জীবননগরে কলেজ ছাত্রর নামে মিথ্যা অভিযোগ : তুলে নেওয়ার প্রতিবাদে এলাকাবাসীল গণস্বাক্ষর

326

নিজস্ব প্রতিবেদক: জীবননগর পৌর শহরের শাপলাকলিপাড়ায় কথিত ডাকাতির ঘটনাকে কেন্দ্র করে সন্দেহমূলকভাবে জীবননগর ডিগ্রি কলেজের মেধাবী ছাত্র মিঠুর নামে মিথ্যা অভিযোগ তুলে নেওয়ার প্রতিবাদে এলাকাবাসী গণস্বাক্ষর ও প্রতিবাদ সভা করেছে। জানা গেছে, জীবননগর পৌর এলাকার ৭নং ওয়ার্ড শাপলাকলিপাড়ার রেজাউল হোসেনের স্ত্রী বোম্বে ফেরত এলাকার চিহ্নিত সুদ ব্যবসায়ী নামে খ্যাত চাঁন বানুর বাড়িতে গত কয়েক দিন আগে ডাকাতির ঘটনা ঘটে এই ঘটনায় তাকে কুপিয়ে তার বাড়ি থেকে ৮ভরি স্বর্ণের গহনা ডাকাতি হয়েছে বলে অভিযোগ উঠে। এ ঘটনায় চাঁন বানু তাৎক্ষনিকভাবে কাওকে না চিনতে পারলেও একটি মহলের ছত্র ছায়ায় জীবননগর থানায় একটি নিরিহ কলেজ ছাত্রের নামে মিথ্যা মামলা দিয়ে তাকে ফাঁসানোর অভিযোগ উঠেছে। মেধাবী এ ছাত্রের নামে থানায় মিথ্যা অভিযোগ করায় গত শুক্রবার বিকালে ৭নং ওয়ার্ডবাসী সকলে একত্রিত হয়ে এ অভিযোগের তীব্র নিন্দা জানিয়ে প্রতিবাদ করে এবং অভিযোগ তুলে নেওয়ার জন্য গণস্বাক্ষর করে। অভিযোগ না তুললে পরবর্তীতে মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সভা করবে বলেও এসময় এলাকাবাসী সাংবাদিকদের জানায়। এ ব্যাপারে চাঁন বানুর বর্তমান স্বামী রেজাউলের সাথে কথা বললে তিনি বলেন, চাঁন বানু দশ বছর আগে আমার সাথে বিয়ে করে, সে অনেক দিন বোম্বে ছিল এবং গত কয়েক বছর আগে আমাকে তালাক দিয়ে দেয়, যে দিন তার বাড়িতে ডাকাতি হয় তার পরের দিন তার বোন আমার বাড়িতে যেয়ে হুমকি দিয়ে বলে যদি আমার বোনের সাথে তুই আবার বিয়ে না করিস তা হলে তোর নামে ডাকাতির মামলা দেব। আমি তাদের ভয়তে বাধ্য  হয়ে আবার তার সাথে বিয়ে করি। এ ব্যাপারে ৭নং ওয়ার্ড কাউন্সিলার ওয়াসিম রাজার সাথে কথা বললে তিনি বলেন, চাঁন বানুর বাড়িতে যে ডাকাতি হয়েছে এটা আমি শুনেছি এবং তার চিকিৎসার ব্যপারে আমি জীবননগর হাসপাতালে গিয়ে ছিলাম তখন তাকে আমি জিজ্ঞাসা করলে সে বলে আমি কাওকে চিনতে পারিনি অথচ তার দুই দিন পরেই একটি মেধাবী ছাত্রের নামে থানায় মিথ্যা অভিযোগ করে, পুলিশ দিয়ে তাকে হয়রানি করছে বলে এলাকাবাসী ও ছাত্রের পরিবারের সদস্যরা জানান। তিনি আরও বলেন কলেজ ছাত্র মিঠুর নামে মিথ্যা অভিযোগ করায় গত শুক্রবার মহল্লাবাসী সকলে একত্রিত হয়ে একটি প্রতিবাদ ও গণস্বাক্ষর করেন সেখানে আমাকে ডাকলে আমি ঘটনাস্থলে যায় এবং তারা কলেজ ছাত্রের নামে করা মিথ্যা অভিযোগ তুলে না নিলে বিভিন্ন কর্মসূচি দেবে বলে আমাকে জানায়। এ ব্যাপারে যুবলীগ নেতা খাইরুল বাশার শিপলু, শাহ শরিফুল ইসলাম ছোট বাবু, জুয়েল ও পৌর ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক নাজমুল আলম মানিকের সাথে কথা বললে তারা বলেন যে সময় ডাকাতির ঘটনা ঘটে ওই সময় মিঠু আমাদের সাথে ছিল তার নামে থানায় যে অভিযোগ কার হয়েছে এটা সম্পন্ন মিথ্যা অভিযোগ দায়ের করেছে। এদিকে এলাকাবাসীর মধ্যে একটি প্রশ্ন উঠেছে চাঁন বানুর সুদের ক্ষপ্পরে পড়ে অনেকেই নিঃস্ব হয়ে পড়েছে তার কারনে এলাকাবার যুব সমাজ ধ্বংস হচ্ছে অথচ সে একটি মেধাবী ছাত্রের নামে মিথ্যা অভিযোগ করেছে সেই পরিপেক্ষিতে পুলিশ তদন্ত ছাড়াই তাকে হয়রানি করছে। তাই এলাকাবাসীসহ সুশিল সমাজের সকলে একটি সুষ্ঠু তদন্তের জন্য পুলিশ প্রশাসনের আশু হস্তক্ষেপ কামনা করছেন।