জান্নাতে যাওয়ার পথ

455

ধর্ম ডেস্ক: মহান আল্লাহ বলেন, ‘আর যে আল্লাহ ও তার রাসুলের আনুগত্য করে আল্লাহ তাকে প্রবেশ করাবেন জান্নাতসমূহে, যার তলদেশে প্রবাহিত রয়েছে নহরসমূহ। সেখানে তারা স্থায়ী হবে। আর এটা মহা সফলতা’ (সূরা নিসা: ১৩)। জান্নাতে যাওয়ার পথ ও পাথেয় হচ্ছে, আল্লাহ ও তার রাসুলের আনুগত্য করা, কোরান-হাদিসের জ্ঞান অর্জন করা, নিজের মধ্যে ইমান বদ্ধমূল করা এবং নেক আমল করা। নেক আমলগুলো হচ্ছে, ইমান ও ইসলামের রুকনসমূহ পরিপূর্ণভাবে আদায় করা, সুন্দর চরিত্র, আত্মীয়তার সম্পর্ক অটুট রাখা, গরিব-মিসকিনদের জন্য ব্যয় করা, মেহমানদারি করা ইত্যাদি। জান্নাতে নিয়ে যাওয়ার প্রধান মাধ্যমসমূহ হচ্ছে, মাতা-পিতার সঙ্গে ভালো ব্যবহার করা, আল্লাহর জিকির করা, সালামের প্রসার করা, অসহায় ও গরিব লোকদের প্রতি দয়া করা, দীনের ব্যাপারে মানুষকে সহযোগিতা করা। হজরত আবু হুরায়রা (রা.) থেকে বর্ণিত হাদিসে রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেছেন, ‘তোমরা আল্লাহর নৈকট্য অর্জন কর এবং আমলসমূহকে সুন্দর কর, আর মনে রাখবে তোমাদের কেউ তার আমল দ্বারা জাহান্নামের আগুন থেকে মুক্তি পাবে না। সাহাবিরা জিজ্ঞাসা করল, আপনিও কি নাজাত পাবেন না হে আল্লাহর রাসুল, রাসুলুল্লাহ (সা.) বললেন, না আমিও না, তবে যদি আল্লাহ তার রহমত ও দয়া দ্বারা আমাকে ঢেকে ফেলেন তাহলে আমি নাজাত পাব। ইমাম নবীব (রহ.) বলেন, উল্লিখিত হাদিসের বাহ্যিক অর্থ হকপন্থীদের জন্য প্রমাণ। কারণ তারা বলেন, কোনো ব্যক্তি তার আমল দ্বারা সওয়াব ও জান্নাত লাভ করতে পারবে না। আর আল্লাহ তায়ালার বাণী, ‘তোমরা তোমাদের আমলের কারণে জান্নাতে প্রবেশ করো’ (সূরা নাহল: ৩২)। ‘আর এটিই জান্নাত, তোমাদের নিজেদের আমলের ফলস্বরূপ তোমাদের-এর অধিকারী করা হয়েছে’ (সূরা জুখরুফ: ৭২)। এ ধরনের আরো আয়াত রয়েছে, যেগুলোতে প্রমাণিত হয়, মানুষ তাদের আমলের মাধ্যমেই জান্নাতে প্রবেশ করবে, এগুলো উল্লিখিত হাদিসের সঙ্গে সাংঘর্ষিক নয়। বরং আয়াতের অর্থ হলো, জান্নাতে প্রবেশ করা আমলের দ্বারা হবে, কিন্তু আমল করার তাওফিক, হেদায়েত, আমলে নিয়তের বিশুদ্ধতা ও আমল কবুল করা আল্লাহর রহমত ও দয়ার মাধ্যমেই হয়ে থাকে। তাই জান্নাত লাভ করতে হলে আল্লাহ ও তার রাসুলের আনুগত্যের মাধ্যমে নিজেদের আল্লাহর রহমত পাওয়ার যোগ্য করে গড়ে তুলতে হবে।