চুয়াডাঙ্গায় ৭ ও মেহেরপুরে আরও ২ জন আক্রান্ত

26

২৪ ঘণ্টায় সারা দেশে করোনায় প্রাণ গেল ২৮ জনের, শনাক্ত ১৫৫৭
সমীকরণ প্রতিবেদন:
সারা দেশে করোনায় প্রতিদিনই মৃত্যুর মিছিল দীর্ঘ হচ্ছে। গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় আরও ২৮ জনের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে মৃতের সংখ্যা দাঁড়াল ৫ হাজার ৭ জনে। শনাক্তের ১৯৯ দিনের (৬ মাস ১৯ দিন) মাথায় মৃত্যুর এই সংখ্যা দাঁড়াল। দেশে করোনার রোগী প্রথম শনাক্ত হয় গত ৮ মার্চ এবং প্রথম মৃত্যু হয় ১৮ মার্চ। নতুন করে রোগী শনাক্ত হয়েছে ১৫৫৭ জন। মোট শনাক্ত ৩ লাখ ৫২ হাজার ১৭৮ জনে দাঁড়িয়েছে। ২৪ ঘণ্টায় ২ হাজার ৭৩ জন এবং এখন পর্যন্ত ২ লাখ ৬০ হাজার ৭৯০ জন সুস্থ হয়ে উঠেছেন। গতকাল মঙ্গলবার স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে। এতে আরও জানানো হয়, ১০২টি পরীক্ষাগারে গত ২৪ ঘণ্টায় ১৪ হাজার ২৪৪ টি নমুনা সংগ্রহ এবং ১৪ হাজার ১৬৪টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে। এখন পর্যন্ত ১৮ লাখ ৪৮ হাজার ৪৮৭টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে। ২৪ ঘণ্টায় শনাক্তের হার ১০ দশমিক ৯৯ শতাংশ। শনাক্ত বিবেচনায় সুস্থতার হার ৭৪ দশমিক শূন্য ৫ শতাংশ এবং শনাক্ত বিবেচনায় মৃত্যুর হার ১ দশমিক ৪২শতাংশ। সারা দেশে করোনাভাইরাসে এখন পর্যন্ত মৃত্যুবরণকারীদের ৫০ শতাংশেরও বেশি মানুষের বয়স ষাটোর্ধ্ব (২ হাজার ৫২৭ জন)। সবচেয়ে কম মৃত্যু হয়েছে শূন্য থেকে ১০ বছরের মধ্যে। এদের সংখ্যা মাত্র ২৩ জন অর্থাৎ শূন্য দশমিক ৪৬ শতাংশ। এখন পর্যন্ত পুরুষ মারা গেছেন ৩ হাজার ৮৯০ জন এবং নারী ১ হাজার ১১৭ জন। সবচেয়ে বেশি মারা গেছে জুলাই মাসে ১ হাজার ২৬৪ জন এবং সবচেয়ে কম মার্চ মাসে ৫ জন। দেশে একদিনে সর্বোচ্চ ৬৪ জনের মৃত্যুর রেকর্ড হয়েছে গত ৩০ জুন। এদিকে, চুয়াডাঙ্গায় নতুন ৭ জনের শরীরে করোনা শনাক্ত হয়েছে। এক দিনে সুস্থ হয়েছেন ৯ জন। অপর দিকে, মেহেরপুর জেলায় নতুন করে আরও ২ জন করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন।
চুয়াডাঙ্গা:
চুয়াডাঙ্গায় নতুন ৭ জনের শরীরে করোনা শনাক্ত হয়েছে। গতকাল মঙ্গলবার জেলা স্বাস্থ্য বিভাগ ৩৪টি নমুনার ফলাফল প্রকাশ করে। এর মধ্যে ৭ জনের রিপোর্ট পজিটিভ ও ২৭ জনের রিপোর্ট নেগেটিভ আসে। এ নিয়ে জেলায় মোট করোনা শনাক্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১৪০৭ জনে। নতুন সুস্থ ৯ জনসহ এ পর্যন্ত জেলায় মোট ১২২৫ জন সুস্থ হয়েছেন।
