জিপু পৌর নাগরিকদের নিরন্তর সেবা দিয়ে যাচ্ছে

165

চুয়াডাঙ্গায় রাস্তার নির্মাণকাজের উদ্বোধনকালে সিআইপি দিলীপ কুমার আগরওয়ালা
নিজস্ব প্রতিবেদক:
চুয়াডাঙ্গা পৌরসভার ৩নং ওয়ার্ডের পোস্ট অফিসপাড়ায় প্রিন্সপ্লাজার পাশের রাস্তার নির্মাণ কাজের উদ্বোধন করা হয়েছে। গুরুত্বপূর্ণ নগর অবকাঠামো উন্নয়ন প্রকল্পের অর্থায়নে চুয়াডাঙ্গা পৌরসভার আওতায় এ নির্মাণকাজ হবে। গতকাল বৃহস্পতিবার বিকাল সাড়ে চারটায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে এ নির্মাণকাজের উদ্বোধন করেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের শিল্প ও বাণিজ্য বিষয়ক কেন্দ্রীয় উপ-কমিটির সদস্য, বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশনের সহসভাপতি, তারা দেবী ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান, ডায়মন্ড ওয়ার্ল্ডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক, এফবিসিসিআই-এর সহসভাপতি, ইউনিয়ন গ্রুপের পরিচালক, বাংলাদেশ জুয়েলারি সমিতির সাধারণ সম্পাদক দিলীপ কুমার আগরওয়ালা সিআইপি, এনডিসি।
প্রধান অতিথির বক্তব্যে দিলীপ কুমার আগরওয়ালা সিআইপি, এনডিসি বলেন, আমি ব্যক্তিগতভাবে জিপুকে চিনি। সে চুয়াডাঙ্গা পৌরসভার সাধারণ নাগরিকদের নিরন্তর সেবা দিয়ে যাচ্ছেন। সে সাধারণ নাগরিকদের নিয়ে ভাবে। আজ পৌরসভার যে প্রজেক্টগুলোর কাজ হচ্ছে, সেগুলো নিয়ে আসতে তার কঠোর পরিশ্রম করতে হয়েছে। আমি একবার দেখেছি, সে এক সচিবের সাথে দেখা করতে চার ঘণ্টা অপেক্ষা করছে। আজ যেই উন্নয়নমূলক কাজগুলো হচ্ছে, সেগুলো তার কঠোর পরিশ্রমের ফসল। সে আমার কাছেও বিভিন্ন জায়গায় সুপারিশের জন্য বলে। আমি বলে দিই। বিভিন্ন জায়গায় বলেছি। এই পৌরসভার উন্নয়নের জন্য জিপুকে মেয়র হিসেবে আবার পেলে উপকৃত হবে চুয়াডাঙ্গার মানুষ। এই শহরের উন্নয়ন হবে আরো অনেক বেশি।
উদ্বোধনের সময় স্থানীয় বাসিন্দাদের কাজ দেখে নেওয়ার আহ্বান জানিয়ে মেয়র ওবায়দুর রহমান চৌধুরী জিপু বলেন, আমি আপনাদের সাথে নিয়ে এই কাজের উদ্বোধন করছি, তার একটাই কারণ। সেটি হচ্ছে কাজ এবং কাজের অনুসাঙ্গিক প্রতিটি বিষয়ই যেন আপনারা জানতে পারেন। এর আগে হয়ত কখনোই এভাবে আপনাদের জানানো হয়নি। বলা হয়নি কাজে কোন উপাদান কি পরিমাণে ব্যবহার করা হবে। আমি ১০০ শতাংশ স্বচ্ছতার মাধ্যমে কাজ করতে চাই। তাই আপনাদের জানাতে নিজে এসেছি। একই সাথে আমি নিজে তদারকি করবো, তদারকি করবে পৌরসভার কর্মকর্তা-কর্মচারী। সেই সাথে কাজের সাইটে বসানো হবে সিসিটিভি ক্যামেরা। কাজে ফাঁকি দেওয়ার কোনো সুযোগ নেই।
এসময় উপস্থিত ছিলেন, চুয়াডঙ্গা পৌরসভার কাউন্সিলর নাজরিন পারভীন, শাহিনা আক্তার রুবি, স্থানীয় বাসিন্দা ও পৌর কলেজের সাবেক অধ্যাপক শেখ সেলিম, সহকারি প্রকৌশলী হাফিজুর রহমান কাওসার, উপ-সহকারি প্রকৌশলী আনিসুজ্জমান, বস্তি উন্নয়ন কর্মকর্তা কে এম আব্দুস সবুর খান, ঠিকাদার সৈয়দ ফরিদ আহমেদ, জেলা স্বেচ্ছাসেবকলীগ সদস্য ও জেলা দোকান মালিক সমিতির প্রচার সম্পাদক মাফিজুর রহমান মাফি, জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মো. জানিফ, স্বেচ্ছাসেবকলীগ নেতা ইমরান, মামুন, মাসুম, তানভীর, ২নং ওয়ার্ড স্বেচ্ছাসেবকলীগের সাধারণ সম্পাদক মিলন, সাবেক ছাত্রলীগ নেতা আরাফাত প্লাবন, ছাত্রলীগ নেতা ইসমাইল, ইশতিয়াক সিথুন, টুটুল, মুস্তাফিজ, স্থানীয় বাসিন্দা লেবু, আকুল, ফারুক, জাকির, বাচ্চু, আহসান খান, আরাফাত, বকুল, নিশান, সিদ্দিকি প্রমুখ।