গুজব : ব্রয়লার মুরগি ছড়াচ্ছে করোনা!

22

নিজস্ব প্রতিবেদক:
ব্রয়লার মুরগিতে করোনা ছড়াচ্ছে, এমন একটি ভুল মেসেজ ইতিমধ্যেই সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়েছে। যেখানে বলা হয়েছে যে, করোনাভাইরাস ব্রয়লার মুরগিতে পাওয়া গিয়েছে। এমন গুজবে মুরগির মাংস খাওয়া কম করে দিয়েছেন অনেকেই। যার ফলে পোলট্রি শিল্প ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। সারা দিন দোকানে থেকেও বিক্রি কম হওয়ায় লাভের মুখ দেখতে পাচ্ছেন না ব্যবসায়ীরা। এ গুজবের পরিপ্রেক্ষিতে চুয়াডাঙ্গা প্রাণিসম্পদ বিভাগ হ্যান্ডবিল বিলি করছে। যেখানে স্পষ্ট লেখা আছে, মুরগির মাংস করোনা ছড়ায় না, গুজবে কান দিবেন না।
জানা গেছে, করোনা আতঙ্কে চুয়াডাঙ্গাতে কিছুটা কমেছে ব্রয়লার মুরগির চাহিদা। বিক্রি কমে যাওয়ায় হতাশায় ভুগছেন মুরগি ব্যবসায়ীরা। চুয়াডাঙ্গা বড় বাজারের কয়েকজন পোলট্রি ব্যবসায়ী জানিয়েছেন, ‘আগের তুলনায় বর্তমানে ব্রয়লার মুরগির চাহিদা কিছুটা কমেছে। করোনা মহামারিতে বাজারে মুরগির মাংসের ক্রেতার অভাবে এর বিক্রিও কমেছে। কিন্তু ক্রেতাদের বোঝা উচিত পোলট্রিতে করোনাভাইরাস থাকলে আগে ব্যবসায়ীরা আক্রান্ত হতো, কারণ ব্যবসায়ীদের চব্বিশ ঘণ্টাই পোলট্রির সঙ্গে থাকতে হয়।’
ব্রয়লার মুরগি ও পোলট্রি মুরগি ছড়াতে পাড়ে করোনা, এমন গুজবের বিষয়ে জানতে চাইলে চুয়াডাঙ্গার পোলট্রি ফিড ও পোলট্রি মুরগির বাচ্চা ব্যবসায়ী শাহারিয়ার কবির সুমন জানান, ‘করোনা নিয়ে আতঙ্কের শেষ নেই। এর মধ্যে ব্রয়লার মুরগি, পোলট্রি মুরগি ও মুরগির ডিম নিয়ে গুজবে চরম বিপাকে পরেছি আমরা। বিক্রি হচ্ছে না মুরগির বাচ্চা, কমেছে মুরগির খাবার বিক্রিও। এভাবে চলতে থাকলে আমাদের মতো ব্যবসায়ীদের পথে বসতে হবে। চুয়াডাঙ্গা জেলার গ্রাম অঞ্চলে এ গুজবের প্রভাব পড়েছে বেশি। সম্প্রতি এ গুজব ঠেকাতে আমরা জেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তার সঙ্গেও কথা বলেছি।’
এ বিষয়ে পোলট্রি ফিড ব্যবসায়ী স্বপ্নীল এন্টারপ্রাইজের স্বত্বাধিকারী কে এম শাহরিয়ার কবির সুমন বলেন, ‘জ্ঞানের অভাবে কিছু লোক করোনা ভাইরাস নিয়ে আতঙ্ক তৈরি করছে। প্রাণীসম্পদ বিভাগের পক্ষ থেকে ইতিমধ্যেই জানিয়ে দেওয়া হয়েছে, ব্রয়লার, সোনালী ও দেশি মুরগির মাংস থেকে করোনাভাইরাস ছড়ায় না। বরং মুরগির মাংস খেলে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি পায়। তাই নির্ভয়ে খাওয়া যায় মুরগির মাংস।’ এ সময় ব্রয়লার মুরগিতে করোনা ছড়াচ্ছে, এমন ভুল মেসেজ যারা ছড়াচ্ছেন তাদের বিরুদ্ধে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে ব্যবস্থা নেওয়ার আহ্বান জানান এ ব্যবসায়ী।
এ বিষয়ে জানতে চাইলে চুয়াডাঙ্গা জেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা ডা. মো. গোলাম মোস্তফা বলেন, ‘ব্রয়লার মুরগি করোনা ছড়াতে পারে, এমন গুজবে সম্প্রতি চুয়াডাঙ্গার দামুড়হুদা, আলমডাঙ্গাসহ বিভন্ন স্থানে মুরগির দোকানে বেচাকেনা কমেছে বলে জানতে পেরেছি। ব্রয়লার মুরগির মাধ্যমে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার মতো একটি ঘটনাও দেখা যায়নি। এ দাবির পেছনে কোনো বৈজ্ঞানিক প্রমাণও নেই। তাই ব্রয়লার মুরগিতে করোনাভাইরাস পাওয়া গেছে, এই দাবি ঠিক নয়।’ করোনাভাইরাসের এই গুজব দেশের পোলট্রি শিল্পের ওপর ব্যাপক বিরূপ প্রভাব ফেলতে পারে বলে মনে করেন তিনি। সবশেষে তিনি বলেন, মুরগির মাংস খেলে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি পায় করোনাভাইরাস ছড়ায় না।