চুয়াডাঙ্গার বেলগাছিতে সংঘর্ষে নারীসহ আহত-৭

218

নিজস্ব প্রতিবেদক: চুয়াডাঙ্গার সদর উপজেলার বেলগাছিতে পিয়াজে ভাজাকে কেন্দ্র করে উভয়পক্ষের সংঘর্ষে নারীসহ ৭ জন গুরুতর জখম হয়েছে। তাদেরকে উদ্ধার করে চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এতে যে কোন সময় রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের আশঙ্কা রয়েছে বলে জানা গেছে। গতকাল সোমবার রাত ৭টার দিকে বেলগাছি তেতুঁলতলা পাড়ায় এ ঘটনা ঘটে। উভয়পক্ষের আহতরা হলেন- চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলার বেলগাছি গ্রামের তেঁতুলতলাপাড়ার জোহর উদ্দীনের ছেলে আমজেদ (৫০), তার তিন ছেলে মামুন (২৮), হারুন (২৫), লালচাঁন (১৯) ও লালচাঁনের স্ত্রী বৃষ্টি (১৮), অপরপক্ষের একই এলাকার মান্নান হোসেনের মেয়ে ময়না (১৮) ও ময়নার মামী একই এলাকার সাইদুরের স্ত্রী আশুরা (৩৫)।
জানা গেছে, চুয়াডাঙ্গার বেলগাছি তেঁতুলতলাপাড়ার ময়নার মা আর্জিনা খাতুন দীর্ঘদিন যাবত পিয়াজে ভাজা বিক্রয় করে আসছে। তার দেখাদেখি এলাকার জোহর উদ্দিনের ছেলে আমজাদ ও পিয়াজে ভাজা বিক্রয় করা শুরু করে। এ নিয়ে উভয়পক্ষের বেশ ক’দিন ধরে বিরোধ চলে আসছিল। গতকাল রাতে এ নিয়ে উভয়পক্ষের মধ্যে বাকবিত-া হয়। একপর্যায়ে উভয়পক্ষের লোকজন ধারালো অস্ত্র, লাঠি, সোটা নিয়ে মহড়া দেয় ও সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। এতে উভয়পক্ষের নারীসহ ৭ জন রক্তাক্ত জখম হয়। পরে স্থানীয়রা আহতদের উদ্ধার করে চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে ভর্তি করে।
এলাকাবাসী বলেন, উভরপক্ষের মধ্যে পিয়াজে ভাজা বিক্রি নিয়ে বেশ কিছুদিন ধরে বিরোধ চলে আসছিল। এ নিয়ে গতকাল রাতে উভয়পক্ষের সংঘর্ষে নারীসহ ৭ জন জখম হয়। এ ঘটনায় যখন তখন আবারো রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের আশঙ্কা রয়েছে বলে জানান এলাকাবাসী। এ বিষয়ে চুয়াডাঙ্গা সদর থানার ভারপ্রাপ্ত (ওসি) দেলোয়ার হোসেনের সাথে যোগাযোগ করার চেষ্টা করেও যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত উভয়পক্ষ থেকে পাল্টাপাল্টি মামলার প্রস্তুতি চলছিল।