জীবননগর গঞ্জের মেলায় মঞ্চের সামনে শিল্পীর গানের তালে নাচানাচি করতে যেয়ে : পায়ের ওপর পা পড়ায় যুবকের গলায় ছুঁরির পোঁচ

253

জীবননগর অফিস: জীবননগর পৌর শহরে সাতদিন ব্যাপী অনুষ্ঠিত গঞ্জের মেলার গতকাল শেষ রাতে মঞ্চে শিল্পীর গানের তালে তালে শিশু-কিশোরদের নাচানাচির একপর্যায়ে পায়ের ওপর পা পড়ার অপরাধে এক কিশোরকে ছুরি দিয়ে পোঁচ দিয়ে রক্তাক্ত জখমের ঘটনা ঘটেছে। ঘটনাটি শুক্রবার রাত সাড়ে ১১টার দিকে এঘটনা ঘটে। চিকিৎসক জানান অল্পের জন্য রক্ষা পেয়েছে ওই কিশোর। আহত কিশোরকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এ ঘটনায় মেলার নিরাপত্তা নিয়ে শঙ্কিত এলাকাবাসী। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, জীবননগর পৌর শহরের দৌলৎগঞ্জ-রাজনগরের মাঝমাঝি অবস্থানে প্রতি বছরের ন্যায় এবারও বৈশাখ মাসের ৬ তারিখ থেকে সাতদিন ব্যাপী গঞ্জের মেলা বসে। এ মেলা শুরু হওয়ার পর থেকে বেশ কয়েক বছর সব কিছু ভাল ভাবে চললেও এ বছর নানা কারণে মেলার স্বাভাবিক কার্যক্রম বাধাগ্রস্থ হয়। ফলে শুরুতেই মেলার নিরাপত্তা ব্যবস্থা ভেঙ্গে পড়ে। এ অবস্থার মধ্যে গতকাল শুক্রবার ছিল মেলার শেষ দিন। মেলার শেষ দিনে ঢাকা থেকে আগত শিল্পীদের সমন্বয়ে রাতে গঞ্জের মেলার বৈঠকখানা নামক মঞ্চে শিল্পীরা গান পরিবেশন করা কালে মঞ্চের সামনে উপবিষ্ট শিশু-কিশোর ও যুবকেরা মনের আনন্দে নাচানাচিতে মেতে ওঠে। এক পর্যায়ে মনের অজান্তে দৌলৎগঞ্জের শওকত আলীর ছেলে কিরণের (১৮) পা ৬ নং ওয়ার্ডের গাঙপাড়ার সাদেক আলীর ছেলে রাজুর পায়ের ওপর পড়ে। এই ঘটনায় রাজুসহ তার অজ্ঞাত ৩-৪ জন বন্ধু ক্ষুব্ধ হয়ে কিরণের গলায় ছুঁরি দিয়ে পোঁচ দেয় বলে অবিযোগ উঠেছে। আহত কিরণ সাংবাদিকদের বলেন, গঞ্জের মেলার মঞ্চে গান হচ্ছিল, ওই সময় আমি ও আমার পাশে রাজু এবং তার কয়েকজন বন্ধু গান শুনছিলাম। একপর্যায়ে আমরা গানের সাথে সবাই মিলে নাচ শুরু করি। নাচানাচিতে আমার পা রাজুর পায়ের ওপরে পড়েছে এই অপরাধে রাজু ও তার কয়েক বন্ধু আমাকে সেখানেই মারপিট শুরু করে দেয়। এক পর্যায়ে রাজু একটি ছুঁরি দিয়ে আমার গলায় পোঁচ দিলে আমার সাথে তার ধস্তাধস্তি হয়। আমার গলায় ছুঁরির পোঁচে মারাত্মক রক্তাক্ত জখম হয়েছে। রক্তাক্ত অবস্থায় আমি বাঁচার জন্য গলা চেপে ডাক চিৎকার করতে থাকলে লোকজন আমাকে উদ্ধার করে জীবননগর হাসপাতালে এনে ভর্তি করেন। জীবননগর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা.নাজমুল আরেফিন বলেন, আহত রাজুর অবস্থা আশঙ্কামুক্ত। তার গলায় ধারালো অস্ত্র দিয়ে আঘাত করা হয়েছে। তবে অল্পের জন্য আহত কিরণ প্রাণে রক্ষা পেয়েছে। আঘাতের ধরণ খুব বেশী হলে তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য বাইরে যেতে হতো। এ ব্যাপারে জীবননগর থানার ডিউটি অফিসার এএসআই নাজমুল হক বলেন, ঘটনার বিষয়ে মেলা কর্তৃপক্ষ আমাদের কিছু জানায়নি। এবং এবিষয়ে থানায় কেউ অভিযোগও করেনি।