জিয়াউর রহমানের ৮৪তম জন্মবার্ষিকী আজ

97

সমীকরণ প্রতিবেদন:
বিএনপি’র প্রতিষ্ঠাতা ও সাবেক প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানের ৮৪তম জন্মবার্ষিকী আজ। বিভিন্ন কর্মসূচির মধ্যদিয়ে বিএনপি ও তার অঙ্গসংগঠন দিনটি পালন করছে। জন্মবার্ষিকী ঘিরে দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বাণী দিয়েছেন। ১৯৩৬ সালের ১৯শে জানুয়ারি তিনি বগুড়ার গাবতলী উপজেলায় নিভৃত পল্লী বাগবাড়ীর এক সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। ১৯৮১ সালে কতিপয় বিপদগামী সামরিক কর্মকর্তাদের হাতে প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমান চট্টগ্রাম সার্কিট হাউসে মর্মান্তিকভাবে নিহত হন। জিয়াউর রহমানের ছেলেবেলা কেটেছে কলকাতায়। তার বাবা মনসুর রহমান তৎকালীন কেন্দ্রীয় সরকারের উচ্চপর্যায়ের একজন বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ছিলেন। কলকাতার হেয়ার স্কুলে জিয়া ৭ম শ্রেণী পর্যন্ত লেখাপড়া করেন। ১৯৪৭ সালে দেশ বিভাগের সময় পরিবারের সঙ্গে শিশু জিয়া করাচী চলে যান। সেখানে কেটেছে তার স্কুল ও কলেজ জীবন। করাচীর ডি জে কলেজে পড়ার সময় ১৯৫৩ সালে পাকিস্তান সামরিক একাডেমিতে একজন অফিসার ক্যাডেট হিসাবে যোগদান করেন। ১৯৬৭ সালের এপ্রিল মাসে জিয়াউর রহমান ঢাকার অদূরে জয়দেবপুর সাব ক্যান্টনমেন্টে ইস্টবেঙ্গল রেজিমেন্টের দ্বিতীয় ব্যাচে লিয়নে সেকেন্ড-ইন-কমান্ড হিসাবে যোগদান করেন। ১৯৭০ সালের সেপ্টেম্বর মাসে তাকে চট্টগ্রামে বদলি করা হয়। তার ঘাঁটি ছিল ষোলশহর বাজারে। জিয়াউর রহমানের ৮৪তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে আজ রোববার সকাল ১০টায় বিএনপি’র জাতীয় নেতৃবৃন্দ শেরেবাংলা নগরে জিয়াউর রহমানের মাজারে ফাতেহা পাঠ ও পুষ্পার্ঘ অর্পণ করবেন। দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়সহ সারাদেশের কার্যালয়ে দলীয় পতাকা উত্তোলন করা হবে। দিবসটি উপলক্ষে বিএনপি’র উদ্যোগে আজ বেলা ২টায় রমনায় ইঞ্জিনিয়ার্স ইন্সটিটিউশন মিলনায়তনে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হবে। অনুরূপভাবে সারাদেশে মহানগর ও জেলা পর্যায়ের ইউনিটসমূহ নিজেদের সুবিধানুযায়ী যথাযথযোগ্য মর্যাদায় দিবসটি পালনে উদ্যোগ নিয়েছে। সকাল ১১টায় নয়াপল্টনে বিএনপি কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের নীচতলায় ডক্টরস এ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (ড্যাব) এর উদ্যোগে ফ্রি মেডিকেল ক্যাম্পে বিনামূল্যে চিকিৎসা সেবা প্রদান করা হবে।