চুরি না করলে ইয়াবা খাওয়ার টাকা কোথাই পাবো?

357

দর্শনা অফিস: দর্শনা পৌরশহরের রেলবাজারসহ আজিমপুর, মোহাম্মদপুর এলাকায় প্রায়ই ঘটছে ছোট ছোট চুরির ঘটনা। আজিমপুর ও মোহাম্মদপুর এলাকায় খোজ নিয়ে দেখা গেছে প্রায় প্রতিদিনই কারও না কারও বাড়িতে পারিবারিক ছোট খাটো ব্যাবহারের জিনিস যেমন, বালতি, বদনা, গামলা, কবুতর, হাস, মুরগীসহ ইত্যাদী জিনিস চুরি হচ্ছে। এলাকাবাসী বলেন সামান্য জিনিস চুরি হয় বলে কেউই পুলিশের কাছে অভিযোগ করে না। গতকাল বেলা সাড়ে ১১টার দিকে মোহাম্মদপুর এলাকার দর্শনা রেলবাজারের এলজি শো-রুমের মালিক সোহেল রানার পিতা জাহিদুল ইসলামের বাড়ির ছাদের উপর দিয়ে সিড়ি ঘরের দরজা খুলে ঘরে প্রবেশ করে নগদ টাকা ও মোবাইল নেওয়ার সময় হাতেনাতে ধরাপড়ে মোহাম্মদপুর এলাকার টিউবওয়েল মিস্ত্রি শফিকুলের ছেলে ক্ষুদে চোর রিয়াদ (১২)। এসময় বাড়ির মালিক রিয়াদের ধরে চুরি করিস কেন জিজ্ঞাসা করলে ক্ষুদে চোর রিয়াদ বলে চুরি করবোনা কি করবো, ইয়াবা খাওয়ার টাকা কোথায় পাবো। ক্ষুদে চোর রিয়াদ জানায় তার সাথে আরো ৩জন আছে এরা হলো বাসস্ট্যান্ডপাড়ার মোহাম্মদ আলীর ছেলে আমিরুল (১৮), মোহাম্মদপুরের মুন্নার ছেলে আকাশ (১৫), হিরা সিনেমা হলপাড়ার ফরিদার ছেলে সূর্য (২৫)। তবে রিয়াদ বলে সূর্য তাদের সর্দার। তারা কোথায় আছে জানতে চাইলে রিয়াদ কেরুর আবাসিক এলাকার ভিতরে একটি পরিত্যাক্ত  জানালা দরজা ভাঙ্গা বাসায় নিয়ে যায়। সেখানে কাউকে না পেয়ে বাড়ির মালিক দর্শনা পুলিশের এএসআই সাইদুর ও এএসআই লাবলুর হাতে তুলে দেয় এবং একটি লিখিত অভিযোগও করেন। এ বিষয়ে দর্শনা তদন্ত কেন্দ্রের ওসি শোনিত কুমার গায়েন বলেন, যেহেতু চোর নাবালক সেহেতু আইন অনুযায়ী দামুড়হুদা সমাজসেবা অফিসারের নিকট হস্তান্তর করা হয়েছে।