জানা যায়, গত সোমবার করোনা আক্রান্ত সন্দেহে জেলা স্বাস্থ্য বিভাগ ৩৪টি নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষার জন্য কুষ্টিয়া পিসিআর ল্যাবে পাঠায়। গতকাল উক্ত ৩৪টি নমুনার ফলাফল সিভিল সার্জন অফিসে এসে পৌঁছায়। ৩৪টি নমুনার মধ্যে ৭ জনের শরীরে করোনা শনাক্ত হয়েছে ও ২৭ জনের রিপোর্ট নেগেটিভ এসেছে। গতকাল নতুন শনাক্ত ৭ জনের মধ্যে চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলার ৩ জন ও দামুড়হুদা উপজেলার ৪ জন রয়েছে। আক্রান্তদের মধ্য পুরুষ ৪ জন ও নারী ৩ জন। বয়স ২ বছর থেকে ৬০ বছরের মধ্যে। গতকাল করোনা আক্রান্ত সন্দেহে জেলা স্বাস্থ্য বিভাগ ১৫টি নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষার জন্য কুষ্টিয়া পিসিআর ল্যাবে প্রেরণ করে। জেলা থেকে এ পর্যন্ত মোট নমুনা সংগ্রহের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৫ হাজার ৫৯০টি।
চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসা কর্মকর্তা ডা. শামীম কবির জানান, চুয়াডাঙ্গায় নতুন করে ৭ জনের শরীরে করোনা শনাক্ত হয়েছে। গতকাল সদর উপজেলা হোম আইসোলেশন থেকে ৯ জন সুস্থ হয়েছেন। গতকাল মঙ্গলবার পর্যন্ত চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালের আইসোলেশন ইউনিটে ১২ জন রোগী চিকিৎসাধীন অবস্থায় ছিলেন।
চুয়াডাঙ্গা সিভিল সার্জন অফিসের সর্বশেষ তথ্য অনুযায়ী জেলা থেকে এ পর্যন্ত মোট নমুনা সংগ্রহ ৫ হাজার ৫৯০টি, প্রাপ্ত ফলাফল ৫ হাজার ৪৫৮টি, পজিটিভ ১ হাজার ৪০৭টি ও নেগেটিভ ৪ হাজার ৬০টি। গতকাল হোম আইসোলেশন নতুন ৯ জন সুস্থ হয়েছেন। এ পর্যন্ত জেলায় মোট সুস্থ হয়েছেন ১ হাজার ২২৭ জন ও মৃত্যু ৩২ জন। শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত জেলায় গতকাল হোম আইসোলেশনে ছিলেন ১২৫ জন ও প্রাতিষ্ঠানিক আইসোলেশনে ছিলেন ১২ জন।
মেহেরপুর:
মেহেরপুর জেলায় নতুন করে আরও ২ জন করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। গতকাল মঙ্গলবার সন্ধ্যায় মেহেরপুরের সিভিল সার্জন ডাক্তার নাসির উদ্দিন বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। সিভিল সার্জন অফিস সূত্রে জানা যায়, করোনাভাইরাস সন্দেহে পরীক্ষার জন্য যে নমুনা পাঠানো হয়েছিল, তার মধ্যে আরও ৭৭ জনের রিপোর্ট এসেছে। সেখানে থেকে জেলায় করোনা সংক্রমিত ২ জনের নাম রয়েছে। আক্রান্ত ২ জনের মধ্যে মেহেরপুর সদর উপজেলার ১ জন ও গাংনী উপজেলার ১ জন। এ নিয়ে মেহেরপুর জেলায় সরকারিভাবে বর্তমানে ২৬ জনের করোনা পজিটিভ রয়েছে। ৫১১ জন সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন এবং মৃত্যুবরণ করেছে ১৫ জন।