চুয়াডাঙ্গা যুবতীর আত্মহত্যা, থানায় মামলা!

159

নিজস্ব প্রতিবেদক:
চুয়াডাঙ্গায় পৌর এলাকায় নুসরাত জাহান নাভানা (২২) নামের এক যুবতীর গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যার ঘটনা ঘটেছে। গতকাল বৃহস্পতিবার সকালে চুয়াডাঙ্গায় পৌর এলাকার মাস্টার পাড়ার নিজ বাড়ি থেকে পুলিশ নাভানার ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করে। নিহত নাভান মাস্টারপাড়ার মৃত আব্দুল হান্নানের মেয়ে।
পারিবারিক সূত্রে জানা যায়, নাভানার সঙ্গে চুয়াডাঙ্গা পৌর এলাকার হকপাড়ার মোহাম্মদ আব্দুল বারীর ছেলে তন্ময়ের বিয়ে হওয়ার কথা ছিল। কলেজে পড়াকালীন সময় থেকেই নাভানা ও তন্ময়ের মধ্যে বন্ধুত্বের সম্পর্ক গড়ে ওঠে। দুই পরিবারের সদস্যদের মতেই তাদের বিয়ের তারিখ ঠিক করা হয়। নাভানা গত বুধবার রাতে তন্ময়ের সঙ্গে মোবাইলে কথা বলছিল। তাঁদের মধ্যে মাঝেমধ্যেই কোনো বিষয় নিয়ে ঝগড়া হয়, আবার ঠিকও হয়ে যায়। তবে বুধবার রাতে নাভানা রাগ করে নিজের মোবাইলটি ভেঙে ফেলে এবং তাঁর মায়ের মোবাইল থেকে শেষ বার তন্ময়ের সাথে কথা বলে মোবাইল ফিরিয়ে দিয়ে নিজ ঘরে চলে যায়। গতকাল সকালে বাড়ির গৃহকর্মী নাভানার কোনো সাড়া-শব্দ না পেয়ে ঘরে খোঁজ করলে তাঁকে ফ্যানের সাথে ঝুলন্ত অবস্থায় দেখে এবং পরিবারের সদস্যদের খবর দেন। পরিবারের সদস্যরা নাভানার মৃত্যু হয়েছে বুঝতে পাড়লে চুয়াডাঙ্গা সদর থানায় খবর দেন। এ সময় চুয়াডাঙ্গা থানার পুলিশ নাভানার মৃতদেহ নিচে নামায় এবং মৃত্যুর সঠিক কারণ নির্ণয়ে ময়নাতদন্তের জন্য চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করে।
এ বিষয়ে জানতে চাইলে চুয়াডাঙ্গা সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবু জিহাদ ফকরুল আলম খান বলেন, সকালে খবর পেয়ে নাভানার ঘড় থেকে তাঁর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করে তা ময়নাতদন্তের জন্য সদর হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করা হয়। নিহত নাভানার পরিবারের পক্ষ থেকে থানায় আত্মহত্যা প্ররোচনার ৩০৬ ধারায় তন্ময়ের নামে একটি মামলা হয়েছে। মামলার তদন্ত সাপেক্ষে এবং ময়নাতদন্তের রিপোর্ট অনুযায়ী আইনাগত ব্যববস্থা নেওয়া হবে।
এদিকে, গতকাল বিকালেই ময়নাতদন্ত শেষে নিহতের লাশ পরিবারের নিকট হস্তান্তর করে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ এবং আসরের পর নিহতের জানাজা শেষে দাফন সম্পন্ন করা হয়।