জিপু চৌধুরীসহ মেয়র পদে ১০ জনের মনোনয়নপত্র সংগ্রহ

291

চুয়াডাঙ্গা পৌরসভা নির্বাচনে এ পর্যন্ত সংরক্ষিত কাউন্সিলর ১২ ও কাউন্সিলর পদে ৫৮ প্রার্থী
সমীকরণ প্রতিবেদক:
চুয়াডাঙ্গা পৌরসভার নির্বাচনে মেয়র পদে আরও ৪ জন, সংরক্ষিত কাউন্সিলর পদে ৪ জন এবং সাধারণ কাউন্সিলর পদে ১৩ জন প্রার্থী মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেছেন। গতকাল বুধবার রিটার্নিং কর্মকর্তার কার্যালয় থেকে এ তথ্য জানা গেছে। ইভিএমের মাধ্যমে আগামী ২৮ ডিসেম্বর পৌরসভার ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে। এনিয়ে মেয়র পদে ১০ জন, সংরক্ষিত কাউন্সিলর পদে ১২ জন এবং সাধারণ কাউন্সিলর পদে ৫৮ জন প্রার্থী হয়েছেন।
এদিকে, চুয়াডাঙ্গা পৌরসভা নির্বাচনে পুনরায় মেয়র জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের আহ্বায়ক ও পৌর মেয়র ওবায়দুর রহমান চৌধুরী জিপুর পক্ষে মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করা হয়েছে। গতকাল বুধবার জেলা নির্বাচন অফিসার ও পৌর নির্বাচনের রির্টানিং অফিসার তারেক আহম্মেদের কাছ থেকে ওবায়দুর রহমান চৌধুরী জিপুর পক্ষে মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেন আওয়ামী লীগ নেতা ওমর আলী, বাবর মন্ডল, জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সদস্য ও জেলা ক্রীড়া সংস্থার সহসভাপতি অধ্যক্ষ মাহবুল ইসলাম সেলিম, জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের যুগ্ম আহ্বায়ক মতিয়ার রহমান মতি, জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মো. জানিফ, জেলা দোকান মালিক সমিতির প্রচার সম্পাদক ও স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা মাফিজুর রহমান মাফি, পৌর ছাত্রলীগের সহসভাপতি জাহাঙ্গীর হোসেন প্রমুখ।

এছাড়া গতকাল বুধবার মেয়র পদে বিএনপি নেতা খন্দকার আব্দুল জব্বার সোনা, যুবদল নেতা শরিফ উর জামান সিজার, অ্যাড. সৈয়দ ফারুক উদ্দিন আহম্মেদ এবং অ্যাড. মনিবুল হাসান পলাশ মনোনয়নপত্র উত্তোলন করেন। এর আগে মেয়র পদে সাবেক মেয়র রিয়াজুল ইসলাম জোয়ার্দ্দার টোটন, যুবলীগ নেতা শরীফ হোসেন দুদু, আক্তারুজ্জামান, ইসলামী আন্দোলনের প্রার্থী তুষার ইমরান এবং তানভীর আহমেদ মাসরিকী মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেন। চুয়াডাঙ্গা পৌরসভার মোট ভোটার ৬৭ হাজার ৭৭৪ জন। এর মধ্যে ১ নম্বর ওয়ার্ডে ৭৯৯৮ জন, ২ নম্বর ওয়ার্ডে ৭৯০০ জন, ৩ নম্বর ওয়ার্ডে ৬১৫২ জন, ৪ নম্বর ওয়ার্ডে ৬৩৭০ জন, ৫ নম্বর ওয়ার্ডে ৭৫১৯ জন, ৬ নম্বর ওয়ার্ডে ৮৬০২ জন, ৭ নম্বর ওয়ার্ডে ৮৪৯৮ জন, ৮ নম্বর ওয়ার্ডে ৭৬৭৫ জন এবং ৯ নম্বর ওয়ার্ডে ৭০৬০ জন। নির্বাচনে ৩৩ কেন্দ্রে ভোট গ্রহণ করা হবে।
মেয়র পদে প্রার্থীরা ব্যক্তিগত ব্যয় ৩০ হাজার টাকা এবং নির্বাচনী ব্যয় ৪ লাখ করতে পারবে। ওয়ার্ডের ক্ষেত্রে প্রার্থীরা ব্যক্তিগত ব্যয় ৫-৭ হাজার টাকা এবং সংরক্ষিত কাউন্সিলর পদে ১৫ হাজার টাকা ব্যয় করতে পারবে। কাউন্সিলর পদে ৫০ হাজার টাকা এবং সঙরক্ষিত কাউন্সিলর পদে ২ লাখ টাকা নির্বাচনী ব্যয় করতে পারবেন। মেয়র পদে দলীয় প্রতীক এবং স্বতন্ত্র পদে ১০০ জনের স্বাক্ষর করে মনোনয়নপত্র জমা দিতে হবে। কাউন্সির পদে প্রতীকের কোন প্রয়োজন হবে না।
রিটার্নিং কর্মকর্তা ও জেলা নির্বাচন অফিসার তারেক আহমেমদ জানান, আগামী ১ ডিসেম্বর পর্যন্ত মনোনয়নপত্র সংগ্রহ ও জমা দেয়া যাবে। আগামী ২৮ ডিসেম্বর ইভিএম’র মাধ্যমে ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে।