জমির ভাগ চাওয়ায় বোনকে কুপিয়ে হত্যা : তিন ভাই বোন পলাতক

259

চুয়াডাঙ্গা দামুড়হুদার গোপালপুরে ৫ বিঘা পৈত্রিক সম্পত্তি নিয়ে চার ভাইবোনের বিরোধ
জমির ভাগ চাওয়ায় বোনকে কুপিয়ে হত্যা : তিন ভাই বোন পলাতক
নিজস্ব প্রতিবেদক: পৈত্রিক সম্পত্তি ভাগাভাগি নিয়ে বিরাধের জের ধরে চুয়াডাঙ্গার দামুড়হুদায় এক গৃহবধূকে কুপিয়ে হত্যার ঘটনা ঘটেছে। গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুরে দামুড়হুদার গোপালপুর গ্রামে এ হত্যাকান্ডের ঘটনা ঘটে। ৫ বিঘা পৈত্রিক জমি নিয়ে বিরোধের জেরে আপন দু’ভাই ও এক বোন মিলে গৃহবধূ হুসনে আরা ছবিকে কুপিয়ে জখম করে। পরে গুরুতর অবস্থায় তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নেয়া হয়। হুসনে আরা ছবির অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় উন্নত চিকিৎসার জন্য রাজশাহী নেয়ার পথে তার মৃত্যু হয়। ৩ সন্তানের জননী নিহত হুসনে আরা ছবি (৪২) কুষ্টিয়া শহরের বাসিন্দা হাফিজুল ইসলামের স্ত্রী।
দামুড়হুদা থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আবু জিহাদ মোহাম্মদ ফকরুল আলম খান জানান, হুসনে আরা ছবি কুষ্টিয়ার স্বামীর বাড়ি থেকে পিতার বাড়ি দামুড়হুদার গোপালপুর গ্রামে আসে। বৃহস্পতিবার দুপুরে জমি নিয়ে কথাবার্তার একপর্যায়ে আপন দুই ভাই ও এক বোনের সাথে কথাকাটাকাটি হয় হুসনে আরা ছবির। পরে তা সংঘর্ষে রুপ নেয়। দুই ভাই ও এক বোন হুসনে আরাকে বটি দিয়ে কুপিয়ে গুরুতর জখম করে। তাকে উদ্ধার করে চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে নিয়ে আসে এলাকার লোকজন। চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় অবস্থার অবনতি হলে হুসনে আরা ছবিকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রেফার্ড করেন। রাজশাহী নেওয়ার পথে সন্ধ্যার দিকে মারা যান হুসনে আরা ছবি।
ওসি আরো জানান, গোপালপুর গ্রামের মৃত মনা মালিতার জমিজমা ভাগ বাটোয়ারা নিয়ে তার চার ছেলেমেয়ের মধ্যে আগে থেকেই বিরোধ ছিল। হুসনে আরা ছবি গত বুধবার তার পিতার বাড়িতে আসে। ভাই মতিন ও শাহিন এবং বোন মিলি হুসনে আরার পিঠে বটি দিয়ে কুপিয়ে রক্তাক্ত জখম করে। ঘটনার পর থেকে ভাই মতিন মালিতা ও শাহিন মালিতা এবং বোন মিলি খাতুন গা ঢাকা দিয়েছে।
লাশ উদ্ধার করে দামুড়হুদা থানায় রাখা হয়েছে। আজ শুক্রবার সকালে লাশ ময়নাতদন্তের জন্য চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হবে বলে ওসি জানান।
চুয়াডাঙ্গার সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার (দামুড়হুদা সার্কেল) মো. কলিমুল্লাহ ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, হত্যাকা-ের ঘটনায় জড়িত আসামিদের গ্রেপ্তারের প্রক্রিয়া চলছে। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত ছবির মরদেহ দামুড়হুদা থানায় রাখা ছিলো ও মামলার প্রস্তুতি চলছিলো বলে জানিয়েছে পুলিশ।