনাদের বেতন হচ্ছে। তাই সরকারি সেবার মান আরও বেশি বৃদ্ধি করতে হবে। বেশকিছু টিটিসি আছে, যেখানে নিয়মিত কোর্সে সংখ্যার সঙ্গে সনির্ভর কোর্সের সংখ্যাও কম নয়। কিন্তু সনির্ভর সংখ্যা বেশি না করে নিয়মিত কোর্সে বেশি মনোযোগী হোন। মানুষ যাতে বোঝে সরকার বিনামূল্যে প্রশিক্ষণ দিচ্ছে। মানুষকে জানাতে হবে। প্রচার করতে হবে। কোর্সে অংশগ্রহণকারীর সংখ্যা বাড়াতে হবে।
আলোচনা ও মতবিনিময় সভায় বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জনশক্তি কর্মসংস্থান ও প্রশিক্ষণ ব্যুরোর মহাপরিচালক (অতিরিক্ত সচিব) শামছুল আলম। তিনি বলেন, আন্তরিক হতে হবে। আন্তরিকতার সঙ্গে দক্ষ জনসম্পদ তৈরিতে কাজ করতে হবে। কারিগরি প্রশিক্ষণ কেন্দ্র দক্ষ জনসম্পদ তৈরিতে অগ্রণী ভূমিকা পালন করবে। এখন আপনাদের ওপর নির্ভর করবে মাঠ পর্যায়ে কীভাবে আপনারা দক্ষ জনসম্পদ তৈরি করবেন। আলোচনা ও মতমিনিময় সভার আগে অতিথিবৃন্দ চুয়াডাঙ্গা কারিগরি প্রশিক্ষণ কেন্দ্র প্রাঙ্গণে বৃক্ষরোপণ করেন।
চুয়াডাঙ্গা কারিগরি প্রশিক্ষণ কেন্দ্রের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ মো. মুছাব্বেরুজ্জামানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জনশক্তি কর্মসংস্থান ও প্রশিক্ষণ ব্যুরোর উপ-পরিচালক মো. জাহাঙ্গীর হোসেন ও মেহেরপুর কারিগরি প্রশিক্ষণ কেন্দ্রের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ আরিফ হোসেন তালুকদার।
প্রশিক্ষক রেখা হালদারের উপস্থাপনায় এ সময় আরও উপস্থিত ছিলেন চুয়াডাঙ্গা কারিগরি প্রশিক্ষণ কেন্দ্রের প্রশিক্ষক আনোয়ার কবির, মনিরুজ্জামান, সাখাওয়াত হোসেন, আল আমিন বিশ্বাস, সিদ্দিক ইসলাম, সালাম, আলামিন, কায়সার আলম, মঈনুল ইসলাম শুভ, মঈনুদ্দিন চিশতি, রাবেয়া বসরি, জাহাঙ্গীর হোসেন প্রমুখ